বাঙালির মেধা-মননের অনন্য আশ্রয়

সিরাজুল ইসলাম চৌধুরীর জন্মদিন আজ
বাংলা প্রবন্ধ-সাহিত্যের পাঠকপ্রিয়তা অর্জন ও সমৃদ্ধির ক্ষেত্রে যার অবদান অসামান্য তিনি সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী। শুধু তাই নয়, কল্যাণময় রাষ্ট্র ও বৈষম্যহীন সমাজ প্রতিষ্ঠায় তিনি নিরলস সাধক। স্বাধীনতার প্রায় একযুগ আগে থেকেই তিনি লেখালেখি করে আসছেন। অধ্যাপক, লেখক, সাহিত্যিক, সম্পাদক, শিক্ষাবিদ, মার্ক্সবাদী দার্শনিক এই ব্যক্তি ক্রমে পরিণত হয়েছেন আমাদের মননের বাতিঘরে।

জীবনাচরণে, লেখায় এবং সাংগঠনিক কাজে সবসময় তিনি লালন করেন পরিবর্তনকামী প্রবল এক চেতনা। তার সংগ্রামের পথ ধরেই হয়তো একদিন ঘটবে বাঙালির চিন্তার আমূল বিবর্তন তথা সামাজিক ও সাংস্কৃতিক বিপ্লব। জাতির চেতনা বিকাশে তার দিক-নির্দেশনা সবাইকে প্রাণিত করে।

আজ ২৩ জুন অধ্যাপক সিরাজুল ইসলাম চৌধুরীর জন্মদিন। ১৯৩৬ সালের এই দিনে মুন্সীগঞ্জ জেলার বিক্রমপুরের বাড়ৈখালা গ্রামে তিনি জন্ম লাভ করেন।

কর্মজীবনের প্রায় পুরোটা সময় ইংরেজি সাহিত্যের শিক্ষক হিসেবে একাডেমিক দায়িত্ব পালন করেছেন। তিনি দীর্ঘদিন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষকতা করেছিলেন। পড়েছেন এবং পড়িয়েছেন ইংরেজি ভাষায়। তবে লিখছেন বাংলা ভাষায়। সিরাজুল ইসলাম চৌধুরীর সমকালের একজন সচেতন লেখক। গদ্যনির্মাতা এবং সাময়িকীর সম্পাদক হিসেবে তিনি ব্যাপক খ্যাতি অর্জন করেছেন। সমকালীন বাংলা ভাষার প্রথম সারির প্রাবন্ধিক তিনি।

শিক্ষাজীবনে অত্যন্ত মেধাবী ছিলেন তিনি। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়া শেষ করে ইংরেজি সাহিত্যে উচ্চতর গবেষণা করেছেন যুক্তরাজ্যের লিডস্ এবং লেস্টার বিশ্ববিদ্যালয়ে। তিনি সব সময় বাক্-স্বাধীনতা, বিশ্ববিদ্যালয়ের স্বায়ত্তশাসন, মানবিক অধিকার, দুর্নীতি প্রতিরোধ, পরিবেশ সুরক্ষা, সামাজিক ন্যায়বিচার প্রতিষ্ঠার জন্য আন্দোলন করে গেছেন। যুদ্ধাপরাধের বিচার, দেশের তেল-গ্যাস-খনিজ সম্পদ রক্ষার জন্য রাজপথেও নেমে এসেছেন তিনি। সাম্রাজ্যবাদ, পুঁজিবাদ ও সাম্প্রদায়িকতার বিরুদ্ধে তিনি নিরলস সংগ্রাম চালিয়ে গেছেন লেখনীর মাধ্যমে, কখনো আবার সশরীরে উপস্থিত হয়ে।

শুধু গদ্য রচনাই নয়, গদ্যসাহিত্যে লেখক তৈরির ক্ষেত্রেও তার অবদান প্রশংসনীয়। দীর্ঘদিন ধরে তিনি ত্রৈমাসিক নতুনদিগন্ত সম্পাদনা করছেন। শ্রেণিসংগ্রাম নিয়ে যারা ভাবেন ও লেখেন, তাদের মননের একটি নির্ভরযোগ্য জায়গা হিসেবে সমাদৃত হয়েছে পত্রিকাটি। বিশেষ ভাবধারার নতুন লেখক তৈরিতেও এর ভূমিকা অসামান্য। শিক্ষক হিসেবে সমাজের প্রতি যে দায়বোধ, তার প্রতি তিনি সবসময় দৃঢ় এবং আন্তরিক। ভারতবর্ষে ব্রিটিশ শাসন থেকে শুরু করে স্বাধীনতার পর বাংলাদেশে ইতিহাস চর্চায় তার ভূমিকা গুরুত্বপূর্ণ।

মানুষের মনোবৃত্তির বিকাশে শিক্ষা, শিল্প-সাহিত্য ও নৈতিক দায়বোধের বিষটি সিরাজুল ইসলাম চৌধুরীর ভাবনা-বলয়ের অন্যতম সূত্র। একই সাথে সমাজ রূপান্তরের ধারায় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির সংযোগে মানুষের জীবনযাপনকে আরো অর্থপূর্ণ করা চলে তার এই বিদগ্ধ চিন্তা ও সাধনা। তিনি মানুষের নৈতিক অবক্ষয় এবং লোভ-লালসায় নেশাগ্রস্ত, মিডিয়া-সন্ত্রাসসহ সকল অনিয়মের বিপরীতে সবসময় সৌচ্ছার। বাঙালির জাতীয়তাবাদ, গণতন্ত্র, মানুষের অধিকার, রাষ্ট্রভূমি ও সমাজ ব্যবস্থার ক্রম পরিবর্তন ধারা প্রভৃতি প্রসঙ্গ সিরাজুল ইসলাম চৌধুরীর লেখালেখির অন্যতম আশ্রয়। তবে নিখাদ সাহিত্য চর্চায়ও তার অনেক খ্যাতি রয়েছে। সাহিত্যসেবক সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী সমকালে জাতির একজন একনিষ্ঠ অভিভাবক।

এখন পর্যন্ত সিরাজুল ইসলাম চৌধুরীর বইয়ের সংখ্যা আশি ছাড়িয়েছে। তার বইয়ের শিরোনাম থাকে অনেকটা দ্বন্দ্ব ও প্রশ্নবানে আবৃত। যেমন অনতিক্রান্ত বৃত্ত, উপরকাঠামোর ভেতরই, শেষ মীমাংসার আগে, উদ্যানে এবং উদ্যানের বাইরে, স্বপ্নের আলো ছায়া, কেউ বলে বৃক্ষ কেউ বলে নদী, দ্বিজাতিতত্ত্বের সত্য-মিথ্যা, অপরিচিত নেতা পরিচিত দুর্বৃত্ত, এর পথ ওর প্রাচীর, বাঙালীর সময়-অসময়, ভূতের নয় ভবিষ্যতের, রাষ্ট্র ও কল্পলোক, বিরূপ বিশ্বে সাহসী মানুষ, বাঙালিকে কে বাঁচাবে ইত্যাদি। তার ‘বাঙালি জাতীয়তাবাদ’, ‘জাতীয়তাবাদ, সাম্প্রদায়িকতা ও জনগণ’ বই দু’টি বাংলাদেশের ইতিহাস গবেষণায় অনন্য সংযোজন। অন্যদিকে তার ‘স্বাধীনতার স্পৃহা ও সাম্যের ভয়’ এবং ‘রাষ্ট্র ও কল্পলোক’ প্রবন্ধগ্রন্থ দু’টি বিষয় বক্তব্য ও ইতিহাস বিবেচনায় বিশিষ্ট হয়ে আছে।

শুধু জ্ঞান আহরণ নয়, জ্ঞান সৃষ্টির জন্যও সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী পদক্ষেপ গ্রহণ করেছেন। তার স্ত্রী শিশুসাহিত্যিক ও শিক্ষক ড. নাজমা জেসমিন চৌধুরীর মৃত্যুর পর তার আগ্রহ এবং অর্থায়নে স্মারক বক্তৃতা প্রবর্তন করেছেন তিনি। শিক্ষা ও সাহিত্য-সৃজনে অসামান্য অবদানের জন্য এ যাবৎ তিনি বাংলা একাডেমি পুরস্কার, আবদুর রহমান চৌধুরী পদক(ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়), একুশে পদক, লেখক সংঘ পুরস্কার এবং ঋষিজ পদকসহ বহু গুরুত্বপূর্ণ পুরস্কার-সম্মাননায় ভূষিত হয়েছেন। জাতির মেধা, মনন ও রুচিবোধের বিকাশে সিরাজুল ইসলাম চৌধুরীর অসামান্য শ্রম, সাধনা ও মনোবৃত্তি সবসময় অনুপ্রাণিত করে। শুদ্ধতার আবেশ ছড়ায়। তিনি বাঙালির সমকালীন চিন্তা-শুদ্ধির অনন্য আশ্রয়।

নিউজজি

Leave a Reply