টঙ্গিবাড়ীতে সাজানো মামলায় বৃদ্ধ শহিদের কারাবাস, অতঃপর ফাঁসানোর চেষ্টা

মোজাম্মেল হোসেন সজল : জমিসংক্রান্ত বিরোধের বিষয়ে মামলা করায় নিরীহ এক বৃদ্ধকে সাজানো চুরির মামলা দিয়ে আটক এবং জামিনে মুক্ত হওয়ার পর নানা ভয়ভীতি ও আবারও মামলার চেষ্টায় হয়রাণি করার অভিযোগ উঠেছে।

এ অবস্থায় নিরুপায় বৃদ্ধ মো. শহিদ মুন্সী (৫৫) নিরাপত্তা চেয়ে থানায় জিডি এবং গত ৩রা সেপ্টেম্বর জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপারের কাছে ঘটনার তদন্তপূর্বক আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়ার জন্য লিখিত আবেদন করেছেন। ভুক্তভোগি শহিদ মুন্সী জেলার টঙ্গিবাড়ী উপজেলার পাইকপাড়া ইউনিয়নের দক্ষিণ পাইকপাড়া গ্রামের মৃত আব্দুর রব মুন্সীর ছেলে।

লিখিত আবেদনে শহিদ মুন্সী বলেছেন, দক্ষিণ পাইকপাড়া গ্রামের শহিদ মুন্সী ও তার সৎভাই হালিম মুন্সীর মধ্যে জমিজমা ও পারিবারিক বিষয়াদি নিয়ে বিরোধ চলছে। এ ঘটনায় শহিদ মুন্সী বাদী হয়ে টঙ্গিবাড়ীর সিনিয়র সহকারী জজ আদালত, মুন্সীগঞ্জে একটি মামলা করেন (দেওয়ানি মোকদ্দমা নং-১৫/১৬)।এই মামলা প্রত্যাহার এবং মামলার স্বাক্ষী না দেওয়ার জন্য হুমকি প্রদান করে।

এরপর আদালতে মামলার ধার্য তারিখে স্বাক্ষী দিতে বাঁধা সৃষ্টি করে এবং টঙ্গিবাড়ী থানায় গত ৫ ই আগস্ট দিবাগত রাত ২টায় শহিদ মুন্সী ও প্রতিবেশি তোফাজ্জল ম-ল হালিম মুন্সীর বাড়িতে প্রবেশ করে কয়েকভরি স্বর্ণালংঙ্কার, নগদ ৭ লাখ ৩০ হাজার টাকা, টিভি, মোবাইলসহ ১৩ লাখ ৫২ হাজার টাকার মালামাল চুরি করে নিয়ে যায় বলে ওই দুইজনকে আসামি করে ৭ ই আগস্ট হালিম মুন্সীর ছেলে মো. শাকিল বাদী হয়ে টঙ্গিবাড়ী থানায় মামলা দায়ের করে। মামলা নং-০৫, ধারা : ১৪৩/৫৮/৩২৩/৩২৫/৪৮০/ দন্ডবিধি।

এই মামলায় গত ১০ ই আগস্ট শহিদ মুন্সীকে টঙ্গিবাড়ী থানার পুলিশ গ্রেপ্তার করে আদালতে পাঠায়। এরপর স্থানীয় আব্দুল্লাপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. আব্দুর রহিম ১৬ ই আগস্ট এক প্রত্যয়নপত্রে বৃদ্ধ শহিদ মুন্সী ও হালিম মুন্সীর মধ্যে জমিজমা সংক্রান্ত বিরোধ এবং শহিদ মুন্সী এলাকার একজন শান্তিপ্রিয় লোক বলে জানালে আদালত ২০ শে আগস্ট শহিদ মুন্সীকে জামিন দেন। জামিনে মুক্ত হয়ে শহিদ মুন্সী বাড়িতে এলে থানা ও আদালতের দালাল হিসেবে পরিচিত আব্দুল্লাপুরের কতিপয় জামাল মন্ডলের সহায়তায় হালিম মুন্সী ও তার ছেলে শাকিল মুন্সী আবারও ষড়য়ন্ত্র শুরু করে।

শহিদ মুন্সী আরও জানান, বিরোধীয় সম্পত্তিতে গত ২৯ শে আগস্ট দিবাগত রাতে মৎস্য চাষরত পুকুরে বিষ প্রয়োগ করে সমস্ত মাছ নিধন করে উল্টো তাকে ফাঁসানোর চেষ্টা করে আসছে। এ ঘটনায় এবং জীবনের নিরাপত্তা চেয়ে গত ২ রা সেপ্টেম্বর শহিদ মুন্সী বাদী হয়ে টঙ্গিবাড়ী থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করেছেন। যার নম্বর-৭২/১৮। জীবনের নিরাপত্তা, বড় ধরণের ক্ষতির সম্মুখিন হওয়ার আশঙ্কা ব্যক্ত করে শহিদ মুন্সী জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপারের কাছে লিখিত অভিযোগে ঘটনার তদন্তপূর্বক আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়ার দাবি জানিয়েছেন।

ব্রেকিং নিউজ

Leave a Reply