মুন্সীগঞ্জে শীতকালীন সবজির চারা ফলাতে ব্যস্ত চাষি

শেখ মোহাম্মদ রতন: মুন্সীগঞ্জে শীতকালীন সবজির চারা ফলাতে ব্যস্ত সময় পার করছেন চাষিরা। এসব চারা নিজে লাগানোর পাশাপাশি বিক্রিও করবেন তারা।

বাংলা আশ্বিন মাস, অর্থাৎ অক্টোবর মাসের মাঝামাঝি থেকেই শীতকালীন নানা রকমের সবজি চারা আবাদে চাষিরা ব্যস্ত সময় পার করেন। মুন্সীগঞ্জ সদর উপজেলার তিনটি ইউনিয়নের বেশিরভাগ চাষিই মূলত এই কাজ করেন। এই তিনটি ইউনিয়ন হচ্ছে পঞ্চসার, রামপাল ও বজ্রযোগিনী। ইউনিয়ন তিনটি সদর উপজেলার মধ্যে সবচেয়ে উঁচু এলাকা। তাই স্বাভাবিক বর্ষার পানিতে জমি তলিয়ে যায় না, যে কারণে এখানকার চাষিরা বেশি লাভের আশায় শীতকালীন সবজির আগাম চারা উৎপাদন করেন। আশ্বিন, কার্তিক ও অগ্রহায়ণ এই তিন মাস এখনকার চাষিরা আগাম সবজির চারাগাছ আবাদ করেন। চারা একটু বড় হলেই চাষিরা জমি থেকেই তা বিক্রি করে দেন। জেলার অনেক চাষিই এখান থেকে চারা কিনে থাকেন।

জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতর সূত্রে জানা যায়, এ বছর মুন্সীগঞ্জে শাকসবজি চাষের জন্য জমির লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে তিন হাজার ৯৪০ হেক্টর জমি। আর উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে ৯৭ হাজার ৯৪৩ টন সবজি। গত বছর মুন্সীগঞ্জে সবজি উৎপাদন হয়েছিল এক লাখ সাত হাজার ৭০ টন।

এ বছর শীতকালীন সবজি ফুলকপি ২৬৬ হেক্টর জমিতে, বাঁধাকপি ১১১ হেক্টর, মিষ্টিকুমড়া ৪৯২ হেক্টর, লাউ ৬২৭ হেক্টর, শিম ২৪৭ হেক্টর, বেগুন ১৯৫ হেক্টর ও টমেটো ২১৮ হেক্টর জমিতে আবাদ হবে। এছাড়া ক্ষীরা আবাদ হবে ৩৩৭ হেক্টর জমিতে ও করলা আবাদ হবে ২০ হেক্টর জমিতে।

জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের উপ-পরিচালক হুমায়ুন কবীর জানান, মুন্সীগঞ্জে প্রতি বছরই এখানকার চাষিরা আগাম সবজি চাষ করে থাকেন। তারা সবজি চাষ করে অনেকটা লাভবান হবেন বলে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

শেয়ার বিজ

Leave a Reply