অতিরিক্ত বৃষ্টিপাতের ফলে সৃষ্ট বন্যা ও ভূমি ধসে জানমালের ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি

রাহমান মনি: জাপানের পশ্চিমাঞ্চলে অতিরিক্ত বৃষ্টিপাতের ফলে সৃষ্ট বন্যা ও ভূমি ধসে জানমালের ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। রেকর্ড পরিমাণ বৃষ্টিপাত এবং ভূমি ধসে দেশটির পশ্চিমাঞ্চলের বিভিন্ন এলাকা ডুবে যাওয়ায় এসব লোকের প্রাণহানি ঘটে।

জাপান পুলিশ ও রাষ্ট্রীয় সংবাদ সংস্থা এনএইচকে সূত্রে জানা যায়, এই পর্যন্ত ২০০ জন নিহত এবং ২১ জন নিখোঁজ রয়েছেন। ধারণা করা হচ্ছে নিখোঁজদের অনেকেই স্রোতের টানে ভেসে গেছেন অথবা নির্জন স্থানে নিঃসঙ্গ জীবন কিংবা মৃত অবস্থায় কোথাও পড়ে রয়েছেন। প্রতিকূলতার জন্য যোগাযোগ বা অনুসন্ধান করা সম্ভব হচ্ছে না। গত ৩০ বছরেরও বেশি সময়ের মধ্যে আবহাওয়া সংক্রান্ত সবচেয়ে বড় এবং ভয়াবহ প্রাকৃতিক দুর্যোগ এটাই।

দুর্যোগে আড়াই লক্ষাধিক বসতবাড়িতে পানি সরবরাহ বন্ধ, সহস্রাধিক পরিবারের বিদ্যুৎ বিচ্ছিন্ন, ৬ হাজার ৭৬২ জন (১২ জুলাই সকাল ৫.৩০ পর্যন্ত) মানুষ আশ্রয়কেন্দ্রে আশ্রয় নিয়েছেন (জাপান অগ্নিনির্বাপক এবং দুর্যোগ মোকাবিলা সংস্থার সূত্র মতে)। সূত্রমতে ১৫টি প্রদেশের বিভিন্ন আশ্রয়কেন্দ্রগুলোতে এসব আশ্রয়প্রার্থী আশ্রয় নিয়েছেন।

মোট ১৫টি প্রদেশে ভারী বৃষ্টিপাত হলেও সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে হিরোশিমা প্রদেশ এবং অকায়ামা প্রদেশের কুরাশিকি জেলার মাবিচো এলাকাটিতে। এলাকাটির প্রায় ১ হাজার ২০০ হেক্টর বা ৩০ শতাংশ এলাকা বন্যায় তলিয়ে যায়। তাকাহাশি নদীর শাখা নদী অদার ৩.৪ কিলোমিটার পর্যন্ত উজানস্রোতে দুই কূল উপচে পড়লে জানমালের পাশাপাশি ফসল এবং বৃক্ষকূলেরও ব্যাপক ক্ষতি হয়।

প্রধানমন্ত্রী শিনজো আবে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রী এবং কর্মকর্তাদের সঙ্গে এক জরুরি সভায় দেশের পশ্চিমাঞ্চলে প্রবল বৃষ্টিপাতের ক্ষয়ক্ষতি বৃদ্ধি রোধে এবং জানমাল রক্ষায় দ্রুত পদক্ষেপ নেয়ার নির্দেশ দিয়েছেন। তিনি বর্তমান পরিস্থিতিকে ভয়াবহ উল্লেখ করে জরুরি উদ্ধারকর্মীদের মাধ্যমে সর্বশক্তি প্রয়োগের মাধ্যমে উদ্ধার তৎপরতা চালানোর নির্দেশ দেন। তিনি প্রবল বর্ষণ থেকে ভূমি ধস দুর্যোগের গলে জমাকৃত ধ্বংসস্তূপ ও আবর্জনা সরিয়ে নিতে এবং স্থাপনাগুলো পুনর্নির্মাণে সরকার সব ধরনের আর্থিক সহায়তা দিবে। (সূত্র- জাপান মিডিয়া)

প্রধানমন্ত্রী আবে জাপানি জনগণকে আতঙ্কিত না হয়ে ধৈর্য সহকারে এবং সরকারের পাশে থেকে পরিস্থিতি মোকাবিলার অনুরোধ জানান। তিনি বলেন, অতীতের যে কোনো দুর্যোগ মোকাবিলায় একতাবদ্ধ থেকে আমরা যেমন সফলতা পেয়েছি, এবারও আমরা তা পারব। তিনি জানমালের ক্ষয়ক্ষতিতে গভীর দুঃখ প্রকাশ এবং ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারগুলোর প্রতি সমবেদনা জানান।

দুর্যোগের ক্ষয়ক্ষতি এখনো নির্ধারণ করা সম্ভব না হলেও কেবলমাত্র কৃষি, বন ও মৎস্য খাতেই যে অপূরণীয় ক্ষতি হয়ে গেছে তা নিশ্চিন্তে বলা যায়। সার্বিক চিত্র জানতে কিছুটা অপেক্ষা করতে হবে।

‘মড়ার উপর খাঁড়ার ঘা’ হিসেবে দুর্যোগপূর্ণ এলাকাগুলোতে প্রতিদিনের তাপমাত্রা ৩২ ডিগ্রি সেলসিয়াসের উপরে থাকার পাশাপাশি আর্দ্রতা বেশি হওয়ায় স্কুলের ব্যায়ামাগার ও অন্য আশ্রয় কেন্দ্রগুলোতে থাকা পরিবারগুলোর জীবন অসহনীয় হয়ে উঠেছে। পানি সরবরাহ সীমিত হওয়ায় তীব্র গরমের মধ্যে প্রয়োজনীয় তরল গ্রহণ করতে না পারায় এসব মানুষ হিটস্ট্রোকে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকিতে আছেন বলে সতর্ক করে দিয়েছেন কর্তৃপক্ষ। সরবরাহ করা পানি অপ্রতুল হওয়ায় মানুষ হাতের কাছে যে পানি পাচ্ছে তাই ব্যবহার করছে, এতে রোগের প্রাদুর্ভাব ছড়িয়ে পড়ার শঙ্কা তৈরি হয়েছে।

দুর্যোগকবলিত এলাকাবাসীর পর্যাপ্ত পানি না থাকায় কোনো কিছুই পরিষ্কার করতে পারা যাচ্ছে না, কোনো কিছু ধুতেও পারা যাচ্ছে না। সরকার দুর্যোগপূর্ণ এলাকাগুলোতে পানিবাহী ট্রাক পাঠালেও প্রয়োজনের তুলনায় তা অপ্রতুল। অনেক এলাকায় পানি পৌঁছানো সম্ভব হচ্ছে না।

চিফ কেবিনেট সেক্রেটারি ইয়শিহিদে সুগার সাংবাদিক সম্মেলন সূত্র অনুযায়ী এখনো ২১ জন নিখোঁজ রয়েছেন। নিখোঁজদের খোঁজে সৈন্য, পুলিশ ও দমকলকর্মী ধ্বংসস্তূপের মধ্যে বিরামহীন তল্লাশি চালিয়ে যাচ্ছে। অনেক এলাকা পুরু কাদার নিচে চাপা পড়ে আছে এবং ওই কাদা থেকে নর্দমার গন্ধ আসতে থাকায় তীব্র গরমের মধ্যে তল্লাশি অব্যাহত রাখা কঠিন হয়ে উঠেছে।

এদিকে ক্ষতিগ্রস্ত এলাকাগুলোতে এক ধরনের আতঙ্কের সৃষ্টি হয়েছে।

বিচ্ছিন্নতার সুযোগ নিয়ে সুবিধাবাদী একধরনের অসাধু চক্র বিভিন্ন স্থানে হানা দিচ্ছে। বন্যায় বিচ্ছিন্ন থাকা লউসন কনভিনিয়েন্স স্টোরের এটিএম থেকে অর্থ হাতিয়ে নেয়ার পাঁয়তারার অভিলাষে সেখানে প্রবেশ করার অভিযোগে তিনজনকে পুলিশ আটক করে যাদের ২ জনের বয়স ২০ এর নিচে। যদিও তারা সফল হতে পারেনি। তাদের বিরুদ্ধে অন্যের ক্ষতিগ্রস্ত সম্পত্তিতে অবৈধ অনুপ্রবেশের অভিযোগ আনা হয়েছে।

ক্ষতিগ্রস্ত এলাকাগুলোতে বিভিন্ন গুজব ছড়িয়ে পড়ার কারণে এলাকাগুলোতে বহিরাগতদের দেখলেই লোকজন চেঁচিয়ে ওঠেন। নিজেদের মধ্যে খুদে বার্তা প্রেরণের মাধ্যমে তারা নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করেন।

ছবি- আন্তর্জাল
rahmanmoni@kym.biglobe.ne.jp

সাপ্তাহিক

Leave a Reply