পরিত্যক্ত ভবনে লেখাপড়া

ইমতিয়াজ উদ্দিন বাবুল: ১৯৪০ সালে প্রতিষ্ঠিত বিদ্যালয়ের ৪ কক্ষবিশিষ্ট ভবনটি কর্তৃপক্ষ পরিত্যক্ত ঘোষণা করেছে প্রায় ১০ বছর আগে। এর পরও ঝুঁকিপূর্ণ ভবনেই চলছে পাঠদান। সম্প্রতি শিক্ষার্থীদের মাথার ওপরে ছাদের পলেস্তারা খসে পড়ে ১২ জন ছাত্রছাত্রী আহতের ঘটনা ঘটেছে। বেরিয়ে পড়েছে ভবনের রড। তার পরও কর্তৃপক্ষের কোনো নজর নেই। এমন দুরবস্থা সিরাজদীখান উপজেলার বাসাইল ইউনিয়নের ৩৫নং গুয়াখোলা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের।

সরেজমিন স্টু্কলে গিয়ে দেখা গেছে, মেঝেতে উঁচু-নিচু গর্ত, রড বের হয়ে মরিচা পড়ে সরু হয়ে গেছে। জানালা-দরজা ভাঙা, পিলার ও দেয়ালে বড় বড় ফাটল, বৃষ্টি হলে ছাদ চুইয়ে পানি পড়ে। এর পরও ক্লাস হচ্ছে পরিত্যক্ত ওই ভবনেই। বৃষ্টি হলেই তাদের স্টু্কল ছেড়ে বাড়ি চলে যেতে হয়। বৃষ্টির পানি পড়ে বই-খাতা ভিজে যায়।

বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. আমানুল্লাহ জানান, ২০০ শিক্ষার্থী জীবনের ঝুঁকি নিয়ে পরিত্যক্ত ভবনে বাধ্য হয়ে ক্লাস করছে। বর্তমানে ভয়ে অনেক ছাত্রছাত্রী বিদ্যালয়ে আসতে চায় না। তবে বৃষ্টির সময় ছাদ চুইয়ে পানি পড়ার কারণে ক্লাস নেওয়া সম্ভব হয় না। তখন ছাত্রছাত্রীদের ছুটি দিয়ে দেওয়া হয়। কখন যে দুর্ঘটনার মধ্যে পড়তে হয় তা নিয়ে আশঙ্কায় আছেন তারা।

বিদ্যালয় পরিচালনা পরিষদের সভাপতি সামসুজ্জামান পনির বলেন, বিদ্যালয়ের নতুন ভবনের জন্য প্রায় ৭-৮ বছর ধরে কর্তৃপক্ষ বরাবর আবেদন জানিয়ে আসছি। ভবনের দুরবস্থার চিত্র বিভিন্ন প্রচারমাধ্যমে একাধিকবার প্রচারিত হয়েছে। কর্তৃপক্ষ তদন্তে এসে এর সত্যতাও পেয়েছে। তার পরও রহস্যজনক কারণে নতুন ভবন হচ্ছে না। অথচ উপজেলায় অনেক বিদ্যালয় আছে, যেখানে এই বিদ্যালয়ের চেয়ে ছাত্রছাত্রী কম।

এ ব্যাপারে সিরাজদীখান উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা মো. বেলায়েত হোসেন জানান, এ বিদ্যালয়ের একটি নতুন ভবন অত্যন্ত জরুরি। ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ বরাবর তালিকা পাঠিয়েছি। বরাদ্দ পেলে কাজ করা হবে।

সমকাল

Leave a Reply