২৭৬ শিক্ষার্থীর পাঠদানে ১ জন শিক্ষিকা!

মুন্সীগঞ্জের শ্রীনগরে একটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে একমাত্র শিক্ষিকা দিয়ে ‍বুধবার শিক্ষার্থীদের পাঠদান করতে দেখা গেছে। ওই বিদ্যালয়ের ২৭৬ জন শিক্ষার্থীর পাঠদানে ব্যস্ত সময় কাটাতে দেখা গেছে ওই একজন শিক্ষিকাকে।

বুধবার জেলার শ্রীনগর উপজেলার ষোলঘর ইউনিয়নের খৈয়াগাঁও সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের এ চিত্র মিলেছে।

বিদ্যালয়টিতে ৫ জন শিক্ষক নিয়োগ থাকলেও ১ জন রয়েছেন গর্ভকালীন ছুটিতে। ৩ জন রয়েছেন প্রশিক্ষণে। আর বাকী আরেকজন শিক্ষক জয়নাল আবেদনী দীর্ঘ ১ বছর ধরে বিদ্যালয়েই আসছেন না।

এ অবস্থায় বুধবার বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের পাঠদান করেন কেয়ট খালী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষিকা ইসরাত জাহান। তিনি একাই ১৪৬ জন বালক ও ১৩০ জন বালিকা শিক্ষার্থীর পাঠদান করেন বুধবার। এতে তাকে বেশ হিমশিম খেতে হয়েছে।

জানা যায়, খৈয়াগাঁও সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ২৭৬ জন শিক্ষার্থীর জন্য রয়েছেন ৫ জন শিক্ষক। এদের মধ্যে প্রধান শিক্ষক হুমায়ুন কবীর, সহকারী শিক্ষিকা সাদিয়া আরফিন ও জয়নব দুলালী প্রশিক্ষনে রয়েছেন। অপর শিক্ষিকা সিলভিয়া মমতাজ গর্ভকালীন ছুটিতে রয়েছে। আর শিক্ষক জয়নাল আবেদীন প্রায় এক বছর ধরে বিদ্যালয়ে আসছেন না।

দীর্ঘ দিন বিদ্যালয়ে অনুপস্থিত থাকার কারণে বিদ্যালয়ের পাঠদানে বিশৃঙ্খলা সৃষ্ট ও ১৯৭৯ সালের কর্মচারী শৃঙ্খলা আচরণ বিধির পরিপন্থি হওয়ার কারণে গত ২০১৭ সালের ১১ সেপ্টেম্বর উপজেলা শিক্ষা অফিস থেকে ৪২৩ নং স্মারকে একটি নোটিশ পাঠায়। পরবর্তীতে ২০১৮ সনের ৫ এপ্রিল আরেকটি নোটিশ পাঠানো হলেও তিনি বিদ্যালয়ে যোগদান করেননি।

বিদ্যালয়ের কয়েকজন অভিভাবক দু:খ প্রকাশ করে বলেন,আমরা কখনও দেখিনি একটি বিদ্যালয়ে ৫ জন শিক্ষকের মধ্যে সবাই অনুপস্থিত। তাছাড়া পার্শ্ববর্তী অপর আরেকটি বিদ্যালয়ের একজন শিক্ষিকা দিয়ে কিভাবে একটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীদের পাঠদান চলছে।

তাদের প্রশ্ন হচ্ছে উপজেলা শিক্ষা অফিসার কিভাবে একই সঙ্গে একটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ৩ শিক্ষক-শিক্ষিকাকে প্রশিক্ষণে পাঠালেন। এ ব্যাপারে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক হুমায়ুন কবীরের কাছে জানতে চাইলে তিনি এ সব কিছুর সত্যতা স্বীকার করেন।

বিডি২৪লাইভ/এমকে

Leave a Reply