সিরাজদিখানে ইউপি চেয়ারম্যান কার্যালয়ে স্কুলছাত্রী ধর্ষিত

সিরাজদিখান কোলা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানের খাসকামরায় ৮ম শ্রেণির স্কুলছাত্রী (১৬) ধর্ষণ নিয়ে তোলপাড় চলছে। ঘটনাটি গত ৯ মাস আগে ঘটেছে বলে জানা যায়। ইন্টারনেটে ভাইরাল হয়ে বিষয়টি প্রকাশ পায়। এ ব্যাপারে গতকাল মেয়েটির মা বাদী হয়ে সিরাজদিখান থানায় দুই জনকে আসামি করে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা করেছে। ধর্ষক সাজিদ ও সহযোগী মলি আক্তারের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে।

এলাকাবাসী জানায়, এ ঘটনায় মলি ও ইউপি সচিব জামাল উদ্দিনের সহযোগিতা রয়েছে। এ ছাড়া ভিডিওটি দিয়ে মেয়েটিকে ব্লাক মেইলের চেষ্টা করে কোলা গ্রামের টুটুল ও সজিব।

ধর্ষিতা জানান, আমি ওই ছেলেকে চিনতাম না। প্রায় ছয় মাস আগে ইউনিয়ন পরিষদের উদ্যোগতা আ. সালাম অসুস্থ থাকায় তার আপন ভাগনি মলি আক্তার ভারপ্রাপ্ত উদ্যোগতার দায়িত্ব নেন। মলি আক্তার আমাকে প্রায় কম্পিউটার শেখার কথা বলতো। তাই আমি মলি আপুর সঙ্গে কম্পিউটার শিক্ষার জন্য ইউনিয়ন পরিষদে যেতাম। কম্পিউটার শেখার সময় ওই ছেলে আমার সঙ্গে নানা দুষ্টামি করতো, আমার গায়ে হাত দিতো। আমি মলি আপুকে বলতাম মলি আপু বলতো কিছু হবে না। কয়েকদিন পর মলি আপু আমাকে বলেন, ওই ছেলেসহ কয়েকজনের খাবার রান্না করে দিতে। তারা আমাকে অনেক টাকা দেবে। তিনি বলেন, তোর মা আয়ার কাজ করেন। তুই ওদের খাবার রান্না করে দিলে সমস্যা কি? ওরা তোকে ভালো বেতন দেবে। তোকে ভালো মোবাইল ফোন কিনে দেবে। এরপর আমি রান্নার কাজ শুরু করি। তখন সাজিদ আমাকে ভালো ভালো কথা বলতো এবং আমার সঙ্গে প্রেম করতো। প্রায় সময় সাজিদ আমাকে জড়িয়ে ধরে ছবি তুলতো আর এরই মধ্যে একদিন আমার সঙ্গে এসব ঘটনা ঘটায়। এসব ঘটনার সঙ্গে সঙ্গে আমি মলি আপুকে সব বলি। মলি আপু বলেন, আর কারো কাছে যেন না বলি, তারপর থেকে আমি আর কোনোদিন ওখানে যাই নাই। সাজিদ আমাকে ফোন দিতো। আমি ওকে বলেছি আপনে আমার সঙ্গে খারাপ কাজ করেছেন। আপনে আমাকে আর কোনোদিন ফোন দেবেন না। তারপর আমি আমার ফোন নাম্বার বন্ধ করে দেই।

ধর্ষিতার মা বলেন, মলির সহযোগিতায় চেয়ারম্যানের খাসকামরায় আমার মেয়ের জীবনটা নষ্ট করে দিলো সাজিদ ও মলি। চেয়ারম্যান সব জানে, কিন্তু এখন আমার মেয়ের সর্বনাশ হয়ে গেল। আমি এর বিচার চাই, মলি আমার মেয়েকে চেয়ারম্যান অফিসে বার বার ডেকে নিয়ে এই সর্বনাশ করলো। চেয়ারম্যান তার ব্যক্তিগত রুমে এই লোকদের থাকতে দিয়েছে। চেয়ারম্যানের অফিসে আমার মেয়ের এই সর্বনাশ হলো আমি এর বিচার চাই। আমি সাজিদ ও মলির বিরুদ্ধে সিরাজদিখান থানায় মামলা করেছি।

এ ব্যাপারে কোলা ইউপি চেয়ারম্যান মীর লিয়াকত আলী বলেন, আমি এসব ব্যাপারে এখন আপনাদের কাছ থেকে জানলাম। ইতিপূর্বে আমি এসব ঘটনা শুনিনি বা জানিও না। তিনি বলেন, এই ছেলেকে পরিষদের হোল্ডিং ট্যাক্স কাটার জন্য পাঠিয়েছে একটি সংস্থা, যারা কাজ পেয়েছে। এ ছেলের পূর্ণ ঠিকানা এনে দিতে পারব। এখানে এই ছেলেকে যে পাঠিয়েছে আমার সঙ্গে তার ডিট ডকুমেন্ট আছে। আমার সচিব ঢাকা গেছে। সে আসলে আমি তার ঠিকানা দিতে পারব। সাজিদকে এখানে পাঠান টংঙ্গীবাড়ীর ব্রজযোগীনি গোলাম মোর্শেদ।

এ ব্যাপারে সিরাজদিখান থানা অফিসার ইনর্চাজ বলেন, তারা চেয়ারম্যানসহ মামলা দিতে চেয়েছিল। তারা বলে চেয়ারম্যান তার পরিষদের কামরায় তাদের থাকতে দিছে এজন্য। এ ঘটনায় দুই জন আসামি করে মামলা হয়েছে। আসামিদের গ্রেপ্তারে পুলিশ মাঠে নেমেছে।

মানবজমিন

Leave a Reply