মানুষ ও দেশ – জসীম উদ্দীন দেওয়ান

আমি হাঁটতে শিখেছি সেই কবে। বলতে শিখেছি বহু আগে ভাগে।
দেখেছি মায়ের নি:স্বার্থ আদর, আর সন্তানের প্রতি বাবার বুক থেকে মেলা ধরা দায়িত্বরত চাদর।
দেখেছি সমাজের রন্ধে রন্ধে নির্যাতন, নীপিড়নের মহা গ্রাস।
দেখেছি সোনার বাংলার সর্বনাশ।
আমি কি বলতে পেরেছি কিছু?
নাকি নিজেকে বড্ড অসহায় ভেবে ধুমরে, মুছরে কেঁদেছি বেদনায় পরে পিছু।
আমিতো হাঁটতে শিখেছি কতো যুগ আগে,, আর বলতে শিখেছি তাও আগে ভাগে।।
দেখেছি যৌতুকের বলি কতো গৃহবধূ।
দেখেছি অত্যাচার চালিয়ে পার পাওয়া সমাজপতিদের কৌশলী জাদু।
দেখেছি প্রশাসনের খোলস পরা নীতি,
দেখেছি যুব সমাজ ধ্বসে পরার মহা প্রীতি।
দেখেছি বৃদ্ধ বাবা মায়ের আর্তনাদ,
দেখেছি অতীত ভুলে ধ্বংস হয়ে যাওয়া মানুষ জাত।
আমি কি বলতে পেরেছি এতো টুকু কিছু?
নাকি অম্নি করে হজম করেছি, ছুটেছি ওসবের পিছু।
আমি দেখেছি কীর্তিনাশা মাতাল নদীর তরঙ্গ।
দেখেছি ভেঙ্গে নিয়ে যাওয়া বর্তমান পদ্মার যতো রঙ্গ।
আমি দেখেছি সব হারাদের হা হুতাশ হা হুতাশ।
আমি দেখেছি লাখো গৃহহীনদের পথ পথে বাস।
আমি হাঁটতো শিখেছি কতো যুগ আগে,
বলতে শিখেছি তারও আগে ভাগে।
বলতে পারেনি তবু দেখেছি দুচোখে,
জ্বলে মরেছি কষ্ট বেঁধে বুকে।
আরো জ্বলবো বুঝি যুগ যুগ ধরে,
মানুষ আর দেশটা যতো দিন, ভাববো আপন করে…

Leave a Reply