মুন্সীগঞ্জ-১ : চৌধুরীদের ঘর ছাড়বে আ.লীগ?

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের হাওয়ায় উত্তাল রাজধানীর নিকটবর্তী জেলা মুন্সীগঞ্জ-১ আসনের শ্রীনগর ও সিরাজদীখান উপজেলা। জেলায় এই আসনটি ভিআইপি আসন হিসেবে পরিচিত। রয়েছেন হেভিওয়েট প্রার্থী। বিগত নির্বাচনগুলোতে বেশ কয়েকজন রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব এই আসন থেকে অংশ নিয়েছেন। রাষ্ট্রপতি থেকে মন্ত্রী সবই ছিল এই আসনটিতে। তাছাড়া বর্তমানে দেশের মেঘা প্রজেক্ট পদ্মা সেতু এই অঞ্চল সংলগ্ন। এই অঞ্চলের ভবিষ্যৎ অনেকাংশেই উজ্জ্বল। তাই আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে কেন্দ্র কর এই আসনটি বিশেষ গুরুত্ব বহন করছে।

নির্বাচনকে সামনে রেখে মুন্সীগঞ্জ-১ আসনের বড় দুই রাজনৈতিক দল ছাড়াও অন্যন্য দলের মনোনয়ন প্রত্যাশীরা মাঠে বেশ তৎপর হয়ে উঠেছেন। পাশাপাশি দলীয় নেতাকর্মী-সমর্থক ও ভোটারদের কাছে টানতে সভা-সমাবেশ ও গণসংযোগ চালিয়ে যাচ্ছেন শ্রীনগর-সিরাজদিখান উপজেলার মনোনয়ন প্রত্যাশীরা।

তবে এদের মধ্যে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশীরা এগিয়ে। এই দলটির মনোনয়ন প্রত্যাশী প্রার্থীর সংখ্যা অন্তত দুই হালি (৮ জন)।

ইতোমধ্যে তফসিল ঘোষণা করে আগামী ২৩ ডিসেম্বর জাতীয় সংসদ নির্বাচনের দিন ঠিক করেছে নির্বাচন কমিশন। আর এরমধ্যে বি চৌধুরীর যুক্তফ্রন্ট আওয়ামী লীগের সঙ্গে জোট করে নির্বাচন করার গুঞ্জন শোনা যাচ্ছে। যদি সমিকরণটি এমন হয় ‘১১তম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে যুক্তফ্রন্ট মহাজোটের সঙ্গে ঐক্য হয়ে নির্বাচনে অংশ নিচ্ছে আর মাহি বা বি চৌধুরীকে মুন্সীগঞ্জ-১ আসন থেকে মনোনয়ন দেয়া হয়েছে, তাহলে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশীরা কী করবেন?’

মুন্সীগঞ্জ-১ আসনে আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে নির্বাচন করতে চান এমন কয়েকজনের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, এই আসনটিতে বর্তমানে নৌকার কোনো বিকল্প নেই। তবে দলীয় সিদ্ধান্তই সর্বোচ্চ।

তারা বলেন, আওয়ামী লীগ সরকার গঠন করতে যেই সিদ্ধান্ত নেবে সেই মোতাবেক আমরা কাজ করব।

আওয়ামী লীগের সঙ্গে ঐক্য গঠন করে মাহি বি চৌধুরী বা একিউএম বদরুদ্দোজা চৌধুরীর এই আসন থেকে মনোনয়ন দাবি প্রসঙ্গে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী দলের কেন্দ্রীয় কমিটির সাবেক স্বাস্থ্য ও জনসংখ্যাবিষয়ক সম্পাদক অধ্যাপক ডা. বদিউজ্জামান ভূঁইয়া ডাবলু বলেন, ‘নৌকার বাইরে কেউ নয়। এখানে নির্বাচন নৌকাই করবে। আমরা নৌকার বিজয়ের জন্যই কাজ করছি। তবে নেত্রী যাকে মনোনয়ন দেবেন তার পক্ষেই সবাই কাজ করব।’

একই প্রসঙ্গে বাংলাদেশ শেখ রাসেল ক্রীড়া চক্রের সভাপতি ও মুন্সীগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি নূরুল আলম চৌধুরী বলেন, শেখ হাসিনার একজন কর্মী হিসেবে তার সিদ্ধান্তই আমার সিদ্ধান্ত। আমি ওই বিষয়ে কিছুই বলব না।

তিনি আরও বলেন, আমি একজন প্রার্থী, মনোনয়ন প্রত্যাশী। ওটা রাজনৈতিক সিদ্ধান্ত, জাতীয় সিদ্ধান্ত। গুঞ্জন নিয়ে আলোচনার কোনো অবকাশ নেই।

আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী বাংলাদেশ কম্পিউটার সমিতির (বিসিএস) সভাপতি ইঞ্জিনিয়ার সুব্রত সরকার বলেন, যতটুকু জানি এখানও যুক্তফ্রন্টের আওয়ামী লীগের সঙ্গে ঐক্য গঠনের বিষয়ে কোনো সিদ্ধান্ত আসেনি। কেন্দ্র থেকে যেসব সিদ্ধান্ত নেয়া হবে সেই অনুযায়ী কাজ করা হবে।

আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় উপ-কমিটির সাবেক সহ-সম্পাদক গোলাম সারোয়ার কবীর বলেন, জননেত্রী শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী করতে দীর্ঘ বছর ধরে শ্রীনগর ও সিরাজদিখানে আওয়ামী লীগের বার্তা পৌঁছে দিচ্ছি। তবে দল যাকে মনোনয়ন দেবে তার জন্যই কাজ করব।

স্থানীয় আওয়ামী লীগের আরও বেশ কয়েকজন প্রার্থী তালিকায় আলোচনায় রয়েছেন বর্তমান সংসদ সদস্য সুকুমার রঞ্জন ঘোষ, সিরাজদিখান উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি, উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মহিউদ্দিন আহমেদ, শ্রীনগর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক তোফাজ্জল হোসেন ও মুক্তিযোদ্ধা সাবেক সচিব মো. শামসুল হক।

শ্রীনগর উপজেলার ১৪টি ও সিরাজদিখান উপজেলার ১৪টি ইউনিয়ন নিয়ে গঠিত মুন্সীগঞ্জ-১ নির্বাচনী এলাকা। বর্তমানে শ্রীনগর উপজেলার ১৪টি ইউনিয়নের মোট ভোটার ২ লাখ ৮ হাজার আর সিরাজদিখান উপজেলার ১৪টি ইউনিয়নের মোট ভোটার ২ লাখ ১৪ হাজার।

ভবতোষ চৌধুরী নুপুর/জাগো নিউজ

Leave a Reply