যুবলীগ, ছাত্রলীগ, স্বেচ্ছাসেবকলীগ ও সাংবাদিক মাদকসেবন ও ব্যবসায় জড়িত

সিরাজদিখানে ওপেন হাউজ ডে অনুষ্ঠানে উপজেলা আ’লীগ সাধারণ সম্পাদক
নাছির উদ্দীন: সিরাজদিখানে মাদক, সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদ বিরোধী ওপেন হাউজ ডে এবং মতবিনিময় সভা থানা পুলিশের আয়োজনে অনুষ্ঠিত হয়েছে। সোমবার দুপুরে সিরাজদিখান থানা আঙ্গিনায় এই সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে বিভিন্ন শ্রেণি পেশার মানুষের সাথে মত বিনিময় করেন মুন্সীগঞ্জ জেলা অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোহাম্মদ মোস্তাফিজুর রহমান।

এ সময় অনুষ্ঠানে উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক এসএম সোহরাব হোসেন তার বক্তব্যে বলেন, আমি জানি এ উপজেলায় কারা মাদক সেবন ও ব্যবসা করছে। আমি আরো জানি যুবলীগ, ছাত্রলীগ, স্বেচ্ছাসেবকলীগ এমনকি সাংবাদিক ও রয়েছে মাদক সেবন ও ব্যবসার সাথে জড়িত।

অনুষ্ঠান শেষে সাংবাদিকরা অতিরিক্ত পুলিশ সুপারের সাথে সাক্ষাৎ করে সোহরাব হোসেনের এই মন্তব্যের প্রতিবাদ জানান এবং সাংবাদিকদের মধ্যে যদি কেউ থাকে প্রমানসহ ওসির নিকট তথ্য দেওয়া ও আইনগত ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য সাংবাদিকরা অনুরোধ করেন। এ সময় বালুচর ও লতব্দি ইউনিয়নের কয়েকজন ব্যাক্তি অতিরিক্ত পুলিশ সুপারের নিকট সোহরাব হোসেনের অপকর্মের কথা তুলে ধরে বলেন এসএম সোহরাব আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ও লতব্দী ইউনিয়ন চেয়ারম্যান হওয়ার পরে মানুষকে আর মানুষ মনে করেন না। তিনি নিজে ৩ ফসলি জমির মাটি কেটে ইটের ভাটায় বিক্রি করেন। অন্য কেউ মাটি কাটলে মানববন্ধন ও মামলা দেওয়াসহ নানা ভাবে হয়রানী করেন। বালুচরে মারামারি ও মাডারের ঘটনায় ইন্দন দাতা এই সোহরাব। তিনি আওয়ামীলীগের উপজেলা সাধারণ সম্পাদক হওয়ায় তার বিরুদ্ধে কেউ কিছু বলার সাহস পায় না।

এ সময় সিনিয়র এএসপি (সিরাজদিখান সার্কেল) আসাদুজ্জামান তাদের বলেন, আমরা জানি কে কি করে, প্রমানপেলে ব্যবস্থা নেব।

এ সময় প্রধান অতিথি মুন্সীগঞ্জ জেলা অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোহাম্মদ মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, সে দলের যে কেউ হোক অভিযোগ পেলে প্রমান সাপেক্ষে ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য সিনিয়র এএসপি আসাদুজ্জামান কে নির্দেশ দেন।

এছাড়া অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি বলেন, আপনাদের অনেক কথা শুনলাম। মুন্সীগঞ্জে অনেক অস্ত্র উদ্ধার করেছি। কে কোন দলের কে কত ক্ষমাতাবান তা আমরা দেখব না। মাদক, সন্ত্রাসী ও জঙ্গিবাদে যদি কেউ জড়িত থাকে, তাকে ছাড় দেওয়া হবে না।

নেতাকর্মী মাদকের সাথে কোন সংশ্লিষ্টতা নেই,আমাদের ছাত্রলীগের পক্ষ থেকে মাদক বিরোধী বিভিন্ন কার্যকলাপ দীর্ঘদিন যাবৎ চালিয়ে যাচ্ছে। আমাদের থানা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক পারভেজ চোকদার পাপ্পু একাধিক মাদকসেবীকে পুলিশে সোপর্দ করেছে ।

স্বেচ্ছাসেবকলীগের সভাপতি তাজুল ইসলাম পিন্টু বলেন, আমাদের সংগঠনের মাদকসেবী কিংবা মাদক ব্যাবসায়ী আছে বলে আমার জানা নেই, সন্মানিত সাধারণ সম্পাদক এসএম সোহরাব হোসেনের এ বক্তব্যের প্রতিবাদ জানাই।

স্বেচ্ছাসেবকলীগের সাধারণ সম্পাদক চঞ্চল চৌধুরী বলেন, আমাদের স্বেচ্ছাসেবকলীগে কোন মাদকসেবী আছে কিনা জানি না তবে সাধারণ সম্পাদক এসএম সোহরাব সাহেব যেহেতু বলেছেন যদি কোন প্রমান পাই তাহলে আইনগত ব্যবস্থা নিব।

থানা যুবলীগের আহবায়ক মইনুল ইসলাম নাহিদকে একাধিকবার ফোনে চেষ্টা করে সাক্ষাৎ করা যায়নি।

সিরাজদিখান প্রেসক্লাবের সভাপতি কাজী নজরুল ইসলাম বাবুল বলেন, সিরাজদিখান প্রেসক্লাবের কর্মরত কোন সাংবাদিক আমার জানামতে মাদকসেবী ও মাদক ব্যবসার সাথে জড়িত নেই এবং অতীতেও ছিলনা। উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক যে বক্তব্য দিয়েছেন সে যদি কোন প্রমান দিতে পারেন তবে অভিযুক্ত সদস্যস্যের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নিব এবং প্রেসক্লাব থেকে বহিস্কার করা হবে।

সিরাজদিখান থানা অফিসার ইন-চার্জ মো. ফরিদ উদ্দিনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সিরাজদিখান উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মহিউদ্দিন আহমেদ ও সিনিয়র এএসপি (সিরাজদিখান সার্কেল) আসাদুজ্জামান। থানা উপ পরিদর্শক আব্দুর সবুর খান এর সঞ্চালণায় আরো উপস্থিত ছিলেন উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান এড. আবুল কাসেম, প্রেসক্লাব সভাপতি কাজী নজরুল ইসলাম বাবুল, ওসি (তদন্ত) হেলাল উদ্দিন, থানা সেকেন্ড অফিসার উপ-পরিদর্শক সারোয়ার হোসেন ভুইয়া।

Leave a Reply