সারাদেশে স্মার্ট কার্ড বিতরন চলছে: কার্ড হারানো বাবদ প্রায় পাঁচ শত কোটি টাকা আদায় হবে

চেতনায় একাত্তর।। সারাদেশে স্মার্ড কার্ড বিতরন কার্যক্রম অব্যাহত আছে,এই প্রক্রিয়ায় মুন্সিগঞ্জবাসীও আনন্দ উৎসবের মধ্যদিয়ে নিজ নিজ স্মার্ট সময়মত সংগ্রহ করছে। তবে যারা তাদের জাতীয় পরিচয়পত্র হারিয়ে ফেরছেন, তাদের কিছুটা সমস্যায় পড়তে হচ্ছে, নিয়ম অনুযায়ী পুরাতন কার্ডটি জমাদিয়ে নতুন কার্ড নিতে হয়। এই ক্ষেত্রে যারা কার্ড হারিয়েছেন তাদের নিদিষ্ট বুথে প্রায় ৩৭০.০০ (তিন শত সত্তর) টাকা জমা দিয়ে ছিলিপ গ্রহন করতে হয়, এবং টাকা জমার ছিলিপ দেখিয়ে নতুন কার্ড নিতে হয়। সারা দেশে প্রায় ১৮ বছরের উর্ধ বয়সের নাগরিকরা স্মার্ট পাচ্ছে, দেশের মোট জনসংখ্যা প্রায় সতর কোটি,এই হিসাবে প্রায় ১২ কোটি নাগরিক স্মার্ট কার্ড পাবে, ১২ কোটি নাগরিকের মধ্যে প্রায় ১২% থেকে ১৫% নাগরিক তাদের জাতীয় পরিচয় পত্র হারিয়ে ফেলেছেন, যাদের সংখ্যা সংখ্যা প্রায় দুই কোটি। এই দুই কোটি নাগরিককে জনপ্রতি ৩৭০.০০(তিনশত সত্তর) টাকা করে জমা দিতে হচ্ছে। এই দুই কোটি নাগরিকের জমাকৃত টাকার মোট পরিমান দাড়ায় প্রায় ৭০০(সাতশত) কোটি টাকা। এই সাত শত কোটি টাকা যাতে নির্বাচন কমিশনের ফান্ডে যথাযথভাবে জমা হয়, কোন রকম অনিয়ম না হয় এবং জমাকৃত টাকার প্রকৃত হিসাব যেন দেশবাসীকে অবহিত করা হয় সংশ্লিষ্ট নাগরিকগন সেটাই প্রত্যাসা করে।




তবে এই ক্ষেত্রে অনেক দরিদ্র লোক আছে, যারা কার্ড হারিয়ে ফেলেছেন অথচ ৩৭০.০০(তিনশত সত্তর) টাকা জমা দেওয়ার সমর্থ নাই, তাহলে তারা কি স্মার্ট কার্ড বঞ্চিত থেকে যাবেন, সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের অবশ্যই বিষয়টি নিয়ে ভেবে দেখা দরকার বলে অনেকে মনে করেন।

শান্তিপুন্নভাবে স্মার্ট কার্ড বিতরণ বিষয় মিরকাদিম পৌর সভার মেয়র শহীদুল ইসলাম শাহীন সার্বক্ষনিকভাবে পৌর কার্যালয়ে অবস্থান নিয়ে নাগরিকদের দেখবাল করছেন, প্রয়োজনমত সহযোগিতা করছেন, স্মার্ট কার্ডবিতরনের দায়িত্বপ্রাপ্ত সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের চাহিদামতে পৌরসভার লোকবল দিয়ে সহায়তা প্রদান করছেন।

অনেক ক্ষেত্রে পৌরসভার অসহায় দরিদ্র নাগরিক,যাদের পরিচয়পত্র হারানো গেছে,তাদেরকে আর্থিকভাবে সহায়তা করতেও দেখা যায়, নাগরিকদের স্বতস্ফুর্তভাবে কার্ড সংগ্রহের উৎসাহ ও উদ্দিপনা দেখে উপলব্ধি করা যায় আমাদের নাগরিক জীবনের স্মার্ট কার্ডের গুরুপ্ত কতো অপরিসীম।

Leave a Reply