পদ্মা সেতু, পদ্মার জল উন্নয়ন হোক সমান্তরাল

ফনিন্দ্র সরকার : নদীমাতৃক বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় নদীর নাম পদ্মা। পদ্মা নদী হিমালয়ের গঙ্গোত্রী হিমবাহ থেকে উৎপন্ন হয়ে ভারতের ওপর দিয়ে প্রবাহিত হয় এবং রাজশাহী জেলার কাছে এসে পদ্মা নামে বাংলাদেশে প্রবেশ করে। পদ্মা গোয়ালন্দে এসে যমুনার সঙ্গে, চাঁদপুরে মেঘনার সঙ্গে মিলিত হয়। পদ্মার বহুরূপী আচরণের বিষয় রূপকথার গল্পের মতো। বৃহদাকারে পদ্মা মুন্সীগঞ্জ জেলার ওপর দিয়েও প্রবাহিত হয়। মুন্সীগঞ্জের মাওয়া ঘাটের ফেরি পার হয়ে ঢাকাসহ উত্তরাঞ্চলের মানুষ দক্ষিণাঞ্চলে যাতায়াত করে। মানুষের এই যাতায়াতে ব্যাপক সময় নষ্ট, সেই সঙ্গে ঝুঁকিপূর্ণও বটে। তাই মাওয়া অঞ্চলের জাজিরা দিয়ে স্বপ্নের পদ্মা সেতু নির্মিত হচ্ছে। ২০১৮ সালের ডিসেম্বর নাগাদ সেতুর কাজ শেষ হওয়ার কথা।

পদ্মা সেতু বাংলার মানুষের দীর্ঘদিনের একটি স্বপ্ন ছিল। সেই স্বপ্ন আজ বাস্তবায়নের পথে। এই সেতু নির্মাণে কত বাধা-বিপত্তি এসেছে। নানা চক্রান্ত-ষড়যন্ত্র হয়েছে। সব ষড়যন্ত্র-চক্রান্তের জাল ছিন্ন করে শেখ হাসিনার দৃঢ়চেতা মনোভাবে বাংলাদেশের অভ্যন্তরীণ অর্থেই সেতুর নির্মাণকাজ এগিয়ে চলছে দ্রুতগতিতে। শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশে অনেক সফলতার একটি বড় সাফল্য পদ্মা সেতু। পদ্মা সেতু চালু হলে বাংলাদেশের স্থলপথের যোগাযোগব্যবস্থার প্রভূত উন্নতি ঘটবে সন্দেহ নেই, সেই সঙ্গে পদ্মা সেতুর কারণে অর্থনৈতিক উন্নয়ন ঘটবে দ্রুততার সঙ্গে। ২০৪১ সালে বাংলাদেশ উন্নত দেশের তালিকায় স্থান পাওয়ার সম্ভাবনাকে উড়িয়ে দেওয়া যাবে না। তবে খটকাটা অন্য জায়গায়। উন্নত দেশের প্রকৃত সংজ্ঞাটা কী তা কিন্তু বাংলার মানুষের কাছে পরিষ্কার নয়। মাথাপিছু আয় এবং মানুষের আর্থিক সচ্ছলতা, জীবনপ্রবাহে সক্ষমতার মানদ-ে উন্নত দেশের বিচার সম্ভব নয়। ভৌতিক অবকাঠামো, পরিবেশ, কৃষি, নদী সংস্থার তথা নদীর জল রক্ষায় পরিকাঠামো নির্মিত না হলে উন্নত দেশের সংজ্ঞায় সংজ্ঞায়িত হবে না। তাই উন্নত দেশের চিন্তা বাস্তবায়নে এ বিষয়গুলো মাথায় রাখতে হবে।

শুরুতেই বলেছি, আমাদের এই দেশ নদীমাতৃক দেশ। অসংখ্য নদ-নদী জলের মতো জড়িয়ে রেখেছে। বাংলাদেশের মতো এত নদ-নদী পৃথিবীর আর কোনো দেশে নেই। বাংলার চিরশ্যামল রূপ এ যে নদ-নদীরই অবদান। নদীবিধৌত পলিমাটি দ্বারা আবৃত বাংলাদেশ নামের ভূখ-টি, তাই এত উর্বর, এত ফসলি, এত সুন্দর। পদ্মা, মেঘনা, যমুনা, ধলেশ্বরী, ব্রহ্মপুত্র, কর্ণফুলী, তিস্তা, এসব প্রধান প্রধান নদী ছাড়াও রয়েছে অসংখ্য ছোট নদী, শাখা নদী, উপনদী। যেমন শীতলক্ষ্যা, বুড়িগঙ্গা, আড়িয়ালখাঁ, গোমতি, মধুমতি, করতোয়া, আত্রাই, গড়াই, তিতাস, সুরমা, কুশিয়ারা, সন্ধ্যা, মাতামুহুরি, কীর্তনখোলা, রূপসা, পশুর, ঝিনাই, তুরাগ, বিষখালী প্রভৃতি। তা ছাড়া আরও অসংখ্য নদ-নদী, খাল-বিল রয়েছে, যেগুলোর নাম এ মুহূর্তে মনে করতে পারছি না। নদ-নদী, খাল-বিল বাংলার প্রাকৃতিক সৌন্দর্যকে বৈশিষ্ট্যম-িত করে রেখেছে। প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের এই বাংলাদেশ আজ দ্রুত উন্নয়নের পথে এগিয়ে চললেও এর আসল রূপ-লাবণ্য হারাতে বসেছে। আধুনিক সভ্যতার এই যুগে বাংলাদেশ নদীশূন্যের পথেও এগিয়ে যাচ্ছে। বাংলার বুকে বয়ে যাওয়া নদ-নদীগুলো রক্ষার দৃশ্যমান কোনো পদক্ষেপ নেই। নদীর নাব্য রক্ষায় রাষ্ট্রীয় বাস্তব কার্যক্রমের সীমাহীন ঘাটতি পরিলক্ষিত হচ্ছে। দেশের অধিকাংশ নদী ভূমিদস্যুদের দখলে চলে গেছে। নদীর ওপর স্থাপনা নির্মাণ করে অর্থ রোজগারের প্রতিযোগিতা চলছে অবিরাম।

জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে বিশ্ব পরিবেশ বিপর্যয়ের মুখে পড়েছে। অথচ জলবায়ু পরিবর্তনের জন্য মানবসভ্যতা দায়ী, উন্নত বিশ্বের বাসিন্দাদের ভোগবিলাসিতার লক্ষ্যে প্রকৃতিকে বদলে দিয়েছে বৈজ্ঞানিক প্রযুক্তি দিয়ে। জলবায়ু পরিবর্তনে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত দেশের তালিকায় রয়েছে আমার প্রিয় বাংলাদেশ। প্রতিবছর বিভিন্ন দেশে জলবায়ু সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। ক্ষতিপূরণের লক্ষ্যে হাজার কোটি টাকার বাজেট হয়, কোথায় যায় সে টাকা? কেউ কি ভেবে দেখেছে? এটা গেল একটা দিক। অন্যদিকে আমাদের দেশীয় নদী লুণ্ঠনকারীর হাত থেকে কীভাবে বাঁচব তার কোনো পরিকল্পনা দেখছি না। পরিকল্পনা কেবল কথার মধ্যেই সীমাবদ্ধ। কয়েকদিন আগে আমাদের পানিমন্ত্রী পানি সংস্কারে নেওয়া বিভিন্ন পদক্ষেপের কথা বলেছেন। অনেক বড় বাজেটের প্রকল্পের কথা জানা গেছে, এর অধিকাংশই নাকি বাস্তবায়নের পথে। বাস্তবে কোনোটাই দৃশ্যমান নয়। পানি উন্নয়ন বোর্ডের কর্মকর্তারা পানি সংস্কারের নামে যা করেছেন তা অদৃশ্যই থেকে যাচ্ছে। নদীর পানির প্রতি গুরুত্ব দেওয়া হচ্ছে না। ডিপ মেশিন বসিয়ে মাটির নিচ থেকে পানি উত্তোলন করে চাহিদা মেটানোর চেষ্টা চলছে।

এতে ভূগর্ভস্থে যে চাপ সৃষ্টি হচ্ছে তাতে ভূমি ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। বাংলাদেশের অধিকাংশ নদীর উৎপত্তিস্থল ভারতে। তিব্বতের মানস সরোবর থেকে উৎপন্ন হয়ে ভারতের আসাম প্রদেশের ওপর দিয়ে বাংলাদেশে প্রবেশ করে ব্রহ্মপুত্র নদী। ব্রহ্মপুত্রের প্রধান ধারাটি জামালপুর জেলার পশ্চিম প্রান্ত ঘেঁষে যমুনা নামে দক্ষিণ দিকে প্রবাহিত হয়। অপর ধারাটি পুরনো ব্রহ্মপুত্র নামে ময়মনসিংহ জেলার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হয়। তিস্তা নদী ভারতের কুচবিহার ও জলপাইগুড়ি জেলার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হয়ে বাংলাদেশে লালমনিরহাট জেলায় প্রবেশ করে। এই তিস্তার ওপর ভারত সরকার বাঁধ দিয়ে রেখেছে। তিস্তাচুক্তি নিয়ে ভারতের সঙ্গে বাংলাদেশের বিরোধ দীর্ঘদিনের। আজও সে বিরোধ মেটেনি। তিস্তার সমাধান কবে হবে তা কেউ বলতে পারবে না। খুব শিগগিরই হয়ে যাবে এমন কথা শুনে আসছি দীর্ঘদিন থেকে। তিস্তাচুক্তি আজকের প্রসঙ্গ নয়। তাও দু-একটি কথা বললাম।

আজ আমরা অর্থাৎ এ দেশের সাধারণ মানুষ চরম হতাশার মধ্য দিয়ে দিন যাপন করছে। দীর্ঘদিন থেকেই হতাশা কাজ করছে। শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশে প্রভূত উন্নতি হয়েছে, সন্দেহ নেই। এত উন্নয়নের পরও মানুষের হতাশা কাটছে না। এর মূল কারণ হচ্ছে, অর্থনৈতিক সীমাহীন বৈষম্য এবং রাজনৈতিক অস্থিতিশীলতা। একশ্রেণি নানাভাবে প্রচুর অর্থবিত্তের মালিক হচ্ছে, অন্য একটি শ্রেণি নিঃস্ব হচ্ছে। খেটে খাওয়া মেহনতি শ্রমিকরাও ভালো আছে। কিন্তু মধ্যবিত্ত, নিম্নমধ্যবিত্ত মানুষগুলো বড় অসহায়। মধ্যবিত্ত ছাড়া একটা দেশের কাঠামো পূর্ণাঙ্গ হয় না। শিক্ষিত বেকারের সংখ্যা দিন দিন বেড়েই চলেছে। এ থেকে উত্তরণের জন্য কর্মসূচি গ্রহণ করা আবশ্যক।

যে কথা দিয়ে শুরু করছিলাম, পদ্মা সেতু হয়ে যাবে এটা বিরাট অর্জন। এই অর্জনের পাশাপাশি পদ্মার জলসহ দেশের সব নদ-নদীর জলেরও যেন উন্নতি ঘটে। উন্নত বিশ্বে যে কোনো দেশ তার পরিবেশ রক্ষায় তৎপর থাকে। আমাদের উল্টোচিত্র। পার্শ্ববর্তী ভারতে ব্যক্তিমালিকাধীন জলাশয়ও বন্ধ করতে পারে না। ভারতে গঙ্গার দুপারে অসংখ্য শিল্পকারখানা গড়ে উঠলেও নদীর পানি স্বচ্ছ রয়েছে এবং নাব্যও অক্ষুণœ রয়েছে। অথচ বাংলাদেশে প্রাকৃতিক নদী নষ্ট করে দেওয়া হচ্ছে। আজ হিসাব কষতে হবে, নদ-নদী ভরাট করে শিল্প বানিয়ে কতটা লাভ হয়েছে আর ভরাট না করে নদীর নাব্য রক্ষা করে কতটা লাভ হতো। পুঙ্খানুভাবে হিসাব করলে দেখা যাবে নদ-নদীর প্রবাহ ঠিক রেখে এবং নাব্য রক্ষায় কর্মসূচি গ্রহণ করলে তাতে অনেক বেশি লাভ হতো। পরিবেশ, কৃষি এবং ভূমি সংস্কারের ব্যাপক উন্নতি ঘটত। যে উন্নয়ন হতো চোখে পড়ার মতো। কাজেই সেতু স্থাপনা যা কিছুই করা হোক, নদী জলাশয় রক্ষা করে করতে হবে। অন্যথায় এমন উন্নয়নের কোনো গুরুত্বই থাকবে না। কাজেই নদী বাঁচাতে সম্মিলিত উদ্যোগ নিতে হবে। তা না হলে আমাদের ভবিষ্যৎ অন্ধকারে নিমজ্জিত হবে।

ফনিন্দ্র সরকার : কলাম লেখক ও আন্তর্জাতিক বিশ্লেষক

phani.sarker@gmail.com

আমাদের সময়

Leave a Reply