শাহজাহান বাচ্চু হত্যা, সন্দেহে জঙ্গিরাই

মুন্সিগঞ্জে প্রকাশক শাহজাহান বাচ্চু হত্যাকাণ্ডে জঙ্গিদেরই সন্দেহ করছেন তাঁর স্বজন, গ্রামবাসী ও পুলিশ। গতকাল সোমবার সন্ধ্যায় মুন্সিগঞ্জের সিরাজদিখান উপজেলার কাকলদি গ্রামে আড্ডা দেওয়ার সময় শাহজাহান বাচ্চুকে গুলি করে হত্যা করা হয়। তিনি মুন্সিগঞ্জ জেলা কমিউনিস্ট পার্টির সাবেক সাধারণ সম্পাদক। বিশাখা প্রকাশনী নামে যে প্রকাশনা সংস্থা চালাতেন, সেখান থেকে অন্তত ৬০০ কবিতার বই বের করেছেন। ফেসবুকে লিখে তিনি নিজের মতাদর্শ প্রকাশ করতেন।

নিহত বাচ্চুর গ্রামের লোকজন বলছেন, তিনি সব সময়ই আতঙ্কে থাকতেন। গ্রামের তরুণদের সঙ্গে প্রচুর আড্ডা দিতেন। সেসব আড্ডায় তিনি নিজের আতঙ্কের কথা প্রকাশ করতেন। তাঁর আড্ডার দলে গ্রামের বেশির ভাগই শিক্ষিত তরুণেরাই ছিলেন। তাঁদের তিনি ফেসবুকের পোস্ট পড়ে শোনাতেন। তবে হুমকি-ধমকি আসত, বিতর্ক তৈরি হতো বলে গ্রামের কেউ সেসব পোস্টে লাইক বা মন্তব্য করতেন না।

নিহত বাচ্চুর মেয়ে দুর্বা জাহান প্রথম আলোকে বলেন, তাঁর বাবার সঙ্গে কারও ভূসম্পত্তি, ব্যবসা বা ব্যক্তিগত কোনো বিরোধ ছিল না। আগে তিনি বিশাখা প্রকাশনীর ব্যবসা চালালেও কয়েক বছর আগে প্রকাশনীর ব্যবসাটি তাঁকে (দুর্বা) দিয়ে দেন। গ্রামে খুব সাদামাটা জীবন যাপন করতেন। বাংলা বাজারে তাঁর বিশাখা প্রকাশনীর অফিসের একটি অংশ ভাড়া দিয়ে যে আয় হতো, মূলত তা দিয়েই তিনি চলতেন। পঞ্চগড়ে তিনি একটি বাড়ি করেছিলেন। গত বছর সেটিও বিক্রি করে দেওয়া হয়। তাঁর সঙ্গে মতাদর্শ ছাড়া অন্য কোনো কিছু নিয়ে কারও বিরোধের কোনো কারণ নেই।

গ্রামবাসী বলেন, তিনি অনেকটা অবসরজীবন যাপন করতেন। বৈষয়িক বিষয় নিয়ে তেমন মাথা ঘামাতেন না। আগে মাঝেমধ্যে পঞ্চগড়ে দ্বিতীয় স্ত্রীর গ্রামে গিয়ে থাকতেন। সেখানে তিনি নিজের মতো করে একটি আশ্রম গড়ার চেষ্টা চালিয়েছিলেন। পরে আবারও সিরাজদিখানে কাকালদি গ্রামে ফেরেন। পড়াশোনা, আড্ডা, লেখালেখি—এসব নিয়েই থাকতেন। আগে সিরাজদিখান থেকে বাংলাবাজার গিয়ে প্রকাশনীর ব্যবসা দেখভাল করতেন। ২০১৫ থেকে ভয়ে তা–ও বাদ দেন। নিজের বাড়ি, ইছাপুরা বাজারের জয়ন্ত ঘোষের মিষ্টির দোকান, পূর্ব কাকালদি মোড়ে আনোয়ার হোসেনের ওষুধের দোকান বা এসব বাজারে আরও কিছু দোকানের মধ্যেই সীমিত ছিল তাঁর আনাগোনা।

স্বজন ও গ্রামবাসী বলছেন, সম্প্রতি আনোয়ারের দোকানে আড্ডা দেওয়াও কমিয়ে দিয়েছিলেন বাচ্চু। তিনি থাকলে বেচা-বিক্রি কম হতো দোকান মালিকের এমন অনুযোগের পরে আনোয়ার হোসেনের দোকানে যাওয়া কমিয়ে দিয়েছিলেন। সোমবার সন্ধ্যায় তিনি নিজেই ফোন করে কাকলদী মোড়ে আনোয়ার হোসেনের ওষুধের দোকানে আড্ডা দিতে যান। সেখানেই তিনি হত্যার শিকার হন।

ঢাকা-মাওয়া মহাসড়ক থেকে প্রায় ১৫ কিলোমিটার দূরত্বের মধ্যে কাকলদী মোড়। রাস্তার দুই পাশে ২০টির মতো টিন-কাঠ-বাঁশের টং দোকান। যার বেশির ভাগই বন্ধ পড়ে রয়েছে। ওই মোড়ে তিনটি রাস্তা এসে মিলেছে। এখান থেকে মুন্সিগঞ্জ, নিমতলি (মাওয়া মহাসড়ক) ও ইছাপুরার দিকে চলে গেছে পাকা সড়কটি।

প্রত্যক্ষদর্শীরা বলছেন, সন্ধ্যা সাড়ে ছয়টার দিকে আনোয়ারের দোকানে বসে চা পান করেন শাহজাহান বাচ্চু। চা খাওয়ান দোকান মালিক আনোয়ার হোসেন। কথা ছিল শাহজাহান বাচ্চু সিগারেট খাওয়াবেন। সেইমতো চা পান শেষে সিগারেট কিনতে পাশের নাহিদের দোকানের সামনে যাওয়া মাত্রই হেলমেট পরা দুই আততায়ী তাঁর বুকে অস্ত্র ঠেকিয়ে গুলি করে। এরপর তারা পরপর দুটি বোমা ফাটিয়ে দুটি মোটরসাইকেলে করে নিমতলির দিকে চলে যান।

কাকলদি মোড়ে গ্রামের তরুণদের ক্যারম খেলার আড্ডা বসে। ক্যারমবোর্ড ঘিরে সব সময়ই ২০-২৫ জনের ভিড় থাকে। গত সোমবারও এ রকম ভিড় ছিল। তাঁরা ধারণা করছেন, ক্যারমের আড্ডায় থাকা তরুণদের ভয় দেখাতেই পরপর দুটি বোমার বিস্ফোরণ ঘটায় হামলাকারীরা।

সন্দেহে জঙ্গিরাই
শাহজাহান বাচ্চুর ঘনিষ্ঠরা বলছেন, ২০১৫ সালে যখন একের পর এক ব্লগার হত্যা করা হচ্ছিল, তখন তিনি প্রচুর হুমকি-ধমকি পেতেন। নিরাপদ থাকতে বেশ কিছুদিন নিজ বাড়ির বাইরেই ছিলেন। পরে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর টানা অভিযানে কিছুটা আশ্বস্ত হয়ে আবারও স্বাভাবিক জীবনযাপন শুরু করেন তিনি। লিখতেন নিয়মিত, আড্ডা দিতেন, বক্তৃতাও করতেন।

তিন বছর আগে দেশে একের পর এক ব্লগার, প্রকাশক ও মুক্তবুদ্ধির লেখকদের ওপর হামলার যে ঘটনা ঘটেছিল, তার সঙ্গে এ ঘটনার মিল দেখছেন ঢাকার পুলিশ কর্মকর্তারা। তাঁরা বলছেন, আনসারুল্লাহ বা সমমতাদর্শের কেউ এ হত্যাকাণ্ডে জড়িত হতে পারে।

২০১৩ সালে ১৫ ফেব্রুয়ারি খুন হন ব্লগার আহমেদ রাজীব হায়দার। শাহবাগের গণজাগরণ মঞ্চে তখন গণজোয়ার। এ হত্যার মধ্য দিয়ে প্রথম জানাজানি হয় সালাফি মতাদর্শের আনসারুল্লাহ বাংলা টিম (এবিটি) বা আনসার আল ইসলাম নামের সংগঠনের কথা। এরপর পর দীর্ঘ বিরতি দিয়ে ২০১৫ সালে আবার হত্যাকাণ্ড শুরু করে আনসারুল্লাহ। আনসারুল্লাহ বা আনসার আল ইসলাম এ পর্যন্ত ১৩ জনকে হত্যার দায় স্বীকার করেছে। এঁদের বেশির ভাগই ব্লগার। এর বাইরে রয়েছেন প্রকাশক, শিক্ষক ও সমকামীদের অধিকারকর্মী।

নিহত ব্যক্তির দ্বিতীয় স্ত্রী আফসানা জাহান বলেন, তিনি অনেক দিন ধরেই বিশেষ কিছু করতেন না। সম্প্রতি ‘আমাদের বিক্রমপুর’ নামে একটি সাপ্তাহিক পত্রিকা বের করার চেষ্টা করছিলেন। তিনি দীর্ঘদিন থেকেই যেকোনো সময় হত্যার শিকার হতে পারেন—এমন আশঙ্কার কথা বলতেন। ফোনে ফেসবুকে হুমকি পেতেন। তবে কখনো পুলিশের দ্বারস্থ হননি। মাঝেমধ্যেই ভারতে বন্ধুদের কাছে যেতেন। কখনো ভারতে থেকে যাওয়ার কথাও বলতেন। ফেসবুকে লেখালেখির কারণেই তিনি নানা হুমকি পেতেন বলে ভাবতেন। আফসানা বলেন, ‘মৌলবাদী কোনো গোষ্ঠীই তাঁকে হত্যা করেছে।’

মুন্সিগঞ্জের পুলিশ সুপার (এসপি) জায়েদুল ইসলাম প্রথম আলোকে বলেন, তাঁর ফেসবুকের পোস্টগুলো ঘেঁটে দেখা হচ্ছে। তাঁর ব্যক্তিগত কোনো বিরোধের খবর জানা যায়নি। তবে পারিবারিক কিছু বিরোধ রয়েছে। সব কটি বিষয়ই খতিয়ে দেখা হচ্ছে। কোনোটিই এখনো নিশ্চিত নয়।

তবে ঢাকা মহানগর পুলিশের কাউন্টার টেররিজম ইউনিটের একজন দায়িত্বশীল কর্মকর্তা প্রথম আলোকে বলেন, তাঁর লেখালেখির ধরন বা প্রোফাইল থেকে ধারণা করা যায়, আনসারুল্লাহ বাংলা টিমের বা আনসার আল ইসলামের টার্গেট হতে পারেন তিনি। তবে আনসারুল্লাহ জঙ্গিরা সাধারণত হত্যার ক্ষেত্রে ধারালো অস্ত্র ব্যবহার করে। হামলায় আগ্নেয়াস্ত্রের ব্যবহার ও ব্যবহৃত হাতে তৈরি গ্রেনেডের (আইইডি) ধরন দেখে মনে হচ্ছে এটা জেএমবির (পুরোনো) কাজ। পুরো বিষয়টি নিয়ে এখনো ধন্দে রয়েছেন তাঁরা। তবে এটাকে জঙ্গিদের কাজ বলেই ভাবছেন তাঁরা।

গোলাম মর্তুজা, সিরাজদিখান থেকে
প্রথম আলো

Leave a Reply