অভিনব কায়দায় বিক্রি হচ্ছে ইলিশ, চড়া দাম সবজির

বুধবার রাতে অফিস সেরে রাজধানীর যাত্রাবাড়ী এলাকার নিজ বাসায় যাচ্ছিলেন বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা আজিজুল ইসলাম। হঠাৎ তার চোখ পড়ে একটি জটলার দিকে। কাছে গিয়ে দেখেন, একটি বড় বক্সে করে কাটা ইলিশ বিক্রি করছে দুই যুবক। যদিও এখন ইলিশ ধরা ও বিক্রি নিষিদ্ধ।

শুধু যাত্রাবাড়ী এলাকা নয়, মালিবাগ, মিরপুর, গুলিস্তানসহ রাজধানীর বেশ কিছু এলাকায় এভাবে ইলিশ বিক্রি করছে একটি চক্র। একটি গ্রুপের দুই সদস্যের সঙ্গে কথা হয় এ প্রতিবেদকের। এই বিক্রেতারা জানান, এ মাছগুলো মুন্সীগঞ্জ থেকে আনা। ইলিশ নিষিদ্ধ থাকায় রাতের আঁধারে সবার নজর এড়িয়ে মেঘনা থেকে এগুলো ধরা হয়। তারপর তীরে এনে এগুলো কেটে বরফ দিয়ে পাঠিয়ে দেওয়া হয় ঢাকায়। আর বিক্রেতারা রাতের বেলায় এগুলো বিভিন্ন গলিতে বিক্রি করেন। দামের কথা জিজ্ঞেস করায় তারা জানান, প্রতি কেজি কাটা ইলিশ বিক্রি করেন ১৫০-২০০ টাকা। অন্যান্য সময়ে যার দাম হয় কেজিপ্রতি ৫০০-৫৫০ টাকা। দাম কম হওয়ায় ক্রেতারা কিনছেন। ফলে বিক্রি করতে কোনো অসুবিধা হয় না।

প্রজনন মৌসুমে ইলিশ মাছ সংরক্ষণে গত ৭ অক্টোবর থেকে আগামীকাল ২৮ অক্টোবর পর্যন্ত ইলিশ ধরা, পরিবহন, মজুদ, বাজারজাতকরণ ও বিক্রি নিষিদ্ধ করেছে সরকার। কিন্তু এর মধ্যে প্রকাশ্যে রাজধানীতে এভাবে ইলিশ বিক্রির ঘটনায় অবাক সাধারণ ক্রেতারা। তারা বলছেন, আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর তেমন কোনো নজরদারি না থাকায় গলিতে বসে নিষিদ্ধ থাকার পরও ইলিশ বিক্রি করতে পারছেন তারা। আর এমন পরিস্থিতিতে নিষিদ্ধ থাকলেও তা অসাধু জেলেদের ইলিশ ধরায় উৎসাহিত করছে।

তবে দুদিন পর থেকেই নিষেধাজ্ঞা উঠে যাওয়ায় আবারও ইলিশে ইলিশে ভরে যাবে মাছের বাজারÑএমনটাই প্রত্যাশা ক্রেতা-বিক্রেতাদের। তখন অন্যান্য মাছের দামও কমে আসবে।

এদিকে বাজারে পর্যাপ্ত পরিমাণ শীতের সবজি আসতে শুরু করলেও কমছে না দাম। বরং সিন্ডিকেটে দাম বাড়তি সব সবজির। ফলে সমস্যা তৈরি হচ্ছে সাধারণ ক্রেতাদের। দিন যত যাচ্ছে বাজারে নতুন নতুন সবজি আসছে ঠিকই কিন্তু সেই সঙ্গে দামও বাড়ছে। গতকাল রাজধানীর বাজারগুলোয় দেখা গেছে, আগের সপ্তাহের চেয়ে দাম বেড়েছে টমেটো, শিম, বেগুন, গাজরসহ বেশ কিছু সবজির। গত সপ্তাহে ৮০ টাকা কেজিতে বিক্রি হওয়া টমেটো বিক্রি হচ্ছে ১০০ টাকা কেজি দরে, ৭০ থেকে ৮০ টাকা কেজিতে বিক্রি হওয়া কাঁচামরিচ বিক্রি হয়েছে ১০০ থেকে ১২০ টাকায়; যা গত সপ্তাহে ছিল মাত্র ১০০ থেকে ১২০, শিম ১২০ থেকে ১৪০, শসা ৭০ থেকে ৮০, ঢেঁড়স ৪০ থেকে ৫০, বেগুন ৫০ থেকে ৭০, কচুর লতি ৫০ থেকে ৬০, গাজর ৮০ থেকে ১০০, ঝিঙা ৫০ থেকে ৬০ ও করলা ৫০ থেকে ৬০ টাকায় বিক্রি হতে দেখা গেছে।

দাম বেশি হলেও শীতের সবজির দিকেই বেশি নজর ক্রেতাদের। কিছুটা কমেছে শাকের দাম। কলমি শাক প্রতি আঁটি পাঁচ থেকে সাত টাকা, লাল শাক সাত থেকে ১০, লাউ শাক ২০ থেকে ২৫ ও পালং শাক ২০ থেকে ২৫ টাকায় বিক্রি করতে দেখা গেছে। কারওয়ান বাজারের ব্যবসায়ী মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, এখন শীতের আগাম সবজি বাজারে আসছে, এজন্য একটু বাড়তি দামে বিক্রি হচ্ছে। চাহিদার উপযোগী সরবরাহ আসতে আরও অন্তত ১৫ দিনের মতো সময় লাগবে।

চিকন চালের দাম কেজিতে কমেছে আরও এক টাকা। ভালো মানের মিনিকেট চাল বিক্রি হচ্ছে ৫৭ থেকে ৫৮ টাকা কেজিতে। আগের দাম ৪৫ টাকা কেজিতেই বিক্রি হচ্ছে দেশি পেঁয়াজ। আর আমদানি করা ভারতীয় পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ৩০ থেকে ৩৫ টাকায়। অন্যান্য মুদিপণ্যের দাম অপরিবর্তিত রয়েছে।

শেয়ার বিজ

Leave a Reply