জাপানের পশ্চিমাঞ্চলে শক্তিশালী ভূমিকম্পের আঘাত

রাহমান মনি: জাপানের দ্বিতীয় বৃহত্তম মহানগরী, শিল্পাঞ্চল ও বাণিজ্যিক রাজধানী খ্যাত দেশটির পশ্চিমাঞ্চল ওসাকা তে একটি শক্তিশালী ভূমিকম্প আঘাত হানে।

সাপ্তাহিক কর্মদিবসের শুরুতে সোমবার সকাল ৮টায় আঘাত হানা এ ভূমিকম্পের মাত্রা ছিল রিখটার স্কেলে ৬.১। জাপানিজ স্কেলে যা, শিন্দো (ঝযরহফড়) ৭ ছিল।
৬.১ মাত্রার (জাপানের আবহাওয়া সংস্থা প্রাথমিকভাবে ভূমিকম্পের মাত্রা রিখটার স্কেলে ৫.৯ ঘোষণা দিয়েছিল। তবে পরবর্তীতে তা বৃদ্ধি করে ৬.১ বলে ঘোষণা দেয়া হয়) এই ভূমিকম্পে ৩ জনের মৃত্যুর খবর নিশ্চিত করেছে জাপান পুলিশ ও রাষ্ট্রীয় সংবাদ সংস্থা এনএইচকে। যার মধ্যে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের একজন শিক্ষার্থীও রয়েছে। এছাড়াও তিন শতাধিক আহত হয়েছেন যাদের অনেকেই হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

ভূমিকম্পের সময় তাকাতসুকি শহরের জুয়েই প্রাথমিক বিদ্যালয়ের তৃতীয় গ্রেডের মেয়ে শিক্ষার্থী ‘রিনা মিয়াকে’ (৯) নামক শিশুটি তার প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভেতরে ক্লাসরুমে যাওয়ার জন্য হাঁটছিল। বিদ্যালয়ের সুইমিংপুলের দেয়াল ভেঙে তার ওপর পড়লে সে মারা যায়। এনএইচকে জানায়, দেয়াল ভেঙে পড়ে ৮০ বছরের আরেক বৃদ্ধ নিহত হয়েছেন। এ ছাড়া অপর ব্যক্তি নিজের বাসায় বইয়ের শেলফের নিচে চাপা পড়ে নিহত হয়েছেন।

জাপান পুলিশ এবং রাষ্ট্রীয় প্রচার মাধ্যম এনএইচকে এবং বিভিন্ন গণমাধ্যম সূত্রে জানা যায়, ভূমিকম্পে ওসাকা ও আশেপাশের শহরগুলোতে বেশ ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। ভূমিকম্পে কারখানার বিদ্যুতের সংযোগ বন্ধ হয়ে যায়। অনেক কারখানায় উৎপাদন বন্ধ রাখতে হয়। এ ছাড়া প্রধান পানির সংযোগে বিস্ফোরণ হয়েছে। ভূমিকম্পে মাটির নিচে পানির পাইপ ফেটে রাস্তা তলিয়ে যায়। প্রায় ১ লাখ ৭০ হাজার ভবন বিদ্যুৎ-বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে। স্থানীয় পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রগুলোয় কোনো সমস্যা দেখা যায়নি।

তবে, হতাহতদের মধ্যে কোনো বাংলাদেশিদের নাম এখনো পর্যন্ত জানা যায়নি। ভূমিকম্প এলাকায় বসবাসরত বাংলাদেশিদের সঙ্গে যোগাযোগ করে তাদের খোঁজ নিয়েছে টোকিওর বাংলাদেশ দূতাবাস।

দূতাবাস একটি হেল্পলাইন চালু করে। হেল্পলাইনের নম্বর ০৮০-৪০৬৫৬৬০১ ও ০৮০-৪৪৫৬১৯৭১। আক্রান্ত এলাকায় বাংলাদেশি নাগরিকদের সতর্কতা অবলম্বন এবং যেকোনো সহায়তার জন্য হেল্পলাইনে যোগাযোগের জন্য দূতাবাসের পক্ষ থেকে অনুরোধ জানানো হয়।

ভূমিকম্পে অগ্নিকা-ের ঘটনা ঘটলেও সুনামির কোনো সতর্কতা জারি হয়নি। যোগাযোগ ব্যবস্থা বিশেষ করে রেল (দ্রুতগামী ও সাধারণ সব ধরনের রেল) ও বিমান যোগাযোগ কিছু (৬০টির বেশি বুলেট ট্রেনের যাত্রা বাতিল করে দেয়া হয়েছিল। কানসাই ও কোবে বিমানবন্দর কয়েক ঘণ্টা বন্ধ ছিল) সময়ের জন্য বন্ধ হয়ে যায়। ফলে, অফিসগামীরা বিপাকে পড়ে যায়। শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোতে ঘোষণা করা হয় সাধারণ ছুটি।

জাপানে ২০১১ সালে ৯.১ মাত্রার ভয়াবহ ভূমিকম্প এবং সুনামিতে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হলেও ওসাকা শহরে তেমন কোনো ক্ষয়ক্ষতি হয়নি। তবে ১৯৯৫ সালে কোবে (১৯৯৫ সালের ৭ দশমিক ৩ মাত্রার ভূমিকম্পে জাপানে প্রায় সাড়ে ৬ হাজার মানুষ নিহত হয়েছিলেন।) ভূমিকম্পে ওসাকাতে ব্যাপক প্রভাব পড়ে। প্রায় দুই যুগ পর ওসাকাবাসীকে বড় ধরনের ভূমিকম্পের মুখোমুখি হতে হলো।

ভূমিকম্পে ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ এখন পর্যন্ত নির্ধারণ করা সম্ভব হয়নি।

৮৫০ জন আশ্রয় কেন্দ্রের অস্থায়ী নিবাসে স্থান নিয়েছেন।

ভূমিকম্পের পর প্রধানমন্ত্রী শিনজো আবে গণমাধ্যমকে বলেন, ‘সরকার এবং জনগণ একত্র হয়ে কাজ করছে। আমাদের প্রথম এবং প্রধান প্রাধান্য জনগণের জীবন রক্ষা করা। তিনি ধৈর্যসহকারে পরিস্থিতি মোকাবিলার উপর গুরুত্বারোপ করেন এবং ক্ষতিগ্রস্ত এলাকার বাসিন্দাদের সতর্ক থাকার পরামর্শ দিয়েছেন।

প্রধানমন্ত্রী আরো বলেন, “ভূমিকম্প পরবর্তী সব ধরনের প্রস্তুতি নিতে নির্দেশ দেয়া হয়েছে। সরকার জনগণের প্রাণের নিরাপত্তাকে বেশি গুরুত্ব দিচ্ছে।”

জাপানের আবহাওয়া সংস্থা জানিয়েছে, ভূমিকম্পটির কেন্দ্রস্থল ওসাকা শহর থেকে অল্প কিছুটা উত্তরে। সোমবার ভূমিকম্পের পরবর্তী দুই দিন পর্যন্ত ভূকম্পন অব্যাহত ছিল। যা, বিশেষজ্ঞরা ভূমিকম্পের আফটার শক হিসেবে দেখছেন এবং আগামী কয়েকদিন পর্যন্ত অব্যাহত থাকতে পারে, সেই সাথে ভূমিধস ও ভবনধস ঘটে জানমালের সম্ভাব্য ক্ষয়ক্ষতির জন্য সতর্ক করে দিয়েছেন।

ভূমিকম্পের পর সরকার ও স্থানীয় প্রশাসন মিলে জাপানজুড়ে সমস্ত প্রাথমিক এবং জুনিয়র হাই স্কুলের কনক্রিট ব্লকের দেয়ালগুলোকে জরুরিভাবে যাচাই করে যথাযথ ব্যবস্থা নেয়ার পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়েছে। শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অধীনে এই পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করা হবে বলে জানা গেছে।

ছবি- সংগৃহীত
rahmanmoni@kym.biglobe.ne.jp

সাপ্তাহিক

Leave a Reply