এবার টঙ্গিবাড়ীতে মিলল নারীর খণ্ডিত পা

এবার মুন্সীগঞ্জের টঙ্গিবাড়ী উপজেলার আবদুল্লাপুরের পালবাড়ী এলাকা থেকে এক নারীর খণ্ডিত পায়ের অংশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। গতকাল শুক্রবার রাত ৮টার দিকে উদ্ধার করা খণ্ডিত পায়ের অংশটি ময়নাতদন্তের জন্য মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়। এর আগে বৃহস্পতিবার দুপুরে শহরের উপকণ্ঠ সদর উপজেলার পূর্ব রতনপুর এলাকার ঝোঁপ-জঙ্গল থেকে মিতা বেগম নামের এক গৃহবধূর খণ্ডিত মাথা উদ্ধার করে সদর থানা পুলিশ। তবে গতকাল শুক্রবার উদ্ধার করা খণ্ডিত পায়ের অংশ গৃহবধূ মিতা বেগমের নয় বলে স্বামী জাহিদ ও মুন্সীগঞ্জ সদর থানা পুলিশ জানিয়েছে।

অন্যদিকে খণ্ডিত মাথা উদ্ধারের একদিন পরই টঙ্গিবাড়ী উপজেলার আবদুল্লাপুরের পালবাড়ী এলাকায় গতকাল শুক্রবার খণ্ডিত পায়ের অংশ উদ্ধারের ঘটনায় মুন্সীগঞ্জে ব্যাপক চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে। এ পায়ের অংশটি নিহত গৃহবধূ মিতা বেগমের নয়- এমন দাবির পরিপ্রেক্ষিতে উদ্ধার করা খণ্ডিত পা কোন নারীর, এমন প্রশ্ন উঠেছে। এদিকে বৃহস্পতিবার দুপুরে খণ্ডিত মাথা উদ্ধার ও পরিচয় শনাক্ত হলেও গতকাল শুক্রবার রাত ৮টা পর্যন্ত গৃহবধূ মিতা বেগমের শরীরের অন্য অংশ ঘাতকরা কোথায় ফেলেছে, তা নিশ্চিত হতে পারেনি পুলিশ।

টঙ্গিবাড়ী থানার ওসি মো. ইয়ারদৌস হাসান জানান, স্থানীয় গ্রামবাসীর কাছে খবর পেয়ে শুক্রবার দুপুরে আবদুল্লাপুর ইউনিয়নের পালবাড়ী এলাকা থেকে নারীর খণ্ডিত পায়ের অংশ উদ্ধার করা হয়। রাতে ময়নাতদন্তের জন্য খণ্ডিত পায়ের অংশ মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। বৃহস্পতিবার মুন্সীগঞ্জে যে নারীর খণ্ডিত মাথা উদ্ধার করা হয়, খণ্ডিত পায়ের অংশটি তারই হতে পারে বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে।

মুন্সীগঞ্জ সদর থানার ওসি মো. আলমগীর হোসাইন রাতে সমকালকে জানান, খণ্ডিত পায়ের অংশ উদ্ধারের খবর পেয়ে স্বামী জাহিদ মিয়া ও তার ভাই প্রত্যক্ষ করে তা নিহত গৃহবধূ মিতা বেগমের নয় বলে জানিয়েছেন। তিনি জানান, এখনও গৃহবধূ মিতা বেগমের শরীরের অন্য অংশের সন্ধান মেলেনি। হত্যার পর ঘাতকরা খণ্ডিত অন্য অংশ কোথায় ফেলেছে, তা শনাক্ত করার চেষ্টা চলছে।

সমকাল

Leave a Reply