ডিঙ্গাভাঙ্গায় স্কুল ছাত্র অপহরণের ৩৬ ঘন্টা পর ফেরত

মোহাম্মদ সেলিম ও নাজির হোসেন: মুন্সিগঞ্জ সদর উপজেলার পঞ্চসার ইউনিয়নের আদারিয়াতলা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের চতুর্থ শ্রেণির ছাত্র রতনকে অপহরণের পরে ৩৬ ঘন্টা পর দুবৃত্তরা বাড়ির পাশে ফেলে রেখে গেছে।

শনিবার সকাল ৯টার দিকে রতনকে কে বা কাহারা বাড়ির কাছ থেকে অপহরণ করে নিয়ে যায়। পরে রবিবার রাত সাড়ে ১০টার দিকে তাকে হাত পা বাঁধা অবস্থায় বাড়ির পাশে ফেলে রেখে যায়।

এই দিকে রতনের মা সায়লা মমতাজ মুন্সিগঞ্জ সদর থানায় জিডি দায়ের করেন। জিডি নং হচ্ছে ১৩২৯।
রতনের স্কুলে ভালো নাম হচ্ছে রেদওয়ান হাসান রতন। ক শাখায় তার রোল হচ্ছে ২১। তার পিতার নাম হচ্ছে মৃত নাজমুল হোসেন।

জানা যায়, ঘটনার দিন তাদের গ্রামের দুইজন ব্যক্তি তাকে তার মা অসুস্থ্য অবস্থায় মুন্সিগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি আছে, তাকে তাদের সাথে জেতে বলেছে।

এই কথার ভিত্তিতে রতন তাদের সাথে ইজিবাইকে হাসপাতালের উদ্দেশ্যে বাড়ির কাছ থেকে চলে যায়। এরপর থেকে রতন নিখোঁজ হয়। একদিন পার হলেও রতনকে আর খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না। সন্তান নিখোঁজের বিষয়ে তার মা উতলা হয়ে উঠেন।

এর একদিন পর রবিবার রাত সাড়ে ১০টার দিকে একটি সাদা মাইক্রোতে করে রতনকে ঢালীবাড়ীর কাছে হাত পা বাঁধা অবস্থায় দুই ব্যক্তি ফেলে রেখে যায়।

রতনকে পাওয়া গেলেও সে আতংকের মধ্যে রয়েছে। মানুষকে দেখলে রতন ভয়ে কুকরে উঠে। অপহরণকারীরা তাকে কোন ধরণের ভয়ভীতি দেখাতে পারে বলে তার পরিবার থেকে দাবি করা হয়েছে।

জমি জমার কারণে তার সৎ ভাইয়েরা এই অপহরণের ঘটনা ঘটিয়ে থাকতে পারে। তার বাবার মৃত্যুর পর রতন অনেক জমি জমার মালিক হয়েছেন বলে শোনা যাচ্ছে।

মুন্সিগঞ্জ নিউজ

Leave a Reply