প্রকাশক শাহজাহান বাচ্চুর হত্যাকারীরা দেশেই আছে বলে ধারণা পুলিশের

শাহজাহান বাচ্চুলেখক ও প্রকাশক শাহজাহান বাচ্চুর হত্যাকারীরা দেশেই আছে বলে ধারণা করছে পুলিশ। যেহেতু হত্যাকারীরা জঙ্গি সংগঠন জামায়াতুল মুজাহিদিন বাংলাদেশের (জেএমবি) সদস্য, তাই তারা দেশ ত্যাগ করেনি বলে ধারণা করছেন মুন্সীগঞ্জের পুলিশ সুপার মো. জায়েদুল আলম পিপিএম।

জানা গেছে, শাহজাহান বাচ্চুর হত্যাকাণ্ডের প্রধান আসামি আব্দুর রহমান পুলিশের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত হয়েছে। কিন্তু এক মাস ২০ দিন পার হলেও বাকি তিন আসামি এখনও ধরাছোঁয়ার বাইরে। হত্যাকাণ্ডে সরাসরি জড়িত এই তিন আসামির নাম পরিচয়ও প্রকাশ করেনি পুলিশ। তবে, শিগগিরই এই তিন আসামিকে গ্রেফতার করা সম্ভব হবে বলে জানিয়েছেন পুলিশ সুপার জায়েদুল আলম।

তিনি বাংলা ট্রিবিউনকে তিনি বলেন, ‘যেহেতু এ হত্যাকাণ্ড জঙ্গি সদস্যরাই ঘটিয়েছে তাই তারা দেশ ত্যাগ করবে বলে মনে হয় না। তারা পুলিশের ‘ট্রেস’ এ আছে। শিগগির তাদের গ্রেফতার করা সম্ভব হবে। আমরা দ্রুতই একটা রেজাল্ট দিতে পারবো।’

গত ১১ জুন নিজ গ্রামের বাড়ি মুন্সীগঞ্জের সিরাজদিখান থানার কাকালদী এলাকায় চার জঙ্গি সদস্য মোটরসাইকেলে করে এসে শাহজাহান বাচ্চুকে গুলি করে হত্যা করে পালিয়ে যায়। এ হত্যাকাণ্ডের ঘটনাটি মুন্সীগঞ্জের মাটিতে জঙ্গিদের ‘অন গ্রাউন্ড’ প্রথম আক্রমণ।

গত ২৭ জুন পুলিশের সঙ্গে হত্যাকাণ্ডের প্রধান অভিযুক্ত ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত হওয়ার পর প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে পুলিশ জানায়, শাহজাহান বাচ্চুর হত্যাকাণ্ডের সন্দেহভাজন আসামিদের গ্রেফতার করতে মুন্সীগঞ্জ জেলা পুলিশ, এন্টি টেরোরিজিম ইউনিট, পুলিশ হেডকোয়ার্টার্স ইন্টালিজেন্স উইং, বগুড়া জেলা পুলিশ এবং গাজীপুর জেলা পুলিশ টিমের সহায়তায় গাজীপুর জেলায় অপারেশন চালায়। সেখান থেকে আব্দুর রহমানকে আটক করা হয়। পুলিশ তার থেকে ২টি ৭.৬৫ পিস্তল, ২১ রাউন্ড গুলি ও চারটি গ্রেনেড উদ্ধার করে। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে সে শাহাজাহান বাচ্চু হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত বলে জানায়। সে ঢাকা বিভাগের জেএমবির সামরিক কমান্ডার ছিল। হত্যাকাণ্ডের তিন মাস আগে গাড়িচালক পরিচয় দিয়ে মুন্সীগঞ্জের সিরাজদিখান থানার খাসমহল বালুচর গ্রামের প্রবাসী ইয়াকুব আলীর বাসা ভাড়া নিয়ে তারা হত্যার পরিকল্পনা করে।

সরেজমিনে সিরাজদিখান থানার খাসমহল বালুচর গ্রামে গিয়ে প্রবাসী ইয়াকুব আলীর বাড়িটি তালাবদ্ধ অবস্থায় পাওয়া যায়।

স্থানীয়রা জানান, বাড়ির মালিক ইয়াকুব আলী কয়েক বছর ধরে বিদেশ থাকেন। তাই বাড়িটি ভাড়া দিয়ে ইয়াকুব আলীর স্ত্রী তার বাপের বাড়ি গিয়ে থাকতেন। এখানে ভাড়াটিয়া কারা ছিল তা কেউ বলতে পারে না। এরইমধ্যে বাড়িতে পুলিশ আসার কারণে স্থানীয়রা জানতে পারে যে, এই বাড়িতে যারা ভাড়া থাকতেন তারা জঙ্গি। আর বাড়িটির চতুর্দিক টিনের বেড়া দিয়ে ঘেরা। ইয়াকুব আলীর বাড়ির উল্টো পাশে কোনও বাড়ি নেই। এ কারনে, তিন মাস ধরে ভাড়া থাকলেও স্থানীয়রা ভাড়াটিয়াদের সম্পর্কে কিছুই জানতেন না।

এ ব্যাপারে বালুচর ইউনিয়নের ৬নং ওয়ার্ড ইউনিয়ন পরিষদ সদস্য মো. মোসলেম উদ্দিন বলেন, ‘ইয়াকুব আলীর বাড়িতে কারা ভাড়া থাকতো আমরা তা জানি না। পুলিশ আসার পরে আমরা জানতে পারি ওই বাড়িতে জঙ্গিরা ভাড়া থাকতো।’

সিরাজদিখান থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবুল কালাম বরেন, ‘খাসমহল বালুচরের প্রবাসী ইয়াকুব আলীর বাড়িতে বাচ্চু হত্যাকাণ্ডের আসামিরা ভাড়া থাকতো। বাড়িটি হয়ত তালাবদ্ধ থাকতে পারে তবে পুলিশের হেফাজতে নেই।’

এদিকে, শাহজাহান বাচ্চুর হত্যাকাণ্ডের মামলাটি এখন মুন্সীগঞ্জের ডিবি পুলিশের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। ডিবি পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. ইউনুচ আলী বলেন, ‘বিষয়টি ‘সেনসিটিভ’ তাই কিছু বলা যাবে না। তদন্তের স্বার্থে আসামিদের নাম পরিচয়ও প্রকাশ করা সম্ভব নয়। তবে, শিগগির তাদের গ্রেফতার করা হবে।’

উল্লেখ্য, শাহজাহান বাচ্চু বিশাকা প্রকাশনী প্রতিষ্ঠানের স্বত্বাধিকারী ও জেলা কমিউনিস্ট পার্টির সাবেক সাধারণ সম্পাদক ছিলেন। ‘আমাদের বিক্রমপুর’ নামে একটি অনিয়মিত সাপ্তাহিক পত্রিকারও তিনি ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক ছিলেন। এছাড়া, মুক্তচিক্তার লেখক বাচ্চু বিভিন্ন ব্লগ ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে লেখালেখি করতেন। ছাত্র জীবনে শাহজাহান বাচ্চু ছাত্র ইউনিয়ন করতেন। পরে কমিউনিস্ট পার্টিতে যোগ দেন এবং ২০১২-২০১৪ সময়ে মুন্সীগঞ্জ জেলা সিপিবির সাধারণ সম্পাদক ছিলেন। কিন্তু পরবর্তীতে তিনি পার্টির কোনও পদে ছিলেন না।

বাংলা ট্রিবিউন

Leave a Reply