টঙ্গীবাড়িতে পদ্মার গর্ভে বিলীন হচ্ছে বসতভিটা : আবারও ভাঙন আতঙ্ক

পদ্মা নদীর ভাঙনে বিলীন হয়ে যাচ্ছে মুন্সীগঞ্জের টঙ্গীবাড়ি উপজেলার দিঘীরপাড় ইউনিয়নের হাইয়ারপাড় গ্রামের হতদরিদ্র মানুষের বসতভিটা। বিগত তিনবছর যাবত নীরবে পদ্মার গর্ভে চলে যাচ্ছে এই গ্রামটি। প্রতিদিন কয়েক শতাংশ করে জমি ও বসতভিটা পদ্মার গর্ভে হারিয়ে গেলেও দেখার কেউ নেই। বিগত তিনবছর ধরে নিয়মিত ঘনবসতিপূর্ণ এই গ্রামটি ভেঙে যাওয়ার পরও গ্রাম রক্ষায় সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ কোন ধরনের পদক্ষেপ গ্রহণ না করায় ক্ষোভ প্রকাশ করেন ভাঙন কবলিতরা।

এ বছর ইদ্রিস হালদার, সাহা-আলম হালদার, ইকবাল হালদার, মিন্টু হালদার, সুমন হালদার, আবু বাক্কার হালদার, মহিউদ্দিন হালদার, সূর্যত আলি বেপারিসহ গতবছর করিম হালদার, রহিম হালদারসহ প্রায় ২২ জনের বসতভিটা ও আবাদি জমি নদী গর্ভে বিলীন হয়ে যায়।

এছাড়াও হাইয়ারপাড়, মিতারা, বাঘবাড়ি, মূলচর, দিঘীরপাড় বাজার, পূর্বরাখিসহ আশেপাশের কয়েকটি গ্রাম নদী ভাঙনের আতঙ্কে রয়েছে।

স্থানীয়রা জানান, ক্ষমতাশীল এক ব্যক্তি (গ্রামবাসীর অনুরোধে নাম প্রকাশ করা হচ্ছে না) সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ থেকে বাঁধ নির্মাণ করে দেওয়ার ব্যবস্থা করে দিবেন বলে আশ্বাস প্রদান করেন এবং গ্রামের খেঁটে খাওয়া সাধারণ মানুষের থেকে প্রায় ১১ লাখ টাকা উত্তোলন করেন। নদীর গর্ভে গ্রামটির একাংশ বিলীন হয়ে যাবার পরও নদীর তীরে এই পর্যন্ত বাঁধ নির্মাণের কোন উদ্যোগ নেওয়া হয়নি। কবে হবে তা নিয়ে সঙ্কিত গ্রামবাসী।

স্থানীয়রা আরও জানান, অপরিকল্পিত ও অবৈধ ভাবে হাইয়ারপাড় পদ্মা নদীতে ড্রেজিং এর ফলে পদ্মা নদীর তীরে ভাঙন দেখা দিয়েছে। নদীতে অবৈধ বালু উত্তোলনের কারণে পদ্মা নদীর তীব্র শ্রোত তীরে এসে আঘাত করছে , আর এতে ভাঙনের সৃষ্টি হচ্ছে বলে জানান তারা।

দিঘীরপাড় ইউপি চেয়ারম্যান আরিফুল ইসলাম হালদার জানান, কিছুদিন যাবত আবারও ভাঙনের দেখা দিয়েছে। আমি নদী ভাঙন এলাকা ঘুরে দেখেছি। এখনও তেমন কোন পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়নি।

এ বিষয়ে টঙ্গীবাড়ি উপজেলা নির্বাহী অফিসার হাসিনা আক্তার বলেন, এ বিষয়ে স্থানীয় চেয়ারম্যান আমাকে এখনও অবগত করেনি। আপনার মাধ্যমে আমি প্রথম জানতে পেলাম। যত দ্রুত সম্ভব খবর নিয়ে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করব।

দৈনিক অধিকার

Leave a Reply