মুন্সীগঞ্জে নাট্যোৎসবের সমাপ্তি, ৭ গুণীজন পেলেন সম্মাননা

মুন্সীগঞ্জ জেলা শিল্পকলা একাডেমিতে থিয়েটার সার্কেলের চার দিনব্যাপী আন্তর্জাতিক উৎসবমুখর নাট্যোৎসবের সমাপ্তি হয়েছে। এতে চতুর্থ দিন শনিবার সন্ধ্যায় ঢাকার নাট্যদল শব্দ নাট্যচর্চা চাম্পাবতী মঞ্চস্থ করেছে। সৈয়দ শামসুল হক রচিত নাটকটির নির্দেশনা দেন খোরশেদ আলম বাবু।

এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক ও মুন্সীগঞ্জ-৩ আসনের সংসদ সদস্য এড. মৃণাল কান্তি দাস। এ সময় মুন্সীগঞ্জ থিয়েটার সার্কেলের সহ-সভাপতি মোজাম্মেল হোসেন সজলের সভাপতিত্বে অন্যদের মধ্যে অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন নাট্যকার আ.ক.ম গিয়াসউদ্দিন আহমেদ, নারী নেত্রী কমরেড হামিদা খাতুন, মুন্সীগঞ্জ প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক ভবতোষ চৌধুরী নুপুর, থিয়েটার সার্কেলের সভাপতি মো. শিশির রহমান, সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের সাধারণ সম্পাদক সাব্বির হোসাইন জাকির প্রমুখ। এ সময় সাংস্কৃতিক অঙ্গনে বিশেষ অবদান রাখায় ৭ সাংস্কৃতিক কর্মীকে আজীবন ও গুণীজন সম্মাননা প্রদান করা হয়।

এতে মুন্সীগঞ্জ সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের সভাপতি মতিউল ইসলাম হিরু, সঙ্গীত একাডেমি সভাপতি অভিজিৎ দাস ববি ও নাট্য অভিনেতা মো. নাসিমকে আজীবন সম্মাননা দেয়া হয়। এছাড়াও নাট্যকার জাহাঙ্গীর আলম ঢালী, মুন্সীগঞ্জ থিয়েটারের সভাপতি হুমায়ূন ফরিদ, অনিয়মিত সাহিত্য ও সাংস্কৃতিক গোষ্ঠির সভাপতি এড. সুজন হায়দার জনি ও নাট্যকর্মী প্রদীপ দাসকে গুণীজন সম্মননা প্রদান করা হয়। অনুষ্ঠানের সঞ্চালনা করেন জিতু রায়।

বেঁদে সম্প্রদায়ের বিভিন্ন জীবন চিত্র চম্পাবতী নাটকে ফুটে উঠে। প্রদান অতিথির বক্তব্যে সংসদ সদস্য মৃণাল কান্তি দাস বলেন, নাটক জীবনের দর্পণ। সমাজ পরিবর্তনে নাটকের অনন্য ভূমিকা রয়েছে। দেশজ সংস্কৃতি চর্চার মাধ্যমে আমাদের এগিয়ে যেতে হবে।

পরিবর্তন

Leave a Reply