অনলাইনে ভুয়া তালিকা প্রকাশ, কর্মি-সমর্থকদের মাঝে বিরুপ প্রভাব

আগামী জাতীয় নির্বাচন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের মনোনয়ন
কামাল আহাম্মেদ: আগামী একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে আওয়ামী লীগ নেতা-কর্মি-সমর্থকদের মাঝে ব্যাপক উৎসাহ উদ্দিপনা পরিলক্ষিত হচ্ছে। প্রতিটি আসনে একাধীক মনোনয়ন প্রত্যাসী প্রার্থী নির্বাচনী প্রচারে কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন। প্রতিজন প্রার্থী নিজের অবস্থানকে কর্মি-সমর্থকদের মাঝে শক্তিশালী করতে বলে বেড়াচ্ছেন আমি গ্রীন সিঙ্গেল পেয়ে গেছি, অমুক নেতা আমাকে প্রচার কাজ চালিযে যেতে বলেছে ইত্যাদি। এই সুযোগে কিছু অনলাইন মিডিয়া আওয়ামী লীগ মনোনিত প্রার্থীর চুড়ান্ত তালিকা নামে প্রার্থীর ভুয়া তালিকা প্রকাশ করে বাড়তি আয় রোজগার করছে।

এতে করে তালিকায় যার নাম প্রকাশ করছে সে যেমন উৎসাহিত হচ্ছে, তেমনী অন্য পক্ষকে বিব্রতকর অবস্থায় পড়তে হচ্ছে। যাতে করে আওয়ামী লীগের প্রচার কাজে ভাটা পড়ছে।

যেখানে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ সভানেত্রী বঙ্গবন্ধু কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনা অত্যন্ত গোপনীয়তার সাথে দলীয় প্রার্থী বাছাইয়ের ক্ষেত্রে বিভিন্ন পয্যায় থেকে তথ্য সংগ্রহ করছেন, নির্বাচনী পরিবেশ এবং নির্বাচনে অংশগ্রহনকারী দলসমুহের বিষয়সহ সার্বিক বিবেচনা করে খসড়া তালিকা প্রনয়ন করবেন, সেখানে এই ধরনের ভুয়া তালিকা প্রকাশ এবং গুজব রটনা উদ্দেশ্য প্রনোদিত, যাতে করে আওয়ামী লীগের প্রচার কাজে ভাটা পড়ে, তবে অনেকের ধারনা জামাত-বিএনপি সমর্থক কিছু অনলাইন মিডিয়া উদ্দেশ্যমুলকভাবে আওয়ামী লীগ কর্মি-সমর্থকদের মাঝে অনৈক্য সৃষ্টি করতে এইভাবে বিভ্রান্তমুলক মিথ্যা প্রচার চালাচ্ছে।

এই বিষয় বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ সভাপতি ওবায়দুল কাদের সাহেব বার বার সর্তক করেছেন, এই সব ভুয়া তালিকার ভুয়া প্রার্থীর বিষয় তিনি অবগত নন, কাকে প্রার্থী করা হবে, সেই বিষয় একমাত্র বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা ছাড়া কেহ বলতে পারবেন না।

এই ভুয়া তালিকায় প্রকাশিত মুন্সিগঞ্জ জেলার তিনটি আসনের প্রার্থী নিয়েও জেলার আওয়ামী লীগ নেতা-কর্মি সমর্থক ও প্রার্থীদের মাঝে বিরুপ প্রতিক্রিয়া লক্ষ্য করা যায়। আশা করবো এই ভুয়া তালিকা প্রকাশ বিষয় খোঁজ খবর নিয়ে এবং যে সমস্ত অনলাইন মিডিয়া ভুয়া তালিকা প্রকাশ করে জনমনে বিভ্রান্তি ছড়াচ্ছে তাদের বিষয় বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ ব্যবস্থা নিবেন।

আমার জানামতে তপসিল ঘোষনার পর বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ মনোনয়নে আগ্রহীদের মাঝে আবেদন পত্র বিক্রি করবেন, এই আবেদন পত্র বিক্রির মোটা অঙ্কের টাকা পার্টির ফান্ডে জমা হয়। আবেদনকৃত প্রার্থীরা আবেদনপত্র পুরন করে আওয়ামী লীগ অফিসে জমা দিবেন।

যে সমস্ত ব্যাক্তিবর্গ আবেদনপত্র জমা দিবেন তাদের নিদ্ধারিত তারিখে মনোনয়ন বোর্ডের কাছে উপস্থিত হয়ে বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দিতে হবে। এবং মনোনয়ন বোর্ডের সদস্যরা আগ্রহী প্রার্থীকে বিভিন্ন ধরনের দিক-নিদের্শনা ও পরামর্শ দিবেন।

তাছাড়া জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর হাতে গড়া, বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ একটি গনতান্ত্রিক রাজনৈতিক সংগঠন এবং তৃনমুলকে মুল্যায়ন করে থাকে সঙ্গত কারনেই প্রার্থী চাড়ান্ত করার আগেই তৃনমুল নেতৃবৃন্দের মতামত নিয়ে থাকেন।

সব দিক বিবেচনা করে বলা যায় বিভিন্ন সংস্থার রিপোর্ট প্রতিবেদন,মাঠ পয্যায় জড়িপ রিপোর্ট এবং তৃনমুলের মতামতের উপর ভিক্তি করে, নির্বাচনী এলাকায় প্রার্থীর গ্রহন যোগ্যতা এবং বিরোধী পক্ষের প্রার্থীর অবস্থান সার্বিক বিবেচনায় যিনি অগ্রগামী থাকবেন তাকেই মনোনয়ন দেওয়া হয়।

তবে এই বারের একাদশ নির্বাচন যেহেতু অংশগ্রহনমুলক হবে, সকল রাজনৈতির দলসমুহের নির্বাচনে অংশগ্রহনের সম্ভাবনা আছে সেহেতু প্রার্থী মনোনয়নের ক্ষেত্রেও পুংখানুপুংখভাবে বিবেচনা করা হবে।

সম্পাদক, চেতনায় একাত্তর

Leave a Reply