স্বামী–স্ত্রীর বিরোধের স্থায়ী মিমাংসায় পুলিশ

আবু হানিফ রানা। মুন্সীগঞ্জে দীর্ঘ ২ বছর স্বামী – স্ত্রীর বিরোধের স্থায়ী মিমাংসা করে দিলেন মুন্সীগঞ্জ জেলা পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ (ক্রাইম ও প্রশাসন) মোহাম্মদ মোস্তাফিজুর রহমান। মুন্সীগঞ্জ জেলার টঙ্গীবাড়ি উপজেলার আউটশাহী ইউনিয়নের বলই গ্রামের জাহাঙ্গীর হোসেনের ছেলে জনি শেখ বিয়ে করেন আড়িয়ল ইউনিয়নের আড়িয়ল গ্রামের মনির হোসেনের মেয়ে লাকি আক্তার কে। বিয়ের পর একটি পুত্র সন্তান হয়, তার নাম ফাহিম বয়স ৮ বছর দীর্ঘ ২ বছর ধরে স্বামী স্ত্রীর মাঝে বিরোধ সৃষ্টি হয়, লাকি আক্তার তার স্বামী জনির বিরোদ্ধে আদালতে মামলা দায়ের করিলে জনি ১ মাস ৬ দিন জেল হাজতবাস করে জামিনে মুক্তি পায়,লাকি বেগম জেলা প্রশাসকের বরাবর অভিযোগ করেন ।

জেলা প্রশাসক সায়লা ফারজানা বলেন তোমরা অতিরিক্ত পুলিশ সুপারের কাছে যাও তিনি ইতিপূর্বে অনেক সমস্যার সমাধান করে দিয়েছেন। আমি তাকে বলে দিব। এই বলে তিনি লাকি আক্তার কে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোহাম্মদ মোস্তাফিজুর রহমানের কাছে পাঠান এবং টেলিফোনে বলেন, বিষয়টি একটু দেখার জন্য অতিরিক্ত পুলিশ সুপার অনুরোধ করেন।

অতিরিক্ত পুলিশ সুপারের কাছে গেলে বিস্তারিত শুনে লাকি আক্তার ও তার মাকে বলেন পুলিশ সুপার বরাবর একটি অভিযোগ করার জন্য, এরপর লাকি বেগম বাদী হয়ে পুলিশ সুপার বরাবর অভিযোগ করিলে পুলিশ সুপার মোহাম্মদ জায়েদুল আলম পিপিএম এর নির্দেশে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোহাম্মদ মোস্তাফিজুর রহমান নিজ উদ্দ্যেগে ডিবি পুলিশের সাব ইন্সপেক্টর আঃ সালাম কে দিয়ে নোটিশ এর মাধ্যমে দু পক্ষকে ডাকিয়ে এনে কয়েক দফা শালীশি দরবার করেন। সোমবার ১০ সেপ্টেম্বর সকাল ১১ টার সময় আবার দু পক্ষকে নিয়ে শালীশির মাধ্যমে দীর্ঘ দিনের বিরোধের স্থায়ী মিমাংসা করে দেন ।

এসময় উপস্থিত স্থানীয় শিপন মিয়া বলেন আমি আউটশাহী ইউপির একজন মেম্বার অনেক শালীশ দরবার করেছি কিন্তু অতিরিক্ত পুলিশ সুপার স্যারের মত সুষ্ট, দক্ষ বিচারক দেখিনি কোনদিন। লাকির আক্তারের শশুর জাহাঙ্গীর হোসেন বলেন, আমার ছেলের সংসারটা ভেঙ্গে গিয়েছিল স্যার আমাদের কে নিয়ে তাহার অফিসে কয়েকবার বসারপর আজ স্থায়ী মিমাংসা করে দিয়ে আমাদের পরিবারের ৫ জন লোককে বাঁিচয়েছেন এই সমাধানের মাধ্যমে আমি ও আমার পরিবার ওনার কাছে চিরদিন কৃতজ্ঞ থাকিব আর যতদিন বাচঁব স্যারের জন্য নামাজ পড়ে খোদার কাছে দোয়া করব।

ছেলে – মেয়ে দ’জনেরই অভিবাবক হিসেবে দ্বায়িত্ব নেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোহাম্মদ মোস্তাফিজুর রহমান। লাকি আক্তার ও তার স্বামী জনি শেখ অতিরিক্ত পুলিশ সুপারকে বাবা বলে ডাকে এবং পায়ে সালাম করে দোয়া নেন। এসময় লাকি আক্তার ও তার শশুর বাড়ির লোকজন আনন্দে কোলা কোলি করেন। উভয় পরিবারের মাঝে শান্তি ফিরে আসে, এসময় ৮ বছরের শিশু ফাহিম কান্না করে বলে স্যার আপনি আমার বাবাকে আমার কাছে ফিরিয়ে দিয়েছেন।

অভিযোগকারী লাকি আক্তার বলেন, আমি আরো দুই বছর আগে যদি পুলিশ অফিসে এসে অভিযোগ করতাম তাহলে আমার জীবন থেকে ২ টি বছর হারিয়ে যেতনা, আমাদের সংসারে এই সুখ শান্তি বহাল থাকত। আমি স্যারের ন্যায় বিচারে খুব খুশি হয়েছি এবং স্যারকে বাবা বলে ডেকেছি, আজ থেকে তিনিই আমার অভিবাবক। অমি নামাজ পড়ে আল্লাহর কাছে মোনাজাত করে একটি আবেদন করব তিনি যেন তাহাকে সুখ শান্তিতে রাখেন। মুন্সীগঞ্জ জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোহাম্মদ মোস্তাফিজুর রহমানের এই মূহতি চেষ্টায় মিমাংসা হলো দুটি পরিবারে দীর্ঘদিনের বিরোধ, স্বামী ফিরে পেল তার স্ত্রী,সন্তান আর স্ত্রী ফিরে পেল তার স্বামী সংসার। শিশু ফাহিম ফিরে পেল তার বাবা- মায়ের আদর । বাবা মাকে পেয়ে শিশু ফাহিম ভীষন খুশি।

সংবাদ ২৪

Leave a Reply