সিরাজদীখানে দুই দিনব্যাপী সাধুসঙ্গের উদ্বোধন

‘ছেড়ে দে তোর হিংসাবৃত্তি, ওরে মানুষ দেখবি যদি ভগবান’ মানবতার এমন বাণী প্রচারের মাধ্যমেই শুক্রবার রাতে বাউলশিল্পীদের পদচারণায় মুখর হয়ে ওঠে ইছামতি নদীর তীর। ফকির লালন সাঁইয়ের জীবন, কর্ম ও মানবপ্রেমের বাণী পরিবেশন ছাড়াও বাংলার লোকসংস্কৃতিকে বিশ্বদরবারে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার লক্ষ্যে শুক্রবার বিকেল থেকে শুরু হয়েছে দুই দিনব্যাপী সাধুসঙ্গ। মুন্সীগঞ্জের সিরাজদীখানের দোসরপাড়া গ্রামের টেকেরহাটে ইছামতি নদীর তীরে পদ্মহেম ধামের উদ্যোগে লালন শাহ বটতলা আন্তর্জাতিক সাধুসংঘ সাঁইজির বাণীর মধ্য দিয়ে দুই দিনব্যাপী সাধুসঙ্গের আসর আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন কুষ্টিয়ার হেমাশ্রমের প্রতিষ্ঠাতা ও মুক্তিযোদ্ধা দরবেশ নহিরুদ্দিন ফকির।

এ বছর সাধুসঙ্গে অংশ নিয়েছেন বাউলশিল্পী সামছুল ফকির, মহরম শাহ, বুড়ি ফকিরানী, ফ্রান্সের দেবরা, রমিজ ফকির, হৃদয় শাহ প্রমুখ। এ সাধুসঙ্গে লালনজীবনী, সাধনাবিষয়ক বয়ান ও লালনগীতি পরিবেশন করতে উপস্থিত হয়েছেন কুষ্টিয়া, মেহেরপুর, ফরিদপুর, ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন অঞ্চলের লালন সাধক ও ভক্ত-অনুসারীরা।

পদ্মহেম ধাম লালন সাঁই বটতলার প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি কবির হোসেন বলেন, মানবতার বাহক লালন সাঁইজির আদর্শই আমাদের মূল শক্তি। ‘সত্য বল সুপথে চল, ওরে আমার মন’ লালন সাঁইজির এই বাণীর ওপর ভিত্তি করেই আশ্রম ও লালনগীতি বিদ্যালয় পরিচালিত হচ্ছে। গত ১৩ বছরের মতো আগামীতেও সাঁইজির কৃপায় এই সাধুসঙ্গ অব্যাহত থাকবে।

সমকাল
ছবিঃ সিহাব

Leave a Reply