টোকিওতে অভিনব একটি আয়োজন-হাঁস পার্টি

রাহমান মনি: প্রবাসে যেখানে তিনজন মিলে চারটি দলে ভাগ হয়ে যায় একই মতাদর্শের লোক চেয়ার ও পদবির জন্য ভাগ হয়ে একে অপরের মুখ দেখাদেখি পর্যন্ত বন্ধ হয়ে যায়। সেখানে ভিন্ন ভিন্ন মতাদর্শ এবং লেবাসবিহীন কিছু উদ্যোগী যুবক টোকিও দীর্ঘদিন ধরে বিনা লাভ ও লোভে একটি অনুষ্ঠানের মাধ্যমে জাপান প্রবাসীদের আপ্যায়নের ব্যবস্থা করে আসছে অত্যন্ত সফলতার সঙ্গে। আয়োজনটির নামটিও অভিনব হাঁস পার্টি। নেই কোনো মঞ্চ, নেই কোনো বক্তা, এমনকি বক্তব্য পর্ব বা ব্যানার ঝুলানোর কোনো ব্যবস্থাই রাখা হয় না হাঁস পার্টিতে। শুধু হিগাশি জুজো মসজিদের ইমাম বাংলাদেশের মুখ সমৃদ্ধি এবং প্রবাসীদের সুস্বাস্থ্য ও দীর্ঘায়ু কামনা করে এবং দ্বীনের বয়ান করে, দোয়া কামনা করে মোনাজাত পরিচালনা করেন। আয়োজকদের মধ্যে দল বা সংগঠনের লেবাস না থাকলেও সব দল, আঞ্চলিক সংগঠনসমূহের নেতৃবৃন্দ, সামাজিক, সাংস্কৃতিক ব্যবসায়িক সংগঠনসমূহের নেতৃবৃন্দ, সর্বস্তরের প্রবাসী এবং জাপানিজ সুহৃদগণ ও হাঁস পার্টিতে অংশ নিয়ে আপ্যায়িত হন।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, হাঁস পার্টিটি প্রথমে কয়েকজন বন্ধু মিলে নিজেদের মধ্যে শুরু করেন টোকিওর কিতা সিটি হিগাশি জুনোতে। বন্ধুদের মধ্যে কেউবা আওয়ামী লীগ, কেউবা বিএনিপ’র অনুসারী, আবার কেউ বা কোনো দলেরই নন। এককান, দু’কান হয়ে তা উভয় দলের নেতৃবৃন্দের কানে পৌঁছালে তারাও হাঁস পার্টিতে অংশ নেয়ার আগ্রহ প্রকাশ করেন। অনেকেই আবার সহযোগিতায় আশ্বাসও দেন। কিন্তু যেহেতু বন্ধুরা মিলে করে থাকেন এবং কোনো সংগঠনের ব্যানারে নয় তাই, নেতৃবৃন্দের আমন্ত্রণ জানালেও সহযোগিতা নিতে অপারগতা প্রকাশ করেন। এরপর তা আর কেবল নেতৃবৃন্দের মধ্যে সীমাবদ্ধ না রেখে সবার জন্য উন্মুক্ত করে আন্তর্জাতিক মাধ্যমে আমন্ত্রণ জানিয়ে দেন।

শুরুটি হয়েছিল হিগাশি জুজোতে এবং আয়োজকদের বেশিরভাগই হিগাশি জুজোর বাসিন্দা তাই হিগাশি জুজো ওয়েলফেয়ার নামে তারা হাঁস পার্টির কার্যক্রম চালিয়ে থাকেন এবং অর্থের জোগানটাও নিজেরাই দিয়ে থাকেন। আর তার পেছনের কারিগররা হলেন নুরখান রনি, মো. হুমায়ুন কবির, ওমর ফারুক রিপন, মো. আবুল খায়ের, মো. কাউসার খান, মো. রাসেল মাঝি, আব্দুল জাব্বার, মো. মোস্তাফিজুর রহমান জনি, মুজাহিদুল ইসলাম জুয়েল, মো. মনির হোসেন, সফিকুল ইসলাম রাজিব বিন্দাশ, ফারুক আহমেদ, আবু তাহের, জসিম উদ্দিন সুমন, সাইফুল ইসলাম টিটু প্রমুখ। কেউ আর্থিক সহায়তা করতে চাইলে বিনয়ের সহিত অপারগতা প্রকাশ করেন।

হাঁস পার্টি জাপান প্রবাসীদের কাছে প্রত্যাশিত একটি আয়োজনের রূপ ধারণ করেছে। তার কারণ, এখানে আয়োজক এবং অতিথিদের কারোর-ই দলীয় কোনো পরিচিতি থাকে না। থাকে না আঞ্চলিকতার প্রাধান্য। সবার জন্য উন্মুক্ত, যেমনটি উমুক্ত থাকে কেবল মুন্সীগঞ্জ-বিক্রমপুর সোসাইটি জাপানের আয়োজনে। ধর্মীয় উৎসব (ইফতার, ঈদ, পূজা, ক্রীমসান, প্রবারণা পূর্ণিমা) অবশ্য ভিন্ন, আপ্যায়নেও কোনো কার্পণ্য নেই। তাই অনেকেই ফোন নিয়ে থাকেন হাঁস পার্টি হচ্ছে কি না, হলেও কবে?

হাঁসের মাংস অনেক পছন্দ করলেও রান্না করাটা সময়সাপেক্ষ এবং একটু জটিলও বটে। ব্যস্ততম জীবনে সেই ফুরসত কম। তাই হাঁসপ্রেমীদের রসনা মিটাতে সবাই দিনটির অপেক্ষায় থাকে। এটাও একটি কারণ হতে পারে। তবে, সবচেয়ে বড় কারণ হচ্ছে, আয়োজকদের আন্তরিকতা।

rahmanmoni@gmail.com

সাপ্তাহিক

Leave a Reply