বজ্রযোগিনী স্কুলের ২জন ছাত্রীকে ব্লাকমেইল করে ধর্ষণ করার অভিযোগ

ধর্ষক সাইফুল পলাতক
বজ্রযোগিনী স্কুলের ২জন ছাত্রীসহ একাধিক মেয়েকে ব্লাকমেইল করে ধর্ষণ করার অভিযোগ পাওয়া গেছে: ধর্ষক সাইফুলকে আইনের আওতায় না দিয়ে পালাতে সহযোগিতা করেছে বজ্রযোগিনী চেয়ারম্যান তোতা মিয়া মুন্সী।

২ জন ছাত্রীকে ধর্ষণ করার প্রতিবাদে মুন্সিগঞ্জ সদরের বজ্রযোগিনী জে কে উচ্চ বিদ্যালয়ে এক ঘন্টার প্রতীকী ধর্মঘট পালন করা হয়েছে। সোমবার (২৪ সেপ্টেম্বর) বিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা এ প্রতীকী ধর্মঘট পালন করে।

এ সময় ধর্ষক সাইফুল ইসলামের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবী করা হয় এই অনশন থেকে। টঙ্গীবাড়ি থানা সূত্রে জানা যায়, এই ঘটনায় দুটি থানায় মুন্সিগঞ্জ সদর ও টঙ্গীবাড়িতে মামলা দায়ের করা হয়েছে। এই ঘটনার সাথে জড়িত দুইজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। গ্রেফতারকৃতরা হলো আবু বকর (৩৫), নাজমুল হোসেন ২৩)। মুল আসামী সাইফুল ইসলাম পলাতক রয়েছে।

বিচারে উপস্থিত অধিকাংশ লোকজনই চেয়ারম্যানের ভূমিকাকে দায়ী করেছেন। সে ইচ্ছা করলে সাইফুলকে পুলিশে ধরিয়ে দিতে পারত। কিন্তু সে তা না করে পালিয়ে যেতে সাহায্য করেছেন।

ধর্ষিতা মেয়েরা স্কুলের প্রধান শিক্ষক বরাবর ও ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান বরাবর অভিযোগ দেওয়ার পরও কেন বিচার হলো না? এখনো কেন আসামী গ্রেফতার করা হলো না ভাবিয়ে তুলেছে বজ্রযোগিনী এলাকাবাসীকে। চাইনিজ রেষ্টুরেন্ট মানেই হলো অশ্লিলতা ও বেহায়াপনা। এগুলো বন্ধ হওয়া উচিত বলে মনে করছেন স্কুলের অভিভাবকগণ।

নির্ভরযোগ্য সূত্র থেকে জানা যায়, বিদ্যালয়ের অষ্টম শ্রেণির ২জন শিক্ষার্থীকে বজ্রযোগিনী গুহ পাড়া গ্রামের মৃত ইদ্রিস আলী মোল্লার ছেলে সাইফুল ইসলাম স্কুলে আসা যাওয়ার পথে ছবি তুলে ব্লাক মেইল করে যৌন নির্যতান (রেফ) করে। এই ঘটনায় ইউনিয়ন পরিষদে এক বিচার সালিশে যৌন নির্যাতনের হোতা সাইফুল ইসলামকে সামান্য মারধর করে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে বলে অভিযোগ করেছে স্কুলটির একাধিক শিক্ষার্থী ও বিচারে আসা একাধিক সাধারণ লোক।

বিষয়টি তদন্ত করে জানা যায়, সাইফুল ইসলাম ইতোমধ্যে ৩-৪টি বিবাহ করেছেন। তার কাজই মেয়েদের ব্লাক মেইল করে বিভিন্ন জায়গায় প্রেমের আড্ডা দিতে নিয়ে রেফ করে। অভিযোগকারী ২জন শিক্ষার্থীরা ছাড়া আরো ২ থেকে ৩জন স্কুল শিক্ষার্থীর সাথে ব্লাক মেইলীং করে রেফ করেছে। আরো অনেক মেয়ের সাথে আলাপ কালে জানা যায়, স্কুলে যাওয়ার আসার সময় মেয়েদের ছবি তুলে রাখে পরবর্তীতে এডিট করে খারাপ ছবির সাথে মেয়ের মাথা লাগিয়ে মেয়েকে দেখায় যে, এই ছবি ফেইসবুকে ছেড়ে দেব।

তার সাথে প্রেম করতে হবে অন্যথায় এগুলো ইন্টারনেটে ছেড়ে দেওয়া হবে। টঙ্গীবাড়ির কাজী মার্কেটের ৪র্থ তলায় ৯ সেপ্টেম্বর এক ছাত্রীকে নিয়ে ধর্ষণ করে। পরবর্তীতে ২২ সেপ্টেম্বর অপর একজন শিক্ষার্থীকে একই কায়দায় ফুসলিয়ে সিপাহীপাড়া ইয়াম্মি চাইনিজ রেষ্টেুরেন্টে ধর্ষিতা হয়। মেয়েদের ধর্ষণ করার নিরাপদ জায়গা হলো সিপাহীপাড়ার ধানসিড়ি ও টংগীবাড়ির কাজী মার্কেটের ৪তলায়। ইয়াম্মি রেষ্টুরেন্টটি টঙ্গীবাড়ির আড়িয়লের রাসেল পরিচালনা করতো। এই রেষ্টুরেন্টটি এই ঘটনার পর থেকে পুলিশ বন্ধ করে দিয়েছে।

এ ব্যাপারে স্কুলটির প্রধান শিক্ষক আইয়ুব আলী তার সেল ফোনে বলেন, চেয়ারম্যানের মাধ্যমে ঘটনা জানতে পারি। ইউনিয়ন পরিষদের বিচারের সময়ও উপস্থিত ছিলাম। পরবর্তীতে আমার বরাবরে একটি অভিযোগ দিয়েছি। সেই অভিযোগের আলোকে আমি স্কুলের প্যাডে অভিযোগ লিখে সদর থানায় গিয়ে মামলা করতে গেলে প্রথমে মামলা না নিলেও পরবর্তীতে মেয়েদের অভিভাবকদের মাধ্যমে মামলা হয়েছে বলে তিনি শুনেছেন।

এ বিষয়ে বজ্রযোগিনী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান তোতা মিয়া মুন্সীর সাথে টেলিফোনে আলাপকালে ধর্ষণের অভিযোগের সত্যতা স্বীকার করে বলেন ইউনিয়ন পরিষদে অভিযোগকারী ২ মেয়ে ও সাইফুল ইসলামকে নিয়ে বসা হয়েছিল। পুলিশকে ফোন দেওয়ার পূর্বেই কৌশলে তার মামা সুমন পালাতে সাহায্য করে।

স্কুলটির ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি জাহাঙ্গীর আলম জানান, বিষয়টি নিয়ে স্কুলের ম্যানেজিং কমিটির সভার মাধ্যমে জানতে পেরে এর দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবী করা হয়।

এ ব্যাপারে সদর থানার ওসি (তদন্ত) সালাউদ্দিন গাজী তার সেল ফোনে জানান, মামলার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, একজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। মূল আসামী গ্রেফতারের চেষ্টা অব্যাহত আছে।

টংগীবাড়ি থানার ওসি তদন্ত সাইফুল ইসলাম সবুজ ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, এই ঘটনায় পৃথক দুটি থানায় মুন্সিগঞ্জ সদর ও টংগীবাড়িতে মামলা দায়ের করা হয়েছে। এই ঘটনার সাথে জড়িত দুইজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। গ্রেফতারকৃতরা হলো আবু বকর (৩৫), নাজমুল হোসেন ২৩)। মুল আসামী সাইফুল ইসলাম পলাতক।

তাকেও গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে। বিচারে উপস্থিত অধিকাংশ লোকজনই চেয়ারম্যানের ভূমিকাকে দায়ী করেছেন। সে ইচ্ছা করলে সাইফুলকে পুলিশে ধরিয়ে দিতে পারত কিন্তু সে তা করেনি।

মুন্সিগঞ্জ নিউজ

Leave a Reply