ঐক্যফ্রন্ট চাইলে ছোট পরিসরে আবার সংলাপ হতে পারে

শ্রীনগরে ওবায়দুল কাদের
আরিফ হোসেন: আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, সংলাপে ব্যার্থতার কিছু নেই। অপজিশন কিভাবে রিয়েক্ট করে এটা তাদের ব্যাপার। আমি তো মনে করিনা। শুরুটা ভাল হয়েছে। তাদের ৭ দফার ৩টি বিষয়ে আমাদের কোন বাধা, আপত্তি থাকবেনা। তারা চাইলে ছোট পরিসরে আবারো সংলাপ হতে পারে।

শুক্রবার সকাল ১০ টার দিকে শ্রীনগর উপজেলার দোগাছি এলাকায় পদ্মা সেতুর ভিজিটরস সেন্টার উদ্বোধন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রী আরো বলেন, প্রধানমন্ত্রী বলছেন তারা যদি আবার আসতে চান তাহলে আমার দরজা খোলা।

সড়ক পরিবহণ ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেন, দীর্ঘদিনের লং গ্যাপ, ডিস্টেন্স। এ লং ডিস্টেন্স এটাকে রাতারাতি ওভারনাইট ম্যাজিক্যাল ট্রান্সফরমেশন সম্ভব না, ক্লোজ করাও সম্ভব না। কিন্তু সংলাপে কিছু বিষয়ে ইতিবাচক অগ্রগতি হয়েছে।

বিএনপি নেতা কর্মীদের যাদের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা ও মামলা আছে, ক্রিমিনাল অফেন্স ছাড়া যদি শুধু রাজনৈতিক কারনে তাদের বিরুদ্ধে মামলা হয়, তাহলে তাদের তালিকা পাঠাতে বলেছি। এই তালিকা অনুযায়ী সুষ্ঠ তদন্ত করা হবে।

তিনি বলেন,৮ নভেম্বর পর্যন্ত সংলাপ হবে। পরশু সংলাপে কেউ কেউ ২-৩ বার বক্তব্য রেখেছেন। ভালো আলোচনা হয়েছে। তারা চাইলে আবারো আলোচনা হতে পারে। দূরত্বটা বহু দিনের। টানা পোড়ণের ক্ষেত্রে ২১ আগষ্ট, ১৫ আগষ্ট সেনসিটিভ ইস্যু। ২১ আগষ্ট বিএনপি আমলে নৃশংস ঘটনা ঘটে, বেগম আইভি রহমানসহ ২২টি প্রাণ ঝড়ে গেছে।

আমরা জানি ৭৫ এর ১৫ আগষ্ট যেই বর্বরোচিত জাতির পিতাকে হত্যাকান্ড। সেখানে হত্যাকারীকে যারা পুরষ্কৃত করেছেন এবং যারা তাদের পঞ্চম সংশোধনী করে হত্যাকারীদের বিচার হবে না, এইরকম বিষয় অন্তর্ভুক্ত করেছিল সংবিধানে। তারপরও আমরা পলিটিক্স করি, একটি ওয়ার্কিং আন্ডারস্ট্যান্ডিং থাকা আবশ্যক।

প্রধানমন্ত্রী তার জীবনের ওপর এটেম্প এগুলো ভুলে গিয়ে জাতীয় স্বার্থকে, গণতন্ত্রের ধারাকে অব্যাহত রাখার ওপর সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব দিয়ে সংলাপে বসেছেন। অনুষ্ঠানে মন্ত্রীর সাথে সেতু মন্ত্রনালয়ের উর্দ্ধতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।#

Leave a Reply