মাইকিং করে পুলিশের ওপর গ্রামবাসীর হামলা, আহত ১৩

গত কয়েকদিন ধরেই মুন্সীগঞ্জের গজারিয়ায় তাপ বিদ্যুৎ প্রকল্প নির্মাণের জন্য নির্ধারিত জায়গার জমি অধিগ্রহণ নিয়ে মুখোমুখি অবস্থানে এলাকাবাসী ও প্রশাসন। এরই মধ্যে গত ২০ অক্টোবর সকালে বিদ্যুৎ প্রকল্পের নির্ধারিত জায়গায় মাটি ভরাটের কাজ করতে গেলে গ্রামবাসীর হামলায় আহত হয় ৫ জন। এ ঘটনায় ৫০ জনের নাম উল্লেখ ও আড়াই শতাধিককে অজ্ঞাতনামা আসামি করে গজারিয়ায় থানায় মামলা করে প্রকল্পটির ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান ওয়েস্টার্ন ইঞ্জিনিয়ারিং প্রাইভেট লিমিটেড।

এরই মধ্যে বুধবার (২৪ অক্টোবর) রাতে পুলিশ অভিযানে গেলে উপজেলার দৌলতপুর গ্রামে রাস্তায় প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করে মসজিদের মাইকে মাইকিং করে পুলিশের ওপর হামলা চালায় গ্রামবাসী। এসময় গ্রামবাসীর হামলা ও ধাওয়ায় পড়ে গিয়ে আহত হয় দুই সিএনজি চালক ও গজারিয়া থানা পুলিশের ১১ সদস্য ,ভাঙচুর করা হয় পুলিশকে বহনকারী ৬টি সিএনজি।

গজারিয়া থানার ওসি মো. হারুন অর রশীদ ও আহত পুলিশ সদস্যদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, গত কয়েকদিনের ঘটনায় এলাকার আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি অবনতি হওয়ায় আমরা ওই এলাকার সার্বিক পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করতে বুধবার (২৪ অক্টোবর) রাতে সেখানে যাবার পথে হামলার শিকার হই। গজারিয়া উপজেলা টু দৌলতপুর সড়কের দৌলতপুর এলাকায় আসলে তারা রাস্তায় কাটা কাছ দিয়ে প্রতিবন্ধকতা দেখতে পান। এসময় গাছটি সড়াতে গেলে তাদের কয়েকজন গ্রামবাসীর সঙ্গে কথা কাটাকাটি হয়। এর কিছুক্ষণ পর মাইকে ঘোষণা দিয়ে তাদের ওপর হামলা চালায় কয়েকশ’ গ্রামবাসী।

এ সময় গ্রামবাসীর হামলা ও ধাওয়ায় দুই সিএনজি চালক কালাম (২৯), আবুল কালাম আজাদ (৩২) ও গজারিয়া থানার ওসি (তদন্ত) প্রাণবন্ধু চন্দ্র বিশ্বাস, এসআই শ্যামল চন্দ্র, এসআই মুকবুল, এসআই ওলিউর রহমান, এসআই সেলিমসহ ১১ পুলিশ সদস্য আহত হয়। আহতদের মধ্যে ২ জন গজারিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন রয়েছে বাকীদের প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে ছেড়ে দেয়া হয়।

গজারিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. মো: মোসাদ্দেক হোসেন জানান, বুধবার (২৪ অক্টোবর) রাতে দুই সিএনজি চালক ও গজারিয়া থানা পুলিশের ১১ জন সদস্য তাদের হাসপাতালে চিকিৎসা নিয়েছেন। তবে তাদের আঘাত গুরতর নয়।

এদিকে বৃহস্পতিবার (২৫ অক্টোবর) সরজমিনে দৌলতপুর ও ষোলআনী গ্রাম ঘুরে দেখা যায়, আজও বিদ্যুৎ প্রকল্প বিরোধী বিক্ষোভ করেছে এলাকাবাসী। এসময় তারা বিদ্যুৎ প্রকল্পটি বন্ধে অনতিবিলম্বে প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করেন।

বিষয়টি সম্পর্কে গজারিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা হাসান সাদী জানান, বিষয়টি তার ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষতে জানানো হয়েছে ,তারা গভীরভাবে পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করছেন। তবে এলাকার সার্বিক পরিস্থিতি শান্ত রাখতে গ্রামবাসীকে গুজবে কান না দিয়ে শান্ত থাকার পরামর্শ দেন তিনি।

সোনালীনিউজ

Leave a Reply