উত্তরণ-এর ৩০তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত

রাহমান মনি: জাপান প্রবাসীদের প্রিয় সাংস্কৃতিক সংগঠন ‘উত্তরণ বাংলাদেশ কালচারাল গ্রুপ জাপান’ ৩০তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত হয়েছে। ৩০তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালনকে জমকালো এবং স্মরণীয় করে রাখার জন্য ৭ অক্টোবর রোববার টোকিওর কিতা সিটি তাকিনোগাওয়া কাইকানে এক সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করে উত্তরণ।

এছাড়াও স্মরণীয় করে রাখার জন্য বের করা হয় বিশ্বজিত দত্ত বাপ্পার সম্পাদনায় ‘উত্তরণ ২০১৮’ নামে একটি স্মরণিকা। স্মরণিকাটিতে ১৯৮৮ থেকে ২০১৮ পর্যন্ত বিভিন্ন কর্মযজ্ঞের পাশাপাশি প্রাক্তন অনেকেরই স্মৃতিচারণমূলক শুভেচ্ছা বাণী স্থান পায়। যারা বর্তমানে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে বসবাস করছেন। তাদের অনেকেই প্রাক্তন দলনেতা ছিলেন।

প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত রাবাব ফাতিমা। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন এপিএফএস-এর সভাপতি ইয়োশিদা মায়ুমি এবং জাপান-বাংলাদেশ সোসাইটির চেয়ারম্যান, বাংলাদেশে নিযুক্ত জাপানের প্রাক্তন রাষ্ট্রদূত প্রফেসর হোরিগুচি মাতসুশিরো। উপস্থিত ছিলেন এপিএফএস-এর উপদেষ্টা ইয়োশিনারি কাতসুও-সহ বিপুলসংখ্যক জাপানি এবং বাংলাদেশি নাগরিকবৃন্দ।

নিয়াজ আহমেদ জুয়েল ও মৌটুসি দত্তের উপস্থাপনায় শুভেচ্ছা ও স্বাগত বক্তব্য রাখেন ম্যানেজার শরাফুল ইসলাম।

উত্তরণ লিডার মো. নাজিম উদ্দিন তার শুভেচ্ছা বক্তব্যে বলেন, উত্তরণ, বাংলাদেশ কালচারাল গ্রুপ জাপান-এর ত্রিশ বছর পূর্তি উৎসবে জানাই আন্তরিক শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন।

আমাদের এই দীর্ঘ পথচলায় আপনারা যারা অকৃপণভাবে সহযোগিতা করেছেন সকলের কাছে আমরা কৃতজ্ঞ এবং ঋণী। বিশেষভাবে ধন্যবাদ জানাই বিভিন্ন আঞ্চলিক, সামাজিক, রাজনৈতিক সংগঠন, ব্যবসায়ী সম্প্রদায় এবং এর নেতৃবৃন্দগণকে যারা আমাদের আর্থিক সহায়তাসহ নানাবিধভাবে সহযোগিতা দিয়ে আমাদের এই ৩০ বছরের পথচলাকে সুপ্রসন্ন করেছেন। আগামীতেও আমরা উত্তরণ, প্রবাসে বাংলার মুখ হয়ে সাংস্কৃতিক কর্মকা- পরিচালনার প্রত্যয় ব্যক্ত করছি। পরিশেষে বলতে চাই,

শহীদ যারা অমর তারা
ভাষার জন্য দেশের জন্য
তাদের ত্যাগের কথা স্মরণ করে
আমরা এগিয়ে চলব।

রাষ্ট্রদূত রাবাব ফাতিমা তার শুভেচ্ছা বক্তব্যে বলেন, বিদেশের মাটিতে শত ব্যস্ততার মাঝেও দেশীয় সংস্কৃতির চর্চা ও প্রসারে আত্মনিয়োগ করা নিঃসন্দেহে প্রশংসনীয়। দীর্ঘ ৩০ বছর ধরে উত্তরণ জাপানের মাটিতে বাংলাদেশের সংস্কৃতি চর্চায় যে সক্রিয় ভূমিকা পালন করে চলেছে তা সর্বজনবিদিত। আমি প্রত্যাশা করব ‘উত্তরণ’-এর এই প্রয়াস আগামীতেও অব্যাহত থাকবে।

এছাড়া বিশেষ অতিথি হিসেবে শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন, এপিএফএস-এর সভাপতি মায়ুমি ইয়শিদা এবং জাপান-বাংলাদেশ সোসাইটির চেয়ারম্যান, বাংলাদেশে নিযুক্ত জাপানের প্রাক্তন রাষ্ট্রদূত প্রফেসর হোরিগুচি মাতসুশিরো।

৩০তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালনকে স্মরণীয় করে রাখার জন্য একটি বিশেষ এবং ব্যতিক্রমধর্মী আয়োজন করে উত্তরণ। সংগঠনটি এপর্যন্ত যাদের কাছ থেকে সম্মাননা পেয়ে এসেছে এবছর প্রথমবারের মতো তাদের সম্মানিত করে। এদের মধ্যে বাংলাদেশ দূতাবাস, পরবাস, নরসিংদী সোসাইটি, বাংলাদেশ ফ্রেন্ডশিপ সোসাইটি জাপান এবং স্বরলিপি কালচারাল একাডেমি টোকিও।

দ্বিতীয় পর্বে এক মনোমুগ্ধকর সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের মাধ্যমে ৩০ বর্ষ পূর্তিকে স্মরণীয় করে রাখা হয়।

সাংস্কৃতিক আয়োজনে উত্তরণের দ্বিতীয় প্রজন্ম এবং ভবিষ্যৎ নাবিক শিশু শিল্পীদের সকলেই ভালো করেছে। দৃপ্ত, ইমন, নাশরাহ, রিভু, শব্দ তাদের প্রতিভা প্রকাশে সক্ষম হয়েছে।

সাদ্দ্বী আহমেদ এবং নাশরাহ আহমেদ (মা এবং মেয়ে) যুগল নৃত্য যেমন উপভোগ্য ছিল তেমনি উপভোগ্য ছিল বাবুর বাঁশি এবং সাপুড়িয়া নৃত্য বিশেষ করে সাপুড়িয়া চরিত্রে পাপ্পুর ভূমিকা। দর্শক মিস করেছে নাজিমের আবৃতি এবং রুমির গান।

সবশেষে বিভিন্ন সংগঠন থেকে উত্তরণকে ফুলেল অভিনন্দন জানানো হয়।

সাপ্তাহিক

Leave a Reply