পর্যটনের অপার সম্ভাবনা কীর্তিমানদের মুন্সীগঞ্জ

মোজাম্মেল হোসেন সজল: পর্যটনের এক অপার সম্ভাবনার জেলা মুন্সীগঞ্জ। আলুর পরিবর্তে মুন্সীগঞ্জবাসীর দাবি পর্যটনের ব্র্যাংন্ডি জেলা করা যেতে পারে। কেননা আলু এখন বাংলাদেশের অধিকাংশ জেলায়ই হয়ে থাকে।

এই জেলার কৃষকেরা লোকসান ছাড়া কোন আলুতে লাভবান হচ্ছে না। তাই পর্যটনের ব্র্যাংন্ডি জেলা করার দাবি উঠেছে এই জেলার ইতিহাস-ঐতিহ্য ও কীর্তিমানদের স্মৃতি ধরে রাখার জন্য। কেননা ইতিহাস, ঐতিহ্য আর বহু কীর্তিমান মনীষীর স্মৃতিধন্য জেলা মুন্সীগঞ্জ। উপমহাদেশে আজকের মুন্সীগঞ্জ তথা তৎকালীন বিক্রমপুর হাজার বছরের গৌরবময় এক সমৃদ্ধ জনপদের নাম। এ জেলার প্রাচীন নিদর্শন সমূহের সাথে জড়িয়ে রয়েছে হাজারো গৌরব গাঁথা, সুখ-দু:খের নানা উপাখ্যান। শিক্ষা, শিল্প, ব্যবসা-বাণিজ্য, সাহিত্য, সংগীত, নাটক, নৃত্য, আবৃত্তি-সংস্কৃতির সব শাখায় সমৃদ্ধ এই মুন্সীগঞ্জ।

এ জেলা সুপ্রাচীন চন্দ্ররাজাদের তাম্রশাসনের অঞ্জলি থেকে শুরু করে বর্ম, পাল, সেন, মুঘল ও বার ভূঁইয়াদের কীর্তিতে সমুজ্জ্বল হয়ে একটি স্বাধীন বঙ্গ রাজ্যের রাজধানী বিক্রমপুরের কীর্তিময় অংশ। বাংলাদেশের জাতীয় অর্থনীতিকে গতিশীল রাখতে এ জেলা পালন করছে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা। ১৮৪৫ সালের মে মাসে ব্রিটিশ সরকার মহকুমা হিসেবে মুন্সীগঞ্জকে উন্নীত করেন। এর আগে মুন্সীগঞ্জ মুঘলদের একটি থানা ছিলো। ১৯৮৪ সালের ১লা মার্চ মুন্সীগঞ্জকে জেলায় উন্নীত করেন তৎকালীন সরকার। মুন্সীগঞ্জ জেলার প্রাচীন নাম বিক্রমপুর। আর রামপাল ছিলো বঙ্গসমতটের রাজধানী শহর। বিস্তারিত আমাদের মুন্সীগঞ্জ প্রতিনিধি মোজাম্মেল হোসেন সজলের রিপোর্ট ও ভিডিও চিত্রে

পদ্মা, মেঘনা, ধলেশ্বরী ও ইছামতি নদী বেষ্ঠিত মুন্সীগঞ্জ জেলার আয়তন ৯৫৪ দশমিক ৯৬ বর্গকিলোমিটার। ঢাকার খুব কাছের জেলা মুন্সীগঞ্জ। যোগাযোগ ব্যবস্থাও খুব উন্নত। মেঘনা নদী জেলার গজারিয়া উপজেলাকে বিচ্ছিন্ন করে রেখেছে। গজারিয়া উপজেলা বাদে জেলার বাকি ৫টি উপজেলার পিচঢালা পথ পেরিয়ে মুন্সীগঞ্জের প্রত্নতত্ত্ব ও ঐতিহ্যবাহী স্পটে গাড়ি নিয়ে যাওয়া যায়। স্পষ্টগুলো রাস্তার পাশেই বিদ্যমান।

দিনে এসে দিনেই ঢাকায় ফেরা যায়। কিন্তু প্রয়োজনীয় রক্ষণাবেক্ষন ও সংরক্ষণের অভাবে প্রাচীন নিদর্শনগুলো হারিয়ে যেতে বসেছে। পর্যটনও বাড়ানো যাচ্ছে না।

প্রখ্যাত ও বিশিষ্ট ব্যক্তিত্ব বৌদ্ধ ধর্মের অন্যতম শ্রেষ্ঠ পুরুষ অতীশ দীপঙ্কর, উদ্ভিদ বিজ্ঞানী স্যার জগদীশ চন্দ্র বসু, সর্বভারতীয় নেতা হিসেবে স্বীকৃতি অর্জনকারী দেশবন্ধু চিত্তরঞ্জন দাস, ভারত উপমহাদেশের সবচেয়ে জনপ্রিয় ও প্রভাবশালী মহিলা নেতা স্বর্ণ গর্ভা সরোজিনী নাইডু, প্রগতিশীল রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব ও ‘বাংলাদেশ উদীচী শিল্পীগোষ্ঠী’র প্রতিষ্ঠাতা সত্যেন সেন, ব্রিটিশ বিরোধী আন্দোলনে পুরোধা জিতেন ঘোষ, সাহিত্যিক মানিক বন্দোপাধ্যায়, তিরিশ দশকের অন্যতম সেরা কবি বুদ্ধদেব বসু, অঙ্কশাস্ত্রবিদ পন্ডিত সোমেশ বসু, বাংলা সাহিত্যের অন্যতম সেরা ছোটগল্পকার ও ঔপন্যাসিক সমরেশ বসু, ভারতীয় উপমহাদেশের প্রথম বিচারপতি স্যার চন্দ্রমাধব ঘোষ, ঢাকা যাদুঘরের প্রতিষ্ঠাতা ড. নলিনীকান্ত ভট্রশালী, মুন্সীগঞ্জ সরকারি হরগঙ্গা কলেজের প্রতিষ্ঠাতা আশুতোষ গাঙ্গুলী, সাংবাদিক-সাহিত্যিক ছড়াকার ফয়েজ আহমদ, ইংলিশ চ্যানেল বিজয়ী সাতারু ব্রজেন দাস, সাতারু মোশারফ হোসেন, শিশু সাহিত্যিক নাসির আলী, ভারতের জনপ্রিয় কৌতুক অভিনেতা ভানু বন্দোপাধ্যায়, তার প্রকৃত নাম সাম্যময়। সঙ্গীত পরিচালক আলাউদ্দিন আলী, চলচিত্র পরিচালক চাষি নজরুল ইসলাম, আলমগীর কুমকুম, শফি বিক্রমপুরী, কৌতুক অভিনেতা টেলিসামাদ, চিত্রশিল্পী আবদুল হাই, কথাসাহিত্যিক ড. হুমায়ূন আজাদ, শিশু সাহিত্যিক এনায়েত রসুল, কথাসাহিত্যিক ইমদাদুল হক মিলন, কথা সাহিত্যিক রাবেয়া খাতুন, শিক্ষাবিদ ড. সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী, ভারতীয় উপমহাদেশের ফায়ার বিগ্রেডের প্রতিষ্ঠাতা সিদ্দিকুর রহমান, সাবেক রাস্ট্রপতি অধ্যাপক ড. বদরুদ্দোজা চৌধুরী, সাবেক রাষ্ট্রপতি প্রফেসর ড. ইয়াজউদ্দিন আহম্মেদ, সাবেক উপ-প্রধানমন্ত্রী শাহ মোয়াজ্জেম হোসেন, কলামনিস্ট রাজনীতিক নূহ-উল-আলম লেনিন,বিবিসির সাংবাদিক শহীদ নিজামউদ্দিন আহমদ, তত্বাবধায়ক সরকারের সাবেক উপদেষ্ঠা ও ইন্ডিপেন্ডডেন্ট পত্রিকার সম্পাদক প্রয়াত মাহবুবুল আলম, জনকণ্ঠ সম্পাদক আতিকউল্লাহ খান মাসুদ, নিউ এজ সম্পাদক নুরুল কবীর, পপ সঙ্গীত শিল্পী ফেরদৌস ওয়াহিদসহ বহু কীর্তিমান ও বিশিষ্টজনের জন্ম এই মুন্সীগঞ্জে।

ইদ্রাকপুর দুর্গ

মুঘল স্থাপত্যের অনন্য স্বাক্ষী ইদ্রাকপুর কেল্লা বা ইদ্রাকপুর দুর্গ। মুন্সীগঞ্জ শহরের প্রাণকেন্দ্র কোর্টগাঁও গ্রামে দুর্গটির অবস্থান। দুর্গটি মীর জুমলা ১৬৫৮-১৬৬০ সালে নির্মাণ করেন। তখন মুঘল সম্রাট ছিলেন আওরঙ্গ জেব আলমগীর। টপোগ্রাফি অফ ঢাকাতে টেইলর সাহেব ও ঢাকা জেলার রির্পোটে মিষ্টার ক্লে দুর্গটিকে ইদ্রাকপুর দুর্গ হিসেবে লিখেছেন। দুর্গটি দৈর্ঘ্যে ২৪০ ফুট ও প্রস্থে ২১০ ফুট আয়তনের। মাটি থেকে ৩০ ফুট উচু একটি ড্রাম আকৃতির গোলাকার মঞ্চকে কেন্দ্র করে দুর্গটির বিস্তৃতি। দুর্গের প্রবেশের মূল ফটক উত্তর দিকে। প্রাচীর দেয়াল ২ থেকে ৩ ফুট চওড়া। দুর্গের প্রাচীর শাপলা পাপড়ির মতো। প্রতিটি পাপড়িতে একটি করে ছিদ্র। ছিদ্র দিয়ে কামান ব্যবহার করা হতো। দুর্গের উত্তর কোনে বিশালকার প্রবেশদ্বার রয়েছে। সিড়ি দিয়ে মূল দুর্গের চূড়ায় উঠা যায়। চারকোনে ৪টি সশস্ত্র প্রহরী মঞ্চ। উত্তর ও দক্ষিণ প্রাচীরের মাঝে আরও একটি করে ২টি প্রহরী মঞ্চ রয়েছে। মূল দুর্গটি ভূমি থেকে ২০ ফুট উঁচু। দেয়ালের বর্তমান উচ্চতা ৪-৫ ফুট। দুর্গের প্রবেশদ্বারের উত্তর পাশে একটি গুপ্ত পথ রয়েছে। কথিত আছে, এই গুপ্ত পথ দিয়ে ঢাকার লালবাগ কেল্লায় যাওয়া যেতো। অবশ্য এর সত্যতা পাওয়া যায়নি। তবে, গুপ্তপথ দিয়ে অন্য কোথাও যাওয়া যেতো এতে কোন সন্দেহ নেই। এ দুর্গ থেকে আবদুল্লাহপুর ও আসামে যুদ্ধ প্রেরিত হয়েছিলো।

এক সময় ইদ্রাপুর দুর্গে মহকুমা প্রশাসনের বাস ভবন (১৮৪৫-১৯৮৪)ছিল। ১৯৮৪-৮৯ পর্যন্ত জেলা প্রশাসকসহ গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিদের বাসভবন ছিল। পরবর্তীতে এটা সাংস্কৃতিক মন্ত্রণালয়ের পুরাতত্ত¡ বিভাগরে আওতাভুক্ত হয়। বর্তমানে দুর্গটি পর্যটকদের জন্য খুলে দেয়া হয়েছে। সপ্তাহের রোববার বন্ধ ও সোমবার দুপুর ২টা থেকে বিকেল ৫টা পর্যন্তসহ প্রতিদিন সকাল ৯টা থেকে বিকেল ৫টা পর্যন্ত পর্যটকদের জন্য দুর্গটি উম্মুক্ত থাকে। কোন প্রবেশ ফি নেয়া হয়না।

এদিকে, ঐতিহ্যবাহি ইদ্রাকপুর দুর্গটি সংরক্ষনের জন্য উন্নয়নমূলক কাজ চলছে। এ কাজের সময় ২০১৫ সালের ১২ ই মে দুর্গের উপরে শত শত কলস পাওয়া যায়। এ খবর পেয়ে সে সময় প্রত্নতত্ত্ব অধিদপ্তরের ঢাকা বিভাগের তিন কর্মকর্তাসহ স্কুল-কলেজসহ স্থানীয় শত শত লোক ইদ্রাকপুর দুর্গে ছুটে আসেন।

সে সময় প্রত্নতাত্ত্বিক বিভাগের সহকারী পরিচালক মো. মাহাবুব উল আলম সাংবাদিকদের প্রেস ব্রিফিং করে জানান, শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত করতে সারিবদ্ধভাবে কলস রেখে কুঠির-এর ফ্লোর নির্মাণ করা হয়েছিল। বর্তমানে দুর্গের খনন কাজ চলছে।

ইদ্রাকপুর দুর্গের প্রবেশ পথেই রয়েছে পুরাতন জেলখানা। অর্থাৎ ইদ্রাকপুর দুর্গের ভেতরেই পুরাতন জেলা কারাগারটি রয়েছে। এ কারাগারটি ভেতরে মুন্সীগঞ্জ যাদুঘর করা প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। এ লক্ষ্যে কারাগারটির সংস্কার কাজ চলছে। কিন্তু কাজের কোন গতি নেই। সংস্কার কাজের জন্য প্রস্তাবিত যাদুঘরটির প্রধান ফটকে তালা ঝুঁলিয়ে রাখা হচ্ছে। ঐতিহাসিক ইদ্রাকপুর দুর্গটি সংস্কার ও সৌন্দর্যবর্ধনের কোন অগ্রগতি নেই।

বারো আউলিয়ার মাজার : মুন্সীগঞ্জ সদর উপজেলার মহাকালী ইউনিয়নের কেওয়ার গ্রামে সারিবদ্ধভাবে ১২টি মাজার রয়েছে। সুদূর আরব থেকে ৪২১ হিজরি মোতাবেক ৯৭৪ খ্রিস্টাব্দে ইসলাম প্রচারের জন্য মুন্সীগঞ্জে চলে আসেন ১২জন আউলিয়া। ১৯৭৮ সালে একটি মাজার সংস্কারের সময় একটি আরবি শিলালিপি পাওয়া যায়। এ লিপিতে ১২ জন অলির নাম ও কালেমা তায়্যিবা মসজিদ ও দিঘীর বিবরণ পাওয়া যায়।

অতীশ দীপঙ্কর

শ্রী জ্ঞান অতীশ দীপঙ্কর ৯৮০ মতান্তরে ৯৮২ খ্রিস্টাব্দে মুন্সীগঞ্জ সদর উপজেলার বজ্রযোগিনী গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। অতীশ দীপঙ্কর ছিলেন, একজন প্রখ্যাত বৌদ্ধ ধর্মীয় পন্ডিত-যিনি পাল সা¤্রাজ্যের আমলে একজন বৌদ্ধ ভিক্ষু এবং বৌদ্ধধর্মপ্রচারক ছিলেন। বজ্রযোগিনীতে ৫২ ফুট উঁচু একটি স্মৃতিফলক নির্মাণ করা হয়েছে। পাশেই রয়েছে ২১ ফুট কোনাকৃতির প্রাচীন স্মৃতি মন্দির। পাশাপাশি স্মৃতিফলকের খুব কাছেই নির্মাণ করা হয়েছে অতীশ দীপঙ্কর পাবলিক অডিটরিয়াম।

রাজা বল্লাল সেনের দিঘী

মুন্সীগঞ্জ সদর উপজেলার রামপাল ইউনিয়নের রামপাল কলেজের পাশে রয়েছে রাজা বল্লাল সেনের দিঘী। রাজা বল্লাল সেন ১১৫৯ থেকে ১১৬০ খ্রিস্টাব্দে দিঘীটি খনন করেন।

সুখবাসপুর দিঘী

রামপাল ইউনিয়নের সুখবাসপুর গ্রামে ৯০০ থেকে ৯৬০ খ্রিস্টাব্দে বর্ম রাজাদের প্রথম রাজা শ্যামল বর্মার রাজত্বকালে সুখবাসপুর দিঘীটি খনন করা হয়। দিঘীর আয়তন দৈর্ঘ্য ৯০০ ফুট ও প্রস্থে ৫০০ ফুট। এই দিঘীর পূর্বপ্রান্তে বর্ম রাজাদের বাড়ি ছিলো।

রাজা হরিশ চন্দ্রের দিঘী

মুন্সীগঞ্জ সদর উপজেলার রামপাল ইউনিয়নের রঘুরামপুর গ্রামে ১০২৫ থেকে ১০২৬ খ্রিস্টাব্দে রাজা হরিশ চন্দ্রের রহস্যময় একটি দিঘী রয়েছে। কেউ কেউ এটাকে মাঘী পূর্ণিমার দিঘীও বলে থাকেন।

বাবা আদম মসজিদ ও মাজার

মুন্সীগঞ্জ সদর উপজেলার দরগাহ বাড়ি গ্রামে বাবা আদম শহীদ (রহ.) এর ৬ গম্বুজ বিশিষ্ট ঐতিহাসিক মসজিদ রয়েছে। মসজিদের নির্মাণ সাল ১৪৮৩ খ্রি:। এটি নির্মাণ করেছেন সুলতান জালালউদ্দিন আবু জাফর শাহের পুত্র মহান মালিক কাফুর শাহ। মসজিদটির আয়তন দৈর্ঘ্য ৪৩ ফুট ও প্রস্থে ৩৬ ফুট। মসজিদটি ৬ গম্বুজ বিশিষ্ট। স্থানীয়রা এখন এ মসজিদে নামাজ আদায় করে থাকেন। মসজিদের প্রবেশের পথেই রয়েছে হযরত বাবা আদম শহীদ (রহ.) এর মাজার। বাবা আদম শহীদ (রহ.) জন্ম আরবের তায়েফ নগরীতে। তিনি ইসলাম প্রচারে ১১৪২ খ্রিস্টাব্দে চট্রগ্রাম, ১১৫২ খ্রিস্টাব্দে মহাস্থানগড় হয়ে আগমন করেন মুন্সীগঞ্জে। ১১৭৩ সালে মুন্সীগঞ্জের রামপালের দরগাহ বাড়িতে খানকাহ নির্মাণ করে বসবাস শুরু করেন ও ইসলাম প্রচার করেন। ১১৭৮ খ্রিস্টাব্দে ১০-২০ সেপ্টেম্বর রাজা বল্লাল সেনের সাথে ধর্মযুদ্ধে কানাই চং ময়দানে তিনি নেতৃত্ব দেন। ১১৭৮ খ্রিস্টাব্দের ২০ সেপ্টেম্বর গভীররাতে বল্লাল সেন কর্তৃক নিজ খানকায় শাহাদাৎ বরণ করেন।

পুলঘাটা ইটের পুল

মিরকাদিম বন্দর-টঙ্গীবাড়ী উপজেলা সদরের খালের উপর ১৬৫৯ থেকে ১৬৬৩ সালের মধ্যে মীর জুমলা ইটের তৈরি এ পাকা পুলটি নির্মাণ করেন। এটি পুলঘাটা পুল নামে সবার কাছে পরিচিত। এটি মুন্সীগঞ্জ সদর উপজেলার রামপাল ইউনিয়নের পুলঘাটায় অবস্থিত।

হযরত মীর সাহেবের মসজিদ

মুন্সীগঞ্জ সদর উপজেলার মিরকাদিম পৌরসভার মিরাপাড়ায় তিন গম্বুজ বিশিষ্ট ঐতিহ্যবাহী মিরাপাড়া মসজিদ ও মাজারের অবস্থান। দৈর্ঘ্য ১৫২ ফুট ও প্রস্থে ১২৬ ফুট আয়তনের মসজিদটির নির্মাণ সাল ১৬৬০ থেকে ১৭০০ সালের মধ্যে। মসজিদের ভেতরের অংশের উত্তর কোনে হযরত মীর সাহেব (রহ.) এর মাজার রয়েছে। এখানে হাজার ভক্ত মানত করে থাকেন। এখানে পুরুষের চেয়ে মহিলা ভক্তদের আগমন বেশি। মহিলাদের জন্য এই মসজিদের নামাজের ব্যবস্থা রয়েছে। সপ্তাহের বৃহস্পতিবার আসর থেকে এশার নামাজ পেরিয়ে রাত ১০ টা পর্যন্ত এখানে দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়।

টেঙ্গর শাহী মসজিদ

মুন্সীগঞ্জ সদর উপজেলার মিরকাদিম পৌরসভার প্রাণ কেন্দ্রে অবস্থিত টেঙ্গর শাহী মসজিদের অবস্থান। ১৫৬৯ খ্রিস্টাব্দে সুলেমান খান কররানী এ মসজিদটি নির্মাণ করেন। এটির আয়তন দৈর্ঘ্য ৩৬ ফুট ও প্রস্থে ৩৬ ফুট। মিনারের উচ্চতা ৫০ ফুট।
বর্তমানে মুসল্লির সংখ্যা বেড়ে যাওয়ায় শাহী মসজিদের পুরনো নিদর্শন ঠিক রেখে পূর্বপ্রান্ত ঘেঁষে আধুনিক একটি মসজিদ তৈরি করা হয়েছে।

বৌদ্ধ বিহার

মুন্সীগঞ্জ সদর উপজেলার রামপাল ইউনিয়নের রঘুরামপুর গ্রামে ও টঙ্গীবাড়ী উপজেলার নাটেশ্বরে মাটির নিচে চাপা পড়ে থাকা হাজার বছরের পুরনো বৌদ্ধ বিহার রয়েছে। সম্প্রতি প্রত্নসম্পদ ও ঐতিহাসিক নিদর্শন উদ্ধারে চালানো খনন কাজের মাধ্যমে এ বৌদ্ধ বিহার আবিষ্কৃত হয়। এই বৌদ্ধ বিহার বর্ম রাজাদের আরও একটি কীর্তি।

বিনোদন কেন্দ্র

এ জেলার বিনোদন কেন্দ্রগুলোর মধ্যে রয়েছে পদ্মা নদী সংলগ্ন লৌহজং উপজেলায় পদ্মা ও মাওয়া রিসোর্ট। সিরাজদিখানে রয়েছে এমজে হলিডে রিাসোর্ট। ঢাকা-চট্রগাম মহাসড়কের পাশে গজারিয়ার বালুয়াকান্দিতে আছে মেঘনা ভিলেজ হলিডে রিসোর্ট। এসব বিনোদন কেন্দ্রে থাকা-খাওয়া ব্যবস্থার আছে। করা যায় পিকনিক ও সামাজিক অনুষ্ঠান। এরমধ্যে লৌহজংয়ে পদ্মা রিসোর্টটি পদ্মা নদী বেষ্ঠিত ও পদ্মার বিস্তৃত চরে হওয়ায় পর্যটকদের ভিড় লেগেই থাকে।

পদ্মা রিসোর্ট

মুন্সীগঞ্জের লৌহজং থানা সংলগ্ন পদ্মার বিস্তৃত চরজুড়ে প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের এক অপরূপ নিদর্শন পদ্মা রিসোর্ট।এ রিসোর্টে দিনদিন পর্যটন বাড়ছে। পদ্মা রিসোর্ট দেখলে মনে হবে চরে যেন সেন্টমার্টিন দ্বীপ জেগে আছে। সাড়ে তিনশ’ শতাংশ জমির বিশাল বিস্তৃত চরে প্রকৃতির এক অপার সৌন্দর্য নিয়ে পদ্মা রিসোর্টের কটেজগুলো (কুড়েঘর) নির্মাণ করা হয়েছে। নদীরপাড় সংলগ্ন পদ্মা নদীঘেরা চরের মধ্যে কুড়েঘর ও প্রাকৃতিক পরিবেশ পদ্মা রিসোর্টকে মনোমুগ্ধকর করে রেখেছে। লৌহজং থানা সংলগ্ন স্থান থেকে ট্রলারে বা স্পিডবোটে পদ্মার ছোট একটি নদী পাড়ি দিয়েই পদ্মা রিসোর্ট। রাতের বেলায় যারা চাঁদ দেখতে এবং ভোরের গ্রামীণ পরিবেশ দেখতে ভালোবাসেন তারা একবার ঢু মেরে আসতে পারেন ঢাকার কাছের এই রিসোর্ট থেকে।

এম জে হলিডে রিসোর্ট

জেলার সিরাজদিখান উপজেলার ইছাপুরা এলাকার গ্রামের পথ পেরিয়ে পশ্চিম ইছাপুরা গ্রামে সাড়ে ৮ একর বিশাল জমির উপর রয়েছে এম জে হলিডে রিসোর্ট। এই রিসোর্টটিও এক মনোমুগ্ধকর প্রাকৃতিক পরিবেশে আচ্ছন্ন। সুইমিং পুল, খেলার মাঠ, পুকুর, সংগীত পরিবেশনের মঞ্চ, নাটক-সিনেমার সুটিংসহ নানা ধরণের বিনোদনের ব্যবস্থা রয়েছে এই রিসোর্টটিতে। এখানে অবকাশ যাপনকারীদের জন্য রয়েছে এসি ও নন-এসি উভয় ধরণের কটেজ।

মাওয়া রিসোর্ট

জেলার লৌহজং উপজেলার মাওয়া সংলগ্ন কান্দিপাড়া গ্রামে রয়েছে ৬৫ বিঘা জমির উপর মাওয়া রিসোর্ট। বিশালাকার পুকুর আর গাছগাছালি ঘেরা এ রিসোর্টটি। এই রিসোর্টেও থাকা-খাওয়া, সভা-সমাবেশ, বনভোজনহ সব ধরণের ব্যবস্থা রয়েছে। ঢাকা থেকে ঢাকা-মাওয়া মহাসড়ক এবং ঢাকা-চট্রগাম মহাসড়ক হয়ে এক থেকে দেড়ঘন্টার মধ্যেই রিসোর্টগুলোতে আসা যায়। যারা কটেজে রাতে ও দিনে থাকতে চান তাদের আগেই বুকিং দিয়ে কনফার্ম করে আসতে হয়।

মেঘনা ভিলেজ হলিডে রিসোর্ট

মুন্সীগঞ্জ জেলার গজারিয়া উপজেলায় মেঘনা নদীর কোলঘেষে মেঘনা ব্রিজ থেকে ১ কিলোমিটার দূরত্বে এই রিসোর্টটি অবস্থিত। সম্পূর্ণ গ্রামীণ নিরিবিলি পরিবেশে এই রিসোর্টটি গড়ে তোলা হয়েছে। এখানে অবকাশ যাপনকারীদের জন্য রয়েছে এসি ও নন-এসি উভয় ধরণের কটেজ। এখানকার কটেজগুলো দেখতে অনেকটা নেপালি বাড়িঘরের মতো। পর্যটকদের জন্য এখানে রয়েছে সুবিশাল খেলার মাঠ, খেলাধুলার উপকরণ, সুস্বাদু ও উন্নতমানের খাবারের ব্যবস্থা। রাতের বেলায় যারা চাঁদ দেখতে ভালোবাসেন তারা একবার ঢু মেরে আসতে পারেন ঢাকার কাছের এই মেঘনা ভিলেজ থেকে।পর্যটকদের জন্য এই রিসোর্টে ছিপ-বরশি দিয়ে মাছ ধরার সু-ব্যবস্থা রয়েছে। অবশ্য সেজন্য বাড়তি টাকা গুণতে হবে।

বিক্রমপুর জাদুঘর

গত শতকের শুরুতে ভাগ্যকুলের জমিদার বাড়ি পদ্মায় বিলীন হওয়ার উপক্রম হলে যদুনাথ রায় ভাগ্যকুলের উত্তর দিকে বর্তমান বালাাশুর গ্রামে বসতবাড়ি নির্মাণ করেন। বিরাট পুষ্করিণী কাটিয়ে মাঠের মাঝে এক সুন্দর বাগান ঘেরা একই রকম দেখতে দুটি দ্বিতল সুরম্য প্রাসাদ বানিয়েছিলেন। ড. হুমায়ুন আজাদ যাকে বলেছেন, বিলের ধারের প্যারিশ শহর। যদুনাথ রায়ের পরিত্যাক্ত বিশাল বাড়ির সাড়ে তের একর জায়গায় গড়ে তোলা হয়েছে বিক্রমপুর জাদুঘর। অগ্রসর বিক্রমপুর ফান্ডেশন এর উদ্যেগে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের অর্থায়নে এই জাদুঘরটি নির্মিত হয়। ২০১০ সালের ৩০ শে মে বিক্রমপুর জাদুঘরের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন তৎকালীন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম।

প্রায় ১কোটি ১৫ লাখ টাকা ব্যয়ে নির্মাণ কারা হয়েছে। তিনতলা বিশিষ্ট প্রায় ৫৫০০ বর্গফুট আয়তনের জাদুঘরটি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা উদ্বোধন করেন। এরপর ২০১৪ সালের ২০শে জুন সাংস্কৃতিক বিষয়ক মন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর দ্বারোদঘাটন করেন। জাদুঘরটির কর্মাধ্যক্ষ হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন বিক্রমপুর বিষয়ক লেখক ও গবেষক অধ্যাপক মোহাম্মদ শাহজাহান মিয়া। পরবর্তীতে এখানে একটি গেস্টহাউজ স্থাপন করা হয়। বর্তমানে জাদুঘরটিতে ৫টি গ্যালারী প্রদর্শনের জন্য রয়েছে। আরো তিনটি গ্যালারী শিঘ্রই প্রদর্শনের জন্য উন্মুক্ত করা হবে। এখানে মুন্সীগঞ্জ বিক্রমপুরের গুরুত্বপূর্ণ বিভিন্ন প্রাচীন নিদর্শন রয়েছে। এরমধ্যে ১২শ বছর আগের নৌকা, রাজা শ্রীনাথ রায়ের নৌকা, জমিদারের মূর্তি, পুরানো ঢাল সড়কি, খড়গ, বিক্রমপুরের কৃতীসন্তানদের ছবি, ব্যবহার্য নিদর্শন, মুক্তিযুদ্ধের নিদর্শন, তৈজষপত্র, রঘুরামপুর ও নাটেশ্বরে খননে প্রাপ্ত নির্দশনসহ বহু নির্দশন। নয়নাভিরাম পরিবেশে স্থাপিত জাদুঘরটি দর্শনার্থীদের মুগ্ধ করছে। ঢাকা থেকে ঢাকা-দোহার সড়কে শ্রীনগর উপজেলার বালাশুর চৌরাস্তা থেকে কিছুটা উত্তরদিকে এর অবস্থান।

স্যার জগদীশ চন্দ্র বসুর বাড়ি

স্যার জগদীশ চন্দ্র বসুর বাড়িটি মুন্সীগঞ্জ জেলার শ্রীনগর উপজেলায় অবস্থিত বাংলাদেশের অন্যতম একটি প্রত্নতাত্ত্বিক নিদর্শন। এটি প্রখ্যাত বাঙালি উদ্ভিদবিজ্ঞানী স্যার জগদীশ চন্দ্র বসুর পৈতৃক বাড়ি। এটি শ্রীীনগর উপজেলার রাঢ়ীখাল গ্রামে অবস্থিত। ঢাকা থেকে এর দুরত্ব প্রায় ৩৫ কিলোমিটার।

স্যার জগদীশ চন্দ্র বসু প্রথম সফল বাঙালি বিজ্ঞানী যিনি উদ্ভিদের যে প্রাণ আছে তা আবিস্কার করেন। এছাড়া তিনি বেতার যন্ত্র আবিস্কারের স্বপ্নদ্রষ্টা। তার পৈতৃক বাড়িটির ত্রিশ একর জায়গায় জগদীশ চন্দ্র বসু কলেজ ও কমপ্লেক্স নির্মিত হযয়েছে। জীবিত অবস্থায় তিনি তার সম্পত্তি দান করে যান। সেখানে ১৯২১ সালে সুরুজ বালা সাহা বিদ্যালয় ও পরে ১৯৯১ সালে জগদীশ চন্দ্র বসু ইনস্টিটিউশন ও কলেজ প্রতিষ্ঠা করা হয়। ২০১১ সালে জগদীশ চন্দ্র বসু কমপ্লেক্স নির্মাণ করা হয়েছে, যা চলে জগদীশ চন্দ্র বসু ইনস্টিটিউশনের উদ্যোগে।

কমপ্লেক্সে নির্মিত হয়েছে জগদীশ চন্দ্র বসু স্মৃতি যাদুঘর, পশু-পাখির ম্যুরাল, কৃত্রিম পাহাড়-ঝরনা ও সিঁড়ি বাধানো পুকুর ঘাট। যাদুঘরে জগদীশ চন্দ্র বসুর পোেেট্রট, গবেষণাপত্র, হাতে লেখা পান্ডুলিপি, রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের নোবেল প্রাপ্তিতে তাকে লেখা চিঠি ও রবীন্দ্রনাথের বসুকে লেখা চিঠি, তেল রং দিয়ে আঁকা ১৭টি দুর্লভ ছবি, রয়্যাল সোসাইটিতে দেওয়া বক্তৃতার কপি এবং নানা দুর্লভ জিনিস রয়েছে। স্যার জগদীশ চন্দ্র বসুর বাড়িটি ৬ কক্ষবিশিষ্ট। বাড়িটির একটি কক্ষকে যাদুঘর হিসেবে রূপান্তর করা হয়েছে। এই বাড়িতে ৬টি দিঘী রয়েছে।

খাবার : পর্যটকরা যাওয়ার সময় মুন্সীগঞ্জ শহরের পুরাতন কাচারি এলাকার চিত্তঘোষের শতবছরের ঐতিহ্যবাহী মিষ্টির দোকান থেকে ইরানি চমচম, ক্ষীর জাম, রসগোল্লা, কাটারিভোগ নামের মিষ্টি কিনে নিয়ে যান।

সিরাজদিখানের সন্তোষপাড়ার রয়েছে ২শ’ বছরের ঐতিহ্যবাহী মুখরোচক খাবার পাতক্ষীর। এ পাতক্ষির বড়দিনে প্রেসিডেন্ট প্রাসাদ ও ভারতসহ ইউরোপের বিভিন্ন দেশে নিয়ে যাওয়া হয়। সিরাজদিখান বাজারে প্রসিদ্ধ রাজলক্ষী মিস্টান্ন ভান্ডারসহ কয়েকটি মিষ্টির দোকানে পাওয়া যায় এ পাতক্ষির।

এছাড়া, দক্ষিণবঙ্গের ২৩ জেলার মানুষের সরাসরি যোগাযোগের জন্য মাদারীপুর ও মুন্সীগঞ্জ জেলার মাওয়া অংশে নির্মিত হচ্ছে দেশের সর্ববৃহৎ পদ্মা সেতু। এ সেতুর প্রায় ৪০ শতাংশ কাজ সমাপ্ত হয়েছে বলে জানিয়েছেন সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

জেলা প্রশাসক সায়লা ফারজানা জানান, সভ্যতার জনপদ মুন্সীগঞ্জের ইতিহাস ঐতিহ্য সংরক্ষণের জন্য বিভিন্ন মন্ত্রণালয় ও জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে একাধিক কার্যক্রম গ্রহণ করা হয়েছে। ইদ্রাকপুর কেল্লা প্রত্নতত্ত্ব বিভাগের দায়িত্বে রয়েছে। ইদ্রাকপুর কেল্লায় একটি যাদুঘর তৈরি করা হবে। এ কেল্লাটি সংরক্ষণের জন্য বিভিন্ন প্রকল্প গ্রহণ করা হয়েছে।

অতীশ দীপঙ্করের বাড়িতে একটি লাইব্রেরি ও যাদুঘরের কাজ চলছে এবং চায়না সরকারের সহায়তায় অতীশ দীপঙ্করের বাড়িতে বাড়িতে একটি বিশ্ববিদ্যালয় হবে। এছাড়া স্যার জগদীশ চন্দ্র বসুর বাড়ি ও ব্রজেন দাসের বাস্তুভিটা কিভাবে সংরক্ষণ করা যায় সে লক্ষ্যে কার্যক্রম হাতে নেয়া হয়েছে বলে জানালেন এই জেলা প্রশাসক।

তিনি আরও জানান, পর্যটনের জেলা করতে প্রচুর অর্থের প্রয়োজন হয়। তার আগে জেলার যোগাযোগ ব্যবস্থা উন্নত করতে হবে।

পূর্ব পশ্চিম

Leave a Reply