অটোরিকশা চালকদের ধর্মঘটে ভোগান্তিতে যাত্রীরা

মুন্সিগঞ্জ-নারায়ণগঞ্জ রুটে অটোরিকশা চালকদের ডাকা ধর্মঘট দ্বিতীয় দিনের মতো অব্যাহত রয়েছে। ফলে ভোগান্তিতে পড়েছেন সাধারণ যাত্রীরা। নারায়ণগঞ্জের মণ্ডলপাড়া স্ট্যান্ডে ১০০ টাকা বিট (চাঁদা) বাড়ানোর কারণে ধর্মঘটের ডাক দেয় অটোরিকশা চালকরা। বর্তমানে ভিন্ন রুটে যাতায়াত করতে ৪০ টাকার ভাড়া বাড়িয়ে নেওয়া হচ্ছে ১২০-১৫০ টাকা পর্যন্ত।

সরেজমিনে মুক্তারপুর এলাকার অটোরিকশা স্ট্যান্ড এলাকায় দেখা যায়, নারায়ণগঞ্জে প্রবেশের জন্য কোনো আটোরিকশা নেই। ব্যাটারি চালিত ইজিবাইক ও বিকল্প যানবাহনগুলোও এই সুযোগে বাড়তি ভাড়া আদায় করছে। মুন্সিগঞ্জ সদরের মুক্তারপুর স্ট্যান্ড এলাকা থেকে নারায়ণগঞ্জ প্রবেশের জন্য প্রধান বাহন হলো এই অটোরিকশা।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে মুন্সিগঞ্জ সদরের ট্রাফিক ইন্সপেক্টর শাহাদত আলী বলেন, এটা আসলে ঘর্মঘট বলা যাবে না। এটি নারায়ণগঞ্জ শ্রমিক ইউনিয়নের সঙ্গে মুন্সিগঞ্জের অটোরিকশা চালকদের অভ্যন্তরীণ সমস্যা।

মুক্তারপুর এলাকার অটোরিকশা চালকদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, ১০ টাকা থেকে কয়েক দফায় বিট (চাঁদা) বৃদ্ধি করে ৭০ টাকা করা হয় এবং সর্বশেষ মণ্ডলপাড়ার জিমখানা স্ট্যান্ড ১০০ টাকা দাবি করে। চাঁদা বৃদ্ধির কারণে চালকরা রোববার (২৯ জুলাই) সকাল থেকেই ধর্মঘটের ডাক দেয়।

এছাড়া চাঁদা বৃদ্ধির বিষয়টি মুক্তারপুর অটোরিকশা চালকদের জন্য প্রযোজ্য হলেও তারা জেলার সব দিকে যাতায়াতকারী চালকদের থেকে এটি দাবি করছে। এমনকি গ্যাস আনতে গেলেও তারা টাকার জন্য অটোরিকশা আটকে রাখছে। প্রতিদিন একটি অটোরিকশার গ্যাস, ভাড়া, টোল ইত্যাদিসহ ১২০০ টাকা খরচ হয়। এর পরে চাঁদা দিলে আর কিছুই থাকে না।

জানা যায়, বিকেল থেকে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সঙ্গে কথা বলার চেষ্টা করছেন চালকরা। অতিরিক্ত বিট (চাঁদা) না কমানো পর্যন্ত ধর্মঘট চলবে।

ভুক্তভোগী যাত্রীরা জানান, এই রুটে দ্বিতীয় দিনেও ধর্মঘট চলছে। নারায়ণগঞ্জ জেলার চাষাড়া, ২ নম্বর রেলগেট এলাকায় প্রতিদিন অনেক যাত্রী যাতায়াত করে। অটোরিকশা বন্ধ থাকায় মুন্সিগঞ্জ থেকে লঞ্চে করে নারায়ণগঞ্জ যেতে হচ্ছে। মুক্তারপুর থেকে চাষাড়া পর্যন্ত ৮ কিলোমিটার সড়কে এমন ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে যাত্রীদের।

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর

Leave a Reply