সিরাজদীখানে কমে যাচ্ছে পাট চাষ

জাগ দেওয়ার পানির অভাব
মুন্সীগঞ্জ জেলার সিরাজদীখান উপজেলায় দিন দিন পাট চাষে আগ্রহ হারাচ্ছেন চাষিরা। সিরাজদীখানের অনেক কৃষক উপজেলাজুড়ে খাল-বিলে পানি না থাকায় এ অর্থকরী ফসল উৎপাদনে আগ্রহ হারিয়ে ফেলেছেন বলে জানিয়েছেন।

উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় ঘুরে কৃষকদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, কয়েক বছর ধরে বিভিন্ন হাউজিং কোম্পানি নদীতীরের খাসজমি ও ছোটবড় অনেক খাল দখল করে ভরাট করার ফলে কৃষকের জমিতে পানি আসার পথ বন্ধ হয়ে গেছে।

যে কারণে চাষিরা পাট চাষের প্রয়োজনীয় পানি পাচ্ছেন না। অনেক চাষি জানান, পাটজাতীয় পণ্যের ব্যবহার দিন দিন কমে যাচ্ছে। প্লাস্টিক ও পলিথিনের ওপর নির্ভর হয়ে পড়েছে মানুষ। আর এ প্লাস্টিক ও পলিথিনের জন্য জমি উর্বরতা হারাচ্ছে।

উপজেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানা যায়, গত বছর সিরাজদীখান উপজেলায় ২ হাজার ২৭০ হেক্টর জমিতে দেশি, তোষা ও কেনাফ জাতীয় পাট চাষ হয়েছিল। এ বছর এক হাজার ৭৬০ হেক্টর জমিতে পাট চাষ হয়েছে।

উপজেলার ইছাপুরা গ্রামের কৃষক মো. কোরবান আলী আফসোস করে বলেন, এমন এক সময় ছিল যখন পাট চাষের মৌসুমের জন্য অপেক্ষায় থাকতাম। সে সময় উৎপাদিত পাট বিক্রি করে আমাদের সারা বছরের পারিবারিক খরচের টাকা হয়ে যেত। কিন্তু বর্তমান সময়ে পাট চাষ করতে যে পানির প্রয়োজন তা পাই না। পাট তুলে পচানোর পানিরও খুব অভাব।

সিরাজদীখান উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা সুবোধ চন্দ্র রায় জানান, সিরাজদীখানের খাল-বিল অনেকটা ভরাট হয়ে যাওয়ার কারণে কৃষকরা এখন পাটগাছ কাটার পর পচানোর প্রয়োজনীয় পানি পান না। এর ফলে এ উপজেলায় পাট চাষে আগ্রহ হারিয়ে ফেলছেন কৃষকরা।

সমকাল

Leave a Reply