মুন্সীগঞ্জ-৩: মনোনয়ন লড়াইয়ে আওয়ামী লীগের একাধিক নেতা, মাঠে জোড় প্রস্তুতি নেই বিএনপির

আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনে মুন্সীগঞ্জের নির্বাচনী প্রস্তুতী নিয়ে মুন্সীগঞ্জ 24 ডট কমে ধারাবাহিক প্রতিবেদনে আজ প্রকাশিত হচ্ছে মুন্সীগঞ্জ – তিন আসনের নির্বাচন ভাবনা

জসীম উদ্দীন দেওয়ান: মুন্সীগঞ্জ সদর ও গজারিয়া উপজেলা নিয়ে গঠিত মুন্সীগঞ্জ তিন আসন। সদর উপজেলায় দুটি পৌর সভার সাথে রয়েছে নয়টি ইউনিয়ন। আর আটটি ইউনিয়ন নিয়ে গজারিয়া উপজেলা পরিষদ গঠিত। এই নির্বাচনি আসনটিতে দুটি পৌরসভা ছাড়াও ১৭টি ইউনিয়নে মোট ভোটর সংখ্যা ৪,১৭,৪,৪৭ জন। যার মধ্যে পুরুষ ভোটার রয়েছে ২,১৫,৪,১৬ জন। আর নারী ভোটারের সংখ্যা ২,০২,০৩১ জন।

এক সময়কার বিএনপির ঘাঁটি হিসেবে পরিচিত ছিলো এই আসনটি। নির্বাচনী পরিসংখ্যানে দেখা যায় ৯১ থেকে ২০০১ সন পর্যন্ত জাতীয় সংসদ নির্বাচনে টানা তিন বারই বিএনপির প্রার্থীরা এই আসন থেকে জয় লাভ করেন। আর ২০০৮ এ নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে দীর্ঘ দিন পর আসনটি চলে যায় আওয়ামী লীগ এর ঘরে। আওয়ামী লীগ থেকে মনোনয়ন পেয়ে সাবেক প্রতিরক্ষা সচিব এবং জেলা আওয়ামী লীগ নেতা এম ইদ্রিস আলী, সেই নির্বাচনে বিএনপির মনোনীত হেভিওয়েট প্রার্থী, সাবেক তথ্য মন্ত্রী এম শামসুল ইসলামকে পরাজিত করেন প্রায় ২২ হাজার ভোটের ব্যবধানে। আর ২০১৪ সালের এই আসন থেকে বিনা প্রতিদ্ধন্ধিতায় নির্বাচিত হন আওয়ামী লীগের কেন্দ্রিয় কমিটির মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক সম্পাদক অ্যাড. মৃনাল কান্তি দাস।

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে ঘিরে মনোনয়ন লড়াইয়ে মাঠে নেমেছেন আওয়ামী লীগের পাঁচ জন নেতা। যার মধ্যে সব চেয়ে বেশি গণ সংযোগ ও মিছিল মিটিং করে চলেছেন, বর্তমান সংসদ সদস্য অ্যাড. মৃনাল কান্তি দাস এবং সাবেক সাংসদ এম ইদ্রিস আলী। নির্বাচনের সময় যতোই ঘনিয়ে আসছে মনোনয়ন প্রত্যাশিত এই দুই নেতার আনা গোনা এলাকায় ততোই বেড়ে গেছে। শুধূ তাই নয়, এই দুই নেতাকে ঘিরে স্থানীয় আওয়ামী লীগ এখন পুরো দুই ভাগে বিভক্ত। এম ইদ্রিস আলী নিজের সমর্থকদের পাশাপাশি মাঠ গরম করে চলছেন জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি ও জেলা পরিষদ প্রশাসক মহিউদ্দিন আহামেদ এর সমর্থকদের পূর্ণাঙ্গ সমর্থন নিয়ে। আর নিজের দল বল নিয়েই মাঠ চাঙ্গা করে নিজের অবস্থান ধরে রেখেছেন অ্যাড. মৃনাল কান্তি দাস।

পক্ষান্তরে পোষ্টার, ব্যানার এবং স্থানীয় জনসভায় বক্তব্য রেখে নিজেদের প্রার্থীতার কথা জানান দেন সদর উপজেলা চেয়ারম্যান এবং জেলা আওয়ামী লীগ সহ- সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা আনিসুর রহমান আনিস। গজারিয়া উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান এবং কেন্দ্রীয় উপ-কমিটির ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক রেফায়েৎ উল্লাহ খাঁন তোতা এবং গজারিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক আমিরুল ইসলাম। এবারও দলীয় টিকেট পাবেন বলে শত ভাগ নিশ্চিত করে নিজের সমর্থকদের উদ্দেশ্যে বিভিন্ন সভা সমাবেশে বক্তব্য রাখতে দেখা গেছে বর্তমান সাংসদ অ্যাড.মৃণাল কান্তি দাসকে। তার হাত ধরে এলাকার বিভিন্ন উন্নয়ন হয়েছে দাবি করে আগামী নিবাচনে দলীয় মনোনয়ন পেয়ে নিজের জয় নিশ্চিত করার আশাবাদি সে।

আর প্রতিদ্ধন্তীতামূলক নির্বাচনে তাঁর বিকল্প কোন প্রার্থী নাই এমনটা দাবি করে সাবেক সাংসদ এম ইদ্রিস আলী বলেন, নিজে ক্ষমতায় থাকার সময় এলাকায় উন্নয়নের পাশাপাশি সন্ত্রাসের অস্তানা বলে খ্যাত পাঁচটি চরাঞ্চলে শান্তি ফিরিয়ে এনেছি, সেঅঞ্চলের লোকেরা এখনো আমাকে স্মরন করে। আসন্ন সংসদ নির্বাচনে মনোনয়ন পেয়ে বিজয় নিশ্চিতের ব্যাপরে আশার কথা জানান তিনিও। অন্য দিকে মুন্সীগঞ্জ তিন আসন থেকে বিএনপির টিকেট নিয়ে নির্বাচনের জন্য তৈরী হয়ে আছেন বিএনপির জেলা কমিটির সভাপতি ও সাবেক উপমন্ত্রী আব্দুল আই এবং জেলা কমিটির সাধারণ সম্পাদক কামরুজ্জামান রতন। তবে নির্বাচনের সময় ঘনিয়ে এলেও মাঠ সরগরম নেই বিএনপির সম্ভাব্য প্রার্থীদের পদচারণায়।

দলীয় চেয়ারপার্সনের মুক্তির দাবিতে জেলা কার্যালয়ের সামনে ছোট ছোট কয়েকটি কর্মসূচির মধ্যেই সীমাবন্ধ রয়েছে দলটির নেতাদের কার্যক্রম। শুধু বিভিন্ন দিবস গুলোতে পোষ্টার ও ব্যানার সাটিয়ে নিজেদের প্রচার প্রচারনা অব্যাহত রেখেছে তারা। আওয়ামী লীগ এর সম্ভাব্য প্রার্থী মৃণাল কান্তি দাস ও এম ইদ্রিস আলীর মতো বিএনপির এই দুই নেতার প্রকাশ্যে গ্রুপিং না দেখা গেলেও, ভিতরে ভিতরে ছোট নেতা ও কর্মীরা বিভক্ত হয়ে পড়েছে দুই নেতার আলাদা গ্রুপে।

এই আসনটিতে জামায়াতের কোন সক্রিয়তা চোখে না পরলেও একাধিক প্রার্থী মাঠে রয়েছে জাতীয় পার্টি থেকে। আসন্ন একাদশ নির্বাচনে এই আসনে মনোনয়ন দৌড়ে রয়েছেন জেলা জাতীয় পার্টির সাধারণ সম্পাদক হাজ্বী আব্দুল বাতেন এবং সাংগঠনিক সম্পাদক আরিফুজ্জামান দিদার। চলতি বছরের শেষের দিকে নির্বাচন শুরু হলেও নির্বাচনী মাঠে আপনারা কেন নেই ? এমনটি জানতে চাইলে জেলা বিএনপির সভাপতি আব্দুল হাই বলেন, বিএনপি সব সময় নির্বাচনের জন্য প্রস্তুত। দলীয় দাবিগুলো পূরন হলে আমরা নির্বাচনে যাবো। আমাদের ডাক ঢোল পিটাতে হবেনা। জনগন ভোট দেবার সুযোগ পেলে বিএনপি নিশ্চিত জয় পাবে বলে দৃঢ়তার সাথে জানান, আব্দুল হাই। দুই দল যাদেরই মনোনয়ন দেক না কেন, শেষ পর্যন্ত এই আসনে আওয়ামী লীগ আর বিএনপির মধ্যে লড়াইটা হবে হাড্ডাহাড্ডি।

Leave a Reply