হাসপাতালে গৃহবধূর লাশ রেখে পালাল শ্বশুরবাড়ির লোকজন

মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে শারমিন বেগম (২৬) নামের এক গৃহবধূর লাশ রেখে শ্বশুর বাড়ির লোকজন পালিয়েছে। গৃহবধূকে বৃহস্পতিবার মেয়ে পক্ষের লোকজন জানতে পেয়ে মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালের মর্গে এসে এ অভিযোগ করেন। এর আগে বুধবার দুপুর আড়াইটার দিকে ওই ঘটনা ঘটে।

নিহতের পরিবারের দাবি, শারমিনকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করে লাশ হাসপাতালে রেখে শ্বশুর বাড়ির লোকজন পালিয়েছে।

হাসপাতাল সূত্রে জানা যায়, বুধবার আড়াইটার দিকে মৃত অবস্থায় গৃহবধূর লাশ হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়। সাথে গুরুতর অসুস্থ আড়াই বছরের এক মেয়েও ছিল। তাৎক্ষণিকভাবে মেয়েকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে।

ওই সময় নিহতের দেবর সালাম দেওয়ান জানিয়েছেন, মা ও মেয়ে সাপ তাড়ানোর ওষুধ খেয়ে ফেলেছে।

সিরাজদিখান উপজেলার রশুনিয়া ইউনিয়নের আবির পাড়া গ্রামের দীন ইসলামের বড় মেয়ে শারমিন বেগম। ২০১১ সালে টঙ্গিবাড়ি উপজেলার মারিয়ল গ্রামের রাজ্জাক দেওয়ানের ছেলে আলম দেওয়ানের সাথে তার বিয়ে হয়।

নিহত শারমিনের খালু জহিরুল হক অভিযোগ করেন, বিয়ের পর থেকে শারমিনকে শ্বশুরবাড়ির লোকজন বিভিন্ন ধরনের নির্যাতন করতো। প্রতিবাদ করলে ছোট মেয়ে আইভিকে মেরে ফেলার হুমকি-ধামকি দিতো। এখনো পর্যন্ত আইভির খোঁজ জানা যায়নি।

তিনি বলেন, শারমিনকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করা হয়েছে। তাই লাশ রেখে হাসপাতাল থেকে পালিয়েছে তার শ্বশুরবাড়ির লোকজন।

মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালের কর্তব্যরত ডা. শৈবাল বশাক জানান, মৃত অবস্থায় একটি মেয়েকে নিয়ে আসা হয়। আর অসুস্থ অবস্থায় একটি শিশুকে আনা হয়। শিশুটিকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে।

তিনি বলেন, শিশুটিকে আইসিইউতে রাখতে হবে তা নাহলে বাঁচানো মুশকিল।

এ বিষয়ে টঙ্গিবাড়ি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা শাহ মো. আওলাদ হোসেন বলেন, আমরা শুনেছি এমন একটি ঘটনা ঘটেছে। এটা হত্যা না আত্মহত্যা ময়নাতদন্ত রিপোর্ট শেষে বলা যাবে।

তিনি বলেন, পরিবারের পক্ষ থেকে এখনো কোনো লিখিত অভিযোগ আসেনি। অভিযোগ পেলে তদন্ত সাপেক্ষে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

পরিবর্তন

Leave a Reply