স্বাভাবিক হয়নি শিমুলিয়া ঘাটের ফেরি চলাচল, পারাপারের অপেক্ষায় ১০ দিন ধরে ঘাটে আছে দুই শতাধিক পন্য বোঝাই ট্রাক

জসীম উদ্দীন দেওয়ান : পদ্মায় অব্যাহত নাব্য সংকটের কারণে স্বাভাবিক হয়নি মুন্সীগঞ্জের শিমুলিয়া থেকে মাদারীপুরের কাঁঠালবাড়ি পর্যন্ত নয় কিলোমিটারের নৌ পথটি। শিমুলিয়া ঘাটের পার্কিং ইয়ার্ডে আট থেকে ১০ দিন ধরে পারাপারের জন্য অপেক্ষায় রয়েছে দুই শতাধিক পন্য বোঝাই ট্রাক। আর পাঁচ দিন হয় ট্রাক ভরে ঘাটে অলস সময় কাটাতে দেখা যায় সাতটি ফেরি। পনের দিন যাবৎ এই নৌ পথে ফেরি চলাচল ব্যাহত হলেও, গেল রোববার পুরোপুরি বন্ধ হয়ে যায় ফেরি চলাচল। আর প্রাকৃতিকভাবে ছয় ফুট গভীরের সরু একটি পথ পেয়ে সোমবার থেকে সেই পথ ব্যবহার করে হালকা যানবাহন নিয়ে মাত্র পাঁচ- ছয়টি ফেরি চলাচল করে কোন রকমে ঘাট সচল রাখার চিত্রটি চোখে পড়ে।

বি আই ডব্লিউ টি এর শিমুলিয়া ঘাট সহকারী পরিচালক আলী আজগর জানান, লৌহজং টার্নি পয়েন্ট এবং বিকল্প রুটে আটটি ড্রেজিংয়ের সাহায্যে নদী খননের কাজ চলছে, অচিরেই ফেরি চলাচলের পথ তৈরী হবে বলে তিনি মনে করছেন। ঈদুল আযহার আর মাত্র কয়েকটা দিন বাকি, ঈদ যাত্রা নির্বিঘ্ন করতে কবে ফেরি চলাচলের পথ স্বাভাবিক হবে? এ প্রশ্নের সঠিক জবাব ছিলোনা তাঁর কাছে।

এ দিকে স্বাভাবিক যাত্রায় অনিশ্চয়তার ফলে শিমুলিয়া ঘাট থেকে অন্যত্র পাঠিয়ে দিয়েছেন পাঁচটি ফেরি, জানিয়ে বি আই ডব্লিউ টিসির শিমুলিয়া ঘাট উপ- মহা পরিচালক শাহ খালেদ নেওয়াজ জানান, নদীতে প্রচন্ড নাব্য সংকটের কারণে পুরানো রুট দুটো বন্ধ হয়ে গেছে। এখন সীমিত সংখ্যক হালকা জল যান চলছে প্রাকৃতিকভাবে পাওয়া নতুন সড়কটি দিয়ে। তবে আজ কালের মধ্যে ফেরি চলাচলের পথ স্বাভাবিক করতে না পারলে শেষের দিকে পরিস্থিতি মোকাবেলা করতে দারুন বেগ পেতে হবে তাদেরকে। এমন পরিস্থিতিতে শিমুলিয়া ঘাটে থাকা আট- দশ দিনের মাল বোঝাই ট্রাক চালক ও শ্রমিকরা ক্ষোভে ফেটে পড়ছে। তারা মালামাল নিয়ে নির্দিষ্ট সময়ে গন্তব্য পৌঁছাতে না পেরে যেমন আর্থিক ও সুনাম ক্ষুন্নে বিপাকে পড়েছে। তেম্নি প্রশাসন তাদের ঘাট ছেড়ে যেতে বলায় নতুন করে কষ্টের মোড় নিয়েছে বলেও জানান শত শত ট্রাক চালক ও শ্রমিকেরা। তারা যাতে স্বজনদের সাথে ঈদ উৎসবে মিলিত হতে পারে এই জন্য কেউ কেউ কান্না জড়িত কন্ঠে প্রধানমন্ত্রীর সাহায্য প্রার্থনাও করছেন।

Leave a Reply