টাইগার ভক্ত শোয়েব আলীর মানবতার গল্প

বাংলাদেশের খেলা হলে গ্যালারীতে এক পরিচিত মুখ ‘টাইগার শোয়েব আলী’। দেশ-বিদেশে যেখানেই টাইগারদের খেলা হোক সেখানেই শোয়েব চলে যান সমর্থন দিতে। এমন অসংখ্য গল্প আছে। তবে এর বাইরে মানবতার বিশেষ দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন ক্রিকেট পাগল ৩০ বছর বয়সী শোয়েব আলী।

জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে বাংলাদেশের ওয়ানডে সিরিজের পর আজ (৩ নভেম্বর) সিলেটে শুরু হয়েছে টেস্ট সিরিজ। সবসময় গ্যালারীতে টাইগারদের জন্য গর্জন করা শোয়েব যেতে পারেননি খেলা দেখতে। এর পিছনের কারণটি যে কোনও মানুষের মনকে ছুঁয়ে যাবে।

এয়ারপোর্ট ট্রেন স্টেশনে মোঃ ছামিউল

একটু অসুস্থ শরীর নিয়েই খেলা দেখার উদ্দেশ্যে গতকাল (২ নভেম্বর) রাতে শোয়েব আলী ঢাকার বাড্ডা থেকে সিলেটের পথে রওনা করেন। এরপর এয়ারপোর্ট ট্রেন স্টেশনে যান। সেখানে গিয়ে এক বয়স্ক লোককে মাটিতে পড়ে থাকতে দেখেন। পরিচয় না জানা অসুস্থ লোকটিকে রেখে আর ট্রেনে উঠা হয়নি শোয়েবের। ছিলেন তাঁর পাশে।

সেটি জানিয়ে নিজের ফেসবুক প্রোফাইলে শোয়েব লিখেন,

“জ্বর-সর্দি নিয়ে খেলা দেখার জন্য সিলেটের উদ্দেশ্যে রওনা দিয়েছিলাম।কিন্তু এয়ারপোর্ট ট্রেন স্টেশনে দেখি এই লোকটি শুয়ে আছে। অসুস্থ অনেক। দুই ঘন্টা থেকে ওনার পাশে আছি। উনার নাম মোঃ ছামিউল। মুন্সিগঞ্জ বাসা। ঢাকায় মেয়ের বাড়ি এসেছিলেন। এরপর যাবার সময় অসুস্থ হয়ে পড়েন। ঠিকমতো কথাও বলতে পারছেন না। এখন ওনাকে একা রেখে যেতে পারছি না। কাল হয়তো মাঠে থাকা হবে না! একটু সুস্থ হলে হয়তো বাসার তথ্য পাওয়া যাবে। দোয়া করবেন।”

তবে এই গল্প এখানেই শেষ হয়নি। রাতে লোকটির পাশে থেকে খাবারের ব্যবস্থা করেন। কিছুটা সুস্থ হয়ে কথা বলার পর্যায়ে আসার পর তাঁর কাছে ঠিকানা শুনে নেন। এরপর আজ অসুস্থ সেই লোকটিকে পরিবারের কাছে পৌঁছে দিয়ে আসেন।

শোয়েব ফেসবুকে বলেন, “কাল যে অসুস্থ লোকটার ছবি দিয়েছিলাম। আজ তাকে মুন্সিগঞ্জে বাসায় পৌঁছে দিয়ে আসলাম। উনি মেয়ের বাসায় বেড়াতে এসেছিলেন। এরপর বাসা ফিরে যাওয়ার সময় অজ্ঞানপার্টির কবলে পড়েন। তারা মোবাইল,টাকা-পয়সা সব নিয়ে চলে যায়। এরপর ওনাকে এয়ারপোর্ট ট্রেন স্টেশনে ফেলায় রাখে। কয়েকদিন থেকে স্টেশনে অসুস্থ পড়েছিলেন। কাল বাংলাদেশের খেলা দেখার জন্য সিলেট যাওয়ার সময় আমি তাকে দেখতে পাই। উনিই কথাই বলতে পারছিলেন না।

এরপর খাওয়া-দাওয়া করে একটু সুস্থ হবার পর বাড়ির ঠিকানা জিজ্ঞেস করি। আজ ওনাকে বাসায় পৌঁছে দিয়ে আসলাম। ওনার পরিবারের লোকজন অনেক দুশ্চিন্তায় ছিলেন। বাসায় নিয়ে যাওয়ার পর তার পরিবারের মানুষগুলোর মুখে হাসি দেখে খুব ভালো লেগেছে। মনে অনেক শান্তি লাগতেছে।”

পরিবারের সাথে মোঃ ছামিউল হক, পাশে শোয়েব আলী

এদিকে গতকাল যেতে না পারলেও টাইগারদের সমর্থন দিতে আজ রাতে সিলেট যাচ্ছেন শোয়েব। এই বিষয়ে এক ফোনালাপে বিডিক্রিকটাইমকে শোয়েব জানান, “আমি যেদিন থেকে মাঠে খেলা দেখতে শুরু করেছি, এরপর কখনও দেশের ভিতর খেলা মিস করিনি। তবে আজ জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে টেস্টের প্রথম দিন মাঠে ছিলাম না। এইজন্য আমার আফসোস হলেও খারাপ লাগছে না। লোকটির পরিবারের কাছে পৌঁছে দিতে পেরেই শান্তি লাগতেছে। রাতেই সিলেট যাচ্ছি। ইন শা আল্লাহ কাল গ্যালারীতে গর্জন হবে। ”

বিডিক্রিকটাইম

Leave a Reply