রাস্তার কাজে অনিয়মের অভিযোগ, চরমে জনদুর্ভোগ

জেলার শ্রীনগরে একটি রাস্তার নির্মাণ কাজে ঠিকাদারের বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠেছে। পাশাপাশি সৃষ্টি হয়েছে জনদুর্ভোগ। এফডিআর প্রকল্পের আওতায় উপজেলার বালাশুর আর অ্যান্ড এইচ ভাগ্যকুল জিসি মাওয়া সড়ক পূর্ণবাসন (চেই. ০০-৭৫০ মি. এবং ১৪৬০-৪২০০ মি. শ্রীনগর অংশ) কাজ বাস্তবায়নের লক্ষে ১ কোটি ৩০ লাখ টাকা মূল্যে কাজ পায় মিজান অ্যান্ড ব্রাডার্স নামক ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান। কয়েক মাস আগে রাস্তার কাজে খোড়াখুড়ি শুরু করে কাজ ফেলে রাখেন। বেশকিছুদিন পরে পুনরায় কাজ শুরু করলেও নিম্ন মানের উপকরণ ব্যবহার করায় স্থানীয় লোকজন সংশ্লিষ্ট দপ্তরে অভিযোগ করেন।

সরেজমিনে গিয়ে জানা যায়, মিজান অ্যান্ড ব্রাদার্স নামে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের মালিক মো. মিজান নামে জনৈক ব্যক্তি রাস্তার কাজ করছেন। একটি গুরুত্বপূর্ণ রাস্তায় যে নিয়ম কানুন মেনে ঠিকাদারের কাজ করার কথা তার কিছুই মানা হচ্ছে না বলে জানান এলাকাবাসী। বর্তমানে রাস্তার পাশে ড্রেনেজ ব্যবস্থার কাজ চলছে ধীর গতিতে। সেখানেও নিম্নমানের ইট বালু ব্যবহার করা হচ্ছে।

স্থানীয় বীর মুক্তিযোদ্ধা গাজী আব্দুল লতিফ বলেন, রাস্তায় কাজের শুরু থেকেই অনিয়ম করে আসছে ঠিকাদার। আমি একাধিক বার অনিয়মের বিষয়ে তাকে বলেছি। তিনি কোনো কিছুর তোয়াক্কা করেন না। পরে এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার এর কাছে লিখিত অভিযোগ দিয়েছি।

আব্দুল বারেক সিকদার ও কৃষ্ণ হাজারীসহ বিভিন্ন ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠানের মালিকগণ বলেন, এখানে কাজের অগ্রগতি একদম কম। এ কাজের জন্য আরো শ্রমিক প্রয়োজন। যানবাহন ও সাধারণ জনগণের চলাচলের এই গুরুত্বপূর্ণ রাস্তাটি খোড়াখুড়ি করে ফেলে রাখায় চরম জনদুর্ভোগ সৃষ্টি হয়েছে। এ রাস্তা দিয়ে ভাগ্যকুল বাজার, হরেন্দ্রলাল স্কুল অ্যান্ড কলেজ, র‌্যাব-১১ অফিস, পানি উন্নয়ন বোর্ড অফিসসহ বিভিন্ন সরকারি প্রতিষ্ঠান রয়েছে। তাই প্রতিদিন হাজার হাজার মানুষের চলাচলে বিঘ্ন ঘটছে।

এ ছাড়াও রয়েছে রাস্তার কাজে নানা অনিয়ম। এলাকাবাসী জানান ঠিকাদার মিজান উপজেলা বিএনপি নেতার ভাই হওয়ায় প্রভাব খাটিয়ে কাজ করেন। তিনি কারো কথায় কর্ণপাত করেন না।

এসব অভিযোগের বিষয়ে ঠিকাদার মিজানের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, জনগণতো কত কথাই বলে! ভালোর কি কোনো শেষ আছে?

সড়কটির তদারকি কর্মকর্তা উপজেলা সহকারী প্রকৌশলী আব্দুল্লাহ আল-মামুন বলেন, ওই রাস্তায় মিজানের কাজে অনিয়মের বিষয়টি জেলা এক্সচেঞ্জ অফিসে লিখিত ভাবে জানানো হয়েছে।

শ্রীনগর উপজেলা প্রকৌশলী আ. মান্নান জানান, নিম্নমানের সামগ্রী দিয়ে কাজের অভিযোগ পেয়ে আমরা তাকে নিষেধ করেছি। তার পরও কর্ণপাত না করায় বিষয়টি জেলা প্রকৌশলীকে জানানো হয়েছে।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. জাহিদুল ইসলাম জানান, এই রাস্তার বিষয়ে ইতোপূর্বে অভিযোগ পেয়ে আমি উপজেলা প্রকৌশলীকে সরেজমিনে গিয়ে তদন্তপূর্বক ব্যবস্থা গ্রহণের নির্দেশ দিয়েছিলাম। জনদুর্ভোগ সৃষ্টি কিংবা নিম্নমানের নির্মাণ সামগ্রী দিয়ে কাজ করা কোনো ভাবেই বরদাস্ত করা হবে না। এর পরেও ঠিকাদার কথা না শুনলে তার লাইন্সেস বাতিলের জন্য আবেদন জানাব বলেও জানান তিনি।

নিউজজি

Leave a Reply