মু্ন্সীগঞ্জের লৌহজংয়ে নিখোঁজের ১৭ দিন পর গৃহবধূ বৃষ্টির গলিত মরদেহ উদ্ধার

স্বামীর বাড়ির লোকেরা এই হত্যা কান্ড ঘটিয়েছে বলে অভিযোগ বৃষ্টির স্বজনদের
জসীম উদ্দীন দেওয়ান: নিখোঁজের ১৭ দিন পর মুন্সীগঞ্জের লৌহজং উপজেলার করারবাগের আদাবাড়ি এলাকার একটি জমি থেকে গৃহবধূ খাজিদা আক্তার বৃষ্টির খন্ডিত মরদেহ উদ্বর করেছে পুলিশ। লৌহজং থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা লিয়াকত আলী জানান,রোববার দুপুরে স্থানীয় জনতা গলিত মরদেহ কয়েক খন্ডে বিভক্ত হয়ে পরে থাকতে দেখে তাদের খবর দিলে তারা মরদেহটি উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে। ইতি মধ্যে মরদেহটি কঙ্কাল রূপ ধারণ করেছে। ওসি আরো জানান, খন্ডিত লাশের পাশে বোরকা ও হাতের চুড়ি দেখে বৃষ্টিকে স্বজনরা তাঁকে শনাক্ত করেন।

বৃষ্টি নিজের এক বছরের মেয়ে উম্মে আয়মানকে রেখে ২০ সেপ্টেম্বর পর পুরুষের সাথে পালিয়ে যাবার অভিযোগটি স্বামীর বাড়ির লোকেরা তুললেও শুরু থেকে তা অস্বিকার করে আসছিলো বৃষ্টির পরিবারের সদস্যরা। বৃষ্টির বাবা দেশের বাইরে থাকায় এই ঘটনায় ২১ সেপ্টেম্বর লৌহজং থানায় একটি সাধারণ ডায়েরী করেছিলেন.বৃষ্টির চাচা ফারুক শেখ। বৃষ্টির মরদেহ উদ্ধারের সংবাদ পেয়ে ঘরে তালা মেরে শিশু উম্মে আয়মানকে নিয়ে পালিয়ে যায় বৃষ্টির শ্বাড়ুড়ি,ভাসুর এবং বড় জা।

তবে বৃষ্টির শ্বশুড় কুদ্দুস শেখকে গ্রেফতার করে পুলিশ।বৃষ্টির স্বামী হারুণ শেখ বিয়ের আগে মালেয়শিয়া থেকে বড় ভাইয়ের স্ত্রী সাথী বেগমের এ্যাকাউন্টে টাকা পাঠাতেন। দুই বছর ধরে একই গ্রামের হারুনের সাথে বিয়ে হয় বৃষ্টির। বিয়ের বছর খানেক পর মালয়েশিয়া যেয়ে এবার স্ত্রীর নামে টাকা পাঠান স্বামী হারুন। এতেই নাকি শত্রুতা বশত বৃষ্টিকে মেরে রাতের আঁধারে নিরব জমিতে ফেলে রাখে বলে জামান, বৃষ্টির স্বজনেরা। বৃষ্টির চাচা ফারুক বাদি হয়ে সাত জনকে আসামী করে লৌহজং থানায় মামলা করেন বলে জানান,ওসি। এই ঘটনায় ক্যামেরার সামনে কোন কথা বলতে রাজি হননি পুলিশ।

Leave a Reply