জাতীয় শোক দিবসে টোকিও দূতাবাসের আয়োজন

রাহমান মনি: জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বপ্ন বাস্তবায়নের মধ্য দিয়ে সুখি ও সমৃদ্ধশালী সোনার বাংলা গড়ার দীপ্ত অঙ্গীকারে টোকিওতে যথাযোগ্য মর্যাদায় পালিত হয়েছে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৩তম শাহাদতবার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস।

এভাবেই দীপ্ত শপথ নিয়ে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়েছেন বাংলাদেশ দূতাবাসের মান্যবর রাষ্ট্রদূতের নেতৃত্বে জাপান প্রবাসী বাংলাদেশিরা। দূতাবাসের সব কর্মকর্তা ও কর্মচারীবৃন্দ, বিভিন্ন সামাজিক, সাংস্কৃতিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত থেকে শ্রদ্ধা অর্পণে অংশ নেন। উল্লেখযোগ্যসংখ্যক সুহৃদ জাপানি অতিথিবৃন্দ দূতাবাসের ডাকে আমন্ত্রিত হয়ে প্রবাসীদের সঙ্গে অংশ নেন।

দূতাবাস আয়োজিত অনুষ্ঠানমালার মধ্যে ছিল, জাতীয় পতাকা আনুষ্ঠানিক অর্ধনমিতকরণ, জাতির জনক ও শাহাদতবরণকারী তার পরিবারের সদস্যদের স্মরণে এক মিনিট নীরবতা পালন, বিশেষ মোনাজাত, জাতির জনক এর প্রতিকৃতিতে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ, বঙ্গবন্ধুর জীবন ও কর্মের ওপর প্রামাণ্যচিত্র প্রদর্শন, দিবসটি উপলক্ষে বাংলাদেশের মহামান্য রাষ্ট্রপতি, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, পররাষ্ট্রমন্ত্রী, পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী কর্তৃক প্রদত্ত বাণীসমূহ পাঠ, মান্যবর রাষ্ট্রদূত কর্তৃক বক্তব্য প্রদান এবং জাতীয় শোক দিবসের তাৎপর্য, বঙ্গবন্ধুর কর্মময় জীবন ও স্বাধীন বাংলাদেশের অভ্যুদয়ে তার অসামান্য অবদানের উপর আলোচনা সভা।

শোক দিবসের অনুষ্ঠানের শুরুতেই দূতাবাসের সকল কর্মকর্তা-কর্মচারীকে নিয়ে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে ফুলেল শ্রদ্ধা জানান রাষ্ট্রদূত ফাতিমা, পরে উপস্থিত জাপানি নাগরিক ও প্রবাসী বাংলাদেশিরা সারিবদ্ধভাবে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ করেন।

দূতাবাস মিলনায়তন বঙ্গবন্ধু অডিটরিয়ামে আয়োজিত আলোচনা সভায় রাষ্ট্রদূত রাবাব ফাতিমা তার বক্তব্যে বলেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হলেন বাঙালি জাতির মুক্তির স্বপ্নদ্রষ্টা, স্বাধীনতার রূপকার, অবিসংবাদিত অকুতোভয় নেতা, যার বলিষ্ঠ নেতৃত্বে ১৯৭১ সালে সমগ্র জাতি ঐক্যবদ্ধ হয়ে দীর্ঘ নয় মাসের রক্তক্ষয়ী যুদ্ধের মাধ্যমে বাংলাদেশকে স্বাধীন করেছিল। তিনিই যুদ্ধ-পরবর্তী বাংলাদেশের অবকাঠামো গঠনে অসাধারণ সাফল্য অর্জন করেছিলেন, অতি দ্রুততম সময়ে জাপানসহ পৃথিবীর বিভিন্ন দেশের স্বীকৃতি আদায় ও তাদের সঙ্গে কূটনৈতিক সম্পর্ক স্থাপন করতে পেরেছিলেন। রাষ্ট্রদূত আরও বলেন, আজ বঙ্গবন্ধু আমাদের মাঝে নেই, কিন্তু তার স্বপ্ন ও নির্দেশনা আমাদের পথ চলার অনুপ্রেরণা হিসাবে কাজ করছে। তার দেখানো পথ ধরেই তার সুযোগ্য কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আজ বাংলাদেশের অর্থনৈতিক মুক্তির পথে এগিয়ে চলেছেন। আমাদের সকলের কর্তব্য হচ্ছে প্রধানমন্ত্রীর ভিশন ’২১ বাস্তবায়নে সহযোগিতা করা।

দিবসটি উপলক্ষে বাংলাদেশের মহামান্য রাষ্ট্রপতি, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, পররাষ্ট্রমন্ত্রী, পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী কর্তৃক প্রদত্ত বাণীসমূহ পাঠ করে শোনান যথাক্রমে দূতাবাসের ইকোনমিক মিনিস্টার ড. সাহিদা আক্তার, কমার্স কাউন্সেলর মোহাম্মদ হাসান আরিফ, দূতাবাস কাউন্সেলর ড. জিয়াউল আবেদিন এবং প্রথম সচিব (শ্রম) মো. জাকির হোসেন।

দিবসটির তাৎপর্যে উন্মুক্ত আলোচনায় অংশ নিয়ে আওয়ামী লীগ জাপান শাখার সভাপতি সালেহ মো. আরিফ বলেন, ১৫ আগস্ট আসলে মুজিবকোট গায়ে দিয়ে হায় মাতম করলে হবে না, জাতির পিতার আদর্শ বুকে ধারণ করে আত্মশুদ্ধি করে তার স্বপ্নের সোনার বাংলাদেশ গড়ার কাজে ঝাঁপিয়ে পড়তে হবে।
জাপানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের, সাউথ-ওয়েস্ট এশিয়া বিভাগের পরিচালক ইয়োশিদা শোগো বঙ্গবন্ধুর স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা জানান এবং আলোচনায় অংশ নিয়ে জাপান-বাংলাদেশ দ্বিপক্ষীয় সম্পর্কের ওপর আলোকপাত করেন।

অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন দূতাবাসের প্রথম সচিব এবং দূতালয় প্রধান মোহাম্মদ জোবায়েদ হোসেন।

rahmanmoni@gmail.com

সাপ্তাহিক

Leave a Reply