স্বপ্নের পদ্মা সেতু প্রকল্প: দৃশ্যমান ৭৫০ মিটার

স্বপ্নের পদ্মা সেতু প্রকল্পের কাজ দ্রুতগতিতে এগিয়ে চলছে। দিন-রাত চলছে কর্মযজ্ঞ। একের পর এক খুঁটি মাথা উঁচু করে দাঁড়াচ্ছে পদ্মার বুকে। এরই ধারাবাহিকতায় গতকাল শুক্রবার শরীয়তপুরের জাজিরা প্রান্তের তীরঘেঁষা ৪১ ও ৪২ নম্বর খুঁটির ওপর বসানো হয়েছে ‘৭এফ’ নম্বরের পঞ্চম স্প্যান। এর মধ্য দিয়ে সেতুর ৭৫০ মিটার বা পৌনে এক কিলোমিটার অংশ দৃশ্যমান হলো।

পঞ্চম স্প্যান খুঁটির ওপর বসানোর দিনক্ষণ থাকায় নির্ধারিত সময়েই প্রকল্প এলাকার জাজিরা প্রান্তে উপস্থিত হন আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। তিনি দুই খুঁটির ওপর স্প্যান বসানোর কাজ প্রত্যক্ষ করেন। এ সময় সেতুমন্ত্রী প্রকল্প পরিচালক মো. শফিকুল ইসলাম ও মূল সেতুর নির্বাহী প্রকৌশলী দেওয়ান মো. আবদুল কাদেরসহ সংশ্নিষ্ট একাধিক নির্বাহী প্রকৌশলীর সঙ্গে কথা বলে কাজের সার্বিক অগ্রগতির খোঁজখবর নেন। পাশাপাশি তিনি ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা ও প্রকৌশলীদের নির্মাণ কাজের গতি বাড়াতে প্রয়োজনীয় দিকনির্দেশনা দিয়েছেন বলে প্রকল্পের দায়িত্বশীল প্রকৌশলী সূত্র জানিয়েছে।

ওবায়দুল কাদের বলেন, বর্তমান সময় পর্যন্ত পদ্মা সেতুর ৫৬ শতাংশ কাজ শেষ হয়েছে। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার একক নেতৃত্বে দেশের অর্থায়নে শুরু হওয়া পদ্মা সেতুর কাজ সরকারের নির্ধারিত সময়ে শেষ করতে দিন-রাত ব্যাপক কর্মযজ্ঞ চলছে। এরই ধারাবাহিকতায় একের পর এক খুঁটি মাথা উঁচু করে দাঁড়াচ্ছে পদ্মার বুকে। এসব খুঁটির ওপর ২০১৭ সালের ৩০ সেপ্টেম্বর থেকে শুক্রবার পর্যন্ত প্রতিটি ১৫০ মিটার দৈর্ঘ্যের ৫টি স্প্যান বা সুপারস্ট্রাকচার স্থাপন করা হয়ে গেছে। ধারাবাহিকভাবে আরও ৩৬টি স্প্যান বসানোর কর্মযজ্ঞ চলমান রয়েছে। ৪২টি খুঁটির ওপর মোট

৪১টি স্প্যান স্থাপন শেষে দৃশ্যমান বাস্তবতা শতভাগ শেষ হবে। এরপর পদ্মা সেতুকে ঘিরে বাংলাদেশের ইতিহাসে নতুন অধ্যায় রচিত হবে বলে সাংবাদিকদের জানান ওবায়দুল কাদের।

পদ্মা সেতু প্রকল্প এলাকায় আসার আগে ওবায়দুল কাদের গতকাল সকাল ১০টার দিকে ঢাকা জেলার কেরানীগঞ্জের কলাকান্দি এলাকায় ঢাকা-মাওয়া-ভাঙ্গা পর্যন্ত ৪ লেন এক্সপ্রেসওয়ের নির্মাণ কাজ পরিদর্শন করেন। অক্টোবরে প্রধানমন্ত্রী ঢাকা থেকে ফরিদপুরের ভাঙ্গা পর্যন্ত এক্সপ্রেসওয়ের উদ্বোধন করবেন বলে আশা করেন তিনি।

প্রকল্পের (মূল সেতুর) নির্বাহী প্রকৌশলী দেওয়ান মো. আবদুল কাদের জানান, গতকাল বেলা ১১টা থেকে জাজিরা প্রান্তের তীরঘেঁষা ৪১ ও ৪২ নম্বর খুঁটির ওপর পঞ্চম স্প্যান বসানোর কাজ শুরু করেন দেশি-বিদেশি প্রকৌশলী ও শ্রমিকরা। দুপুর পৌনে ১২টার মধ্যেই ‘তিয়ান-ই’ নামের ভাসমান ক্রেনটি স্প্যানটিকে পাঁজরে আটকিয়ে বসিয়ে দেয় খুঁটির ওপর। এর মাধ্যমে সেতুর মূল কাঠামোর ৭৫০ মিটার অংশ দৃশ্যমান হলো।

প্রকল্পের দায়িত্বশীল এক প্রকৌশলী জানান, ২০১৭ সালের ৩০ সেপ্টেম্বর সেতুর জাজিরা প্রান্তের ৩৭ ও ৩৮ নম্বর খুঁটিতে প্রথম স্প্যানটি বসানো হয়। চলতি বছরের ২৮ জানুয়ারি ৩৮ ও ৩৯ নম্বর খুঁটিতে দ্বিতীয় এবং ১১ মার্চ ৩৯ ও ৪০ নম্বর খুঁটিতে তৃতীয় স্প্যান স্থাপনে সেতুর মূল অবকাঠামো ৬০০ মিটার দৃশ্যমান হয়।

বৃহস্পতিবার সকালে মুন্সীগঞ্জের মাওয়া প্রান্তের কুমারভোগ কনস্ট্রাকশন ইয়ার্ডের স্টক ইয়ার্ড থেকে ১৫০ মিটার দৈর্ঘ্যের ও ৩ হাজার ১৪০ টন ওজনের পঞ্চম স্প্যান নিয়ে ভাসমান ক্রেন ‘তিয়ান-ই’ এদিন বিকেলে ৪১ ও ৪২ নম্বর খুঁটির কাছে গিয়ে প্রকৌশলী জানান, ৬ দশমিক ১৫ কিলোমিটার দৈর্ঘ্যের দ্বিতল পদ্মা সেতুতে সব মিলিয়ে ৪২টি খুঁটি নির্মাণ করা হচ্ছে। এর মধ্যে মাওয়া প্রান্তে ২১টি ও জাজিরা প্রান্তে ২১টি। এ ৪২টি খুঁটির ওপর বসবে ৪১টি স্প্যান। এর মধ্যে ৪০টি খুঁটি থাকবে পানিতে আর ডাঙায় দুটি। ডাঙার দুটি খুঁটি সংযোগ সড়কের সঙ্গে মূল সেতুকে যুক্ত করবে। ৬টি মডিউলে বিভক্ত থাকবে সেতু। মাওয়া প্রান্তে ১ হাজার ৪৭৮ মিটার ঝুলন্ত পথ থাকবে। জাজিরা প্রান্তে থাকবে ১ হাজার ৬৭০ মিটার। এ ছাড়া সেতুতে যান চলাচল ছাড়াও থাকবে নানা সুবিধা। গ্যাস সরবরাহের জন্য থাকবে ৩০ ইঞ্চি ব্যাসের পাইপ। ৬ ইঞ্চি ব্যাসের পাইপ বসবে অপটিক্যাল ফাইবার ও টেলিযোগাযোগ স্থাপনের জন্য। উচ্চ ভোল্টেজের বিদ্যুৎ সঞ্চালন লাইনও থাকবে নাঙর করে।

পদ্মা সেতুর এক নির্বাহী সেতুতে।

প্রকল্পের দায়িত্বশীল কর্মকর্তা সূত্রে জানা গেছে, মোট ৫টি প্যাকেজের ব্যয় ধরা হয়েছে ২৮ হাজার ৭৯৩ কোটি টাকা। বর্তমান সরকারের প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী সেতুর পুরোটাই নির্মিত হবে স্টিল ও কংক্রিট দিয়ে। সেতুর উপরে থাকবে কংক্রিট ঢালাইয়ের চার লেনের মহাসড়ক আর তার নিচ দিয়ে যাবে রেললাইন।

সমকাল

Leave a Reply