লঞ্চ ও স্পিডবোট ঘাটে যাত্রীর ঢল

কাজী সাব্বির আহমেদ দীপু: নাব্য সংকটে ফেরি চলাচল ব্যাহত হওয়ায় দক্ষিণাঞ্চলের ঈদে ঘরমুখো ২১ জেলার যাত্রীদের ঢল নেমেছে শিমুলিয়া প্রান্তের লঞ্চ ও স্পিডবোট ঘাটে। দুর্ভোগ এড়াতে ঈদযাত্রায় যাত্রীরা বাসে আসছেন শিমুলিয়া ঘাটে। তারপর লঞ্চ ও স্পিডবোট দিয়ে পদ্মা পাড়ি দিয়ে যাচ্ছেন কাঁঠালবাড়ী ও মাঝিকান্দি ঘাটে। এরপর সেখানে থাকা যাত্রীবাহী বাস ও মাইক্রোবাসে করে যাত্রীরা রওনা হয়ে যাচ্ছেন নিজ নিজ গন্তব্যে। দুর্ভোগ থেকে বাঁচতেই যাত্রীরা লঞ্চ ও স্পিডবোট ব্যবহার করায় চাপ বৃদ্ধি পেয়েছে শিমুলিয়া-কাঁঠালবাড়ী নৌরুটের শিমুলিয়া প্রান্তের লঞ্চ ও স্পিডবোট ঘাটে।

অন্যদিকে নাব্য সংকট পুরোপুরি স্বাভাবিক না হলেও গতকাল শনিবার থেকে শিমুলিয়া-কাঁঠালবাড়ী নৌরুটে ১৩টি ফেরি দিয়ে যানবাহন পারাপার করা হচ্ছে। তবে ফেরিগুলোকে গন্তব্যে যেতে হচ্ছে ধীরগতিতে। ছোট, মিডিয়াম ও ডাম্প ফেরি সচল হলেও স্বাভাবিক পানিপ্রবাহ না থাকায় ৪টি রো রো ফেরি এখনও চালু করা যায়নি। সেগুলোকে রাখা হয়েছে নোঙরে। আর ডাম্প ফেরিগুলো সচল করা হলেও চ্যানেলের মুখে গিয়ে বাধাগ্রস্ত হয়ে চলাচলে ব্যাপক সমস্যা দেখা দিচ্ছে। আকারে বড় ও বেশিসংখ্যক যানবাহন পারাপার করার ধারণ ক্ষমতার রো রো ফেরিগুলো চলাচল করতে পারলে ঈদযাত্রায় বৃদ্ধি পাওয়া গাড়ির চাপ মোকাবেলায় বিআইডব্লিউটিসি নিশ্চিন্ত হতে পারত বলে সংশ্নিষ্ট সূত্র জানিয়েছে। ফলে নাব্য সংকট পুরোপুরি স্বাভাবিক না হওয়ায় নৌরুটের উভয় প্রান্তে ছোট-বড় যানবাহনের চাপ ছিল। গতকাল শনিবার বিকেলেও শিমুলিয়া প্রান্তে ৩ শতাধিক গাড়ি পারাপারের অপেক্ষায় ছিল। এর মধ্যে ছোট গাড়ির সংখ্যাই বেশি।

অন্যদিকে শিমুলিয়া ঘাটের পরিস্থিতি দেখতে গতকাল শনিবার পরিদর্শনে এসেছিলেন নৌপুলিশের ঢাকা রেঞ্জের ডিআইজি শেখ মুহাম্মদ মারুফ হাসান। তিনি শিমুলিয়া ঘাটে যাত্রীদের নির্বিঘ্নে নৌরুট পার হতে শুক্রবার থেকে মোতায়েন করা নৌপুলিশের সদস্যদের সঠিকভাবে দায়িত্ব পালন করার বিষয়ে তাগিদ দিয়ে যাত্রী হয়রানি দেখামাত্রই ব্যবস্থা নেওয়ারও নির্দেশ দেন। অন্যদিকে নাব্য সংকটে ফেরি চলাচল ব্যাহত হওয়ায় নৌরুট পারাপারে ঘাটে ঘণ্টার পর ঘণ্টা অপেক্ষা করতে হওয়ায় যাত্রীবাহী বাসগুলো শিমুলিয়া ঘাটে যাত্রী নামিয়ে দিয়ে আবারও ঢাকায় ফিরে যাচ্ছে। আর দুর্ভোগ এড়াতে ঈদে ঘরমুখো যাত্রীরাও বাসে শিমুলিয়া ঘাটে পৌঁছে লঞ্চ, স্পিডবোটে পদ্মা পাড়ি দিয়ে কাঁঠালবাড়ী ঘাটে যাচ্ছেন। এরপর তাদের সেখানে থাকা বাস ও মাইক্রোবাসে করে নিজ নিজ গন্তব্যে রওনা হয়ে যেতে দেখা গেছে।

বিআইডব্লিউটিসির শিমুলিয়া কার্যালয়ের এজিএম শাহ মো. খালেদ নেওয়াজ জানান, শনিবার সকাল থেকে নৌরুটে কে-টাইপ, মিডিয়াম, ডাম্প ফেরিসহ ১৩টি ফেরি চলাচল করছে। নাব্য সংকটের কারণে ৬টি ফেরি চালাতে সমস্যা দেখা দিচ্ছে। আর এখনও নোঙরে রয়েছে ৪টি রো রো ফেরি। এ ফেরিগুলো চলাচল করতে ৭ ফুট পানির গভীরতা প্রয়োজন হলেও নৌ-চ্যানেলে কোথাও সাড়ে ৫ ফুট কোথাও ৬ ফুট পানির উচ্চতা রয়েছে।

বিআইডব্লিউটিসির ব্যবস্থাপক আব্দুল আলীম জানান, আকারে বড় ও বেশিসংখ্যক যানবাহন লোড করার ধারণ ক্ষমতা সম্পন্ন ৪টি রো রো ফেরি চলাচল করতে পারলে ঈদযাত্রায় পারাপারে আসা গাড়ির চাপ থাকত না ঘাটে। তিনি জানান, নৌরুটে স্বাভাবিক পরিস্থিতিতে ২৪ ঘণ্টায় ২ হাজার থেকে ২ হাজার ২০০ গাড়ি পারাপার করা হয়। গত ২৪ ঘণ্টায় উভয় পাড় মিলিয়ে এক হাজার ৯৪০টি গাড়ি পারাপার করা সম্ভব হয়েছে। যাত্রীবাহী গাড়ি ও গরুবাহী ট্রাকগুলো অগ্রাধিকার ভিত্তিতে পারাপার করা হচ্ছে।

শিমুলিয়া ঘাটের ট্রাফিক পরিদর্শক মো. সিদ্দিকুর রহমান জানান, ঘাট এলাকায় আড়াই থেকে তিন শতাধিক যানবাহন পারাপারের অপেক্ষায় রয়েছে। এর মধ্যে ছোট গাড়র সংখ্যাই বেশি। ফেরি চলাচল স্বাভাবিক হলে ঈদযাত্রায় গাড়ির চাপ থাকবে না।

বিআইডব্লিউটিএর শিমুলিয়া কার্যালয়ের পরিদর্শক মো. সোলেমান জানান, শনিবার সকাল থেকেই যাত্রীর চাপ বৃদ্ধি পেয়েছে শিমুলিয়া ঘাটে। ফেরি চলাচল ব্যাহত হওয়ায় যাত্রীদের ঢল নেমেছে লঞ্চ ও স্পিডবোট ঘাটে। নৌরুটের ৮৭টি লঞ্চ ও সাড়ে ৩ শতাধিক স্পিডবোট দিয়ে যাত্রীরা নৌরুট পাড়ি দিয়ে গন্তব্যে চলে যাচ্ছেন।

সমকাল

Leave a Reply