মুন্সীগঞ্জে আলুর জমি প্রস্তুতে ব্যস্ত কৃষক

বর্ষা মৌসুমের পানি নামতে শুরু করায় আলু রোপণের লক্ষ্যে মুন্সীগঞ্জ জেলার বিস্তীর্ণ এলাকার কৃষি জমি প্রস্তুত করতে দিনভর ব্যস্ত সময় পার করছেন কৃষকরা। নভেম্বর মাসের শুরুতেই কৃষকরা বিভিন্ন জেলা থেকে আসা শ্রমিকদের নিয়ে আলু রোপণ উৎসবে মেতে উঠবেন। এরই প্রস্তুতি হিসেবে এখন সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত হিমাগার থেকে বীজ আলু নেওয়া, কোথাও জমি পরিস্কার-পরিচ্ছন্ন করে প্রস্তুত করছেন। এবার জেলার ছয় উপজেলায় ৩৯ হাজার ৩০০ হেক্টর জমিতে আলু আবাদের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। শীতের আগমনের শুরুতেই আলু আবাদে জেলার বিস্তীর্ণ এলাকাজুড়ে এখন চলছে আলু রোপণের প্রস্তুতি। নভেম্বর থেকে শুরু করে আলু রোপণ কাজে ডিসেম্বর মাস পর্যন্ত ব্যস্ত থাকবেন কৃষকরা। সেই সঙ্গে

বাড়ির আঙিনায় কৃষকদের সহযোগিতায় সার্বক্ষণিক কাজ করবেন বাড়ির গৃহিণীরাও। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, জেলার ৭৫ থেকে ৮০ হাজার কৃষক পরিবার আলু আবাদের সঙ্গে জড়িত। পরিবারগুলো এখন আলু আবাদ করে লাভের আশায় নতুন স্বপ্ন বুনছে।

সরেজমিন সদর ও টঙ্গিবাড়ী উপজেলার বিভিন্ন গ্রাম ঘুরে দেখা গেছে, সদর উপজেলার চরাঞ্চলের চরকেওয়ার, বাংলাবাজার, মোল্লাকান্দি, শিলই ও আধারা ইউনিয়নের সব কৃষকই আলু চাষের জন্য জমি প্রস্তুত করছেন। সদরের ইউনিয়নগুলোতে বর্ষার পানি নামার সঙ্গে সঙ্গে কৃষকরা আলু চাষাবাদের প্রস্তুতি শুরু করে দিয়েছেন। এরই অংশ হিসেবে জমি পরিচর্যা শুরুর পাশাপাশি তারা জমিতে সার দিচ্ছেন। চলতি মৌসুমের শুরুতে চরাঞ্চলের কৃষকরা আলু আবাদের প্রস্তুতি শুরু করে দিয়েছেন। এ ছাড়া টঙ্গিবাড়ী উপজেলার বিভিন্ন গ্রামেও একই দৃশ্য লক্ষ্য করা গেছে। জেলার সিরাজদীখান, লৌহজং, গজারিয়া ও শ্রীনগর উপজেলাজুড়েও কৃষকের মধ্যে আলু আবাদের প্রস্তুতি চলছে। কৃষকরা জানিয়েছেন, জেলার ছয় উপজেলার কৃষকরা সাধারণত বিএডিসি ও বিদেশি বাক্স আলু বীজ রোপণ করে থাকেন। তাছাড়া স্থানীয় আলু বীজও রোপণ করা হয়। এ লক্ষ্যে কৃষকরা এখনই আলু বীজ ও সার সংগ্রহে মাঠে নেমে পড়েছেন।

জানা গেছে, গত মৌসুমে জেলায় ৩৯ হাজার ৩০০ হেক্টর জমিতে আলু আবাদের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হলেও আবাদ হয়েছিল ৩৮ হাজার ৮০০ হাজার হেক্টর জমিতে।

মুন্সীগঞ্জ কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের কর্মকর্তা খোরশেদ আলম দেওয়ান জানান, চলতি মৌসুমে জেলায় ৩৯ হাজার ৩০০ হেক্টর জমিতে আলু আবাদের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। শীতের শুরুতেই মুন্সীগঞ্জ সদর, সিরাজদীখান, লৌহজং, টঙ্গিবাড়ী, গজারিয়া ও শ্রীনগর উপজেলা বিস্তীর্ণ এলাকাজুড়ে আলু আবাদের উৎসব শুরু হয়েছে। সবচেয়ে বেশি আলু আবাদ হচ্ছে জেলা সদরেই। গত মৌসুমে জেলায় ৩৮ হাজার ৫৫০ হেক্টর জমিতে আলু আবাদ হয়েছিল।

সমকাল

Leave a Reply