সংরক্ষিত ১৫ লাখ বস্তা আলু এখনও অবিক্রীত

চাহিদার তুলনায় দেশের বিভিন্ন জেলায় উৎপাদন বেশি হওয়ায় মুন্সীগঞ্জের ৭৪টি কোল্ডস্টোরেজে সংরক্ষণ করা ২০ লাখ বস্তার মধ্যে ১৫ লাখ বস্তা আলু এখনও অবিক্রীত অবস্থায় রয়ে গেছে। এতে দুশ্চিন্তায় পড়েছেন কৃষক ও মধ্যস্বত্বভোগী ব্যবসায়ীরা। উৎপাদন খরচের চেয়ে বস্তাপ্রতি আলুর বাজারমূল্য ১০০ টাকা কম হওয়ায় বিপুল অঙ্কের লোকসানে পড়তে পারেন কৃষক। বর্তমানে জেলার বিভিন্ন এলাকায় নতুন করে আলু লাগাতে শুরু করেছেন কৃষক। এসব নতুন আলু উঠতে শুরু করলে কোল্ডস্টোরেজগুলোতে বস্তাপ্রতি আলুর বাজারমূল্য আরও কমে যাবে। বাড়বে লোকসানের পরিমাণও।

অন্যদিকে বাংলাদেশ কোল্ডস্টোরেজ অ্যাসোসিয়েশনের পক্ষ থেকে সংরক্ষণ করা আলুর বর্তমান বাজারমূল্য পর্যবেক্ষণ করা হচ্ছে। বস্তাপ্রতি আলুর মূল্য আরও কমতে শুরু করলে লোকসানের হাত থেকে কৃষক ও ব্যবসায়ীদের রক্ষা করতে সরকারের কাছে সাহায্য চাওয়া হবে বলে জানান অ্যাসোসিয়েশনের চেয়ারম্যান মো. মোশারফ হোসেন।

টঙ্গিবাড়ীর রহিমগঞ্জ বাজারের একতা কোল্ডস্টোরেজের ম্যানেজার মো. দীন ইসলাম জানান, তাদের কোল্ডস্টোরেজের ধারণক্ষমতা দুই লাখ বস্তা। এর মধ্যে এখনও এক লাখ ৩৫ হাজার বস্তা আলু সংরক্ষিত আছে। যার মধ্যে প্রায় ৫০ হাজার বস্তা বীজ। আগামীতে মূল্য কমে গেলে লোকসানও বাড়বে।

মিরকাদিম এলাকার আলী কোল্ডস্টোরেজের ম্যানেজার আবদুল গফুর কাজী জানান, চাহিদার তুলনায় উৎপাদন অনেক বেশি হওয়ায় গত কয়েক বছরের মতো এ বছরও কৃষক ও ব্যবসায়ীরা লোকসানের শিকার হবেন বলে আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। এমন অবস্থায় দ্রুততম সময়ের মধ্যে সংরক্ষিত আলু বিদেশে রফতানির ব্যবস্থা নিতে হবে।

জানা গেছে, জেলায় যে ১৫ লাখ বস্তা আলু সংরক্ষিত রয়েছে তার বস্তাপ্রতি উৎপাদন ও কোল্ডস্টোরেজের ভাড়াসহ খরচ পড়েছে ৮০০ থেকে ৮৫০ টাকা। আর বর্তমানে প্রতি বস্তা আলুর মূল্য ৭০০ থেকে ৭৫০ টাকা।

কৃষকরা জানিয়েছেন, কোল্ডস্টোরেজের ভাড়াসহ প্রতি বস্তা আলুর খরচ তুলে আনতেই হিমশিম খেতে হচ্ছে তাদের।

কোল্ডস্টোরেজ অ্যাসোসিয়েশনের চেয়ারম্যান মোশারফ হোসেন জানান, বর্তমান পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করা হচ্ছে। বাজারমূল্য আরও কমে গেলে কৃষক ও ব্যবসায়ীদের রক্ষার জন্য কৃষি মন্ত্রণালয় ও খাদ্য মন্ত্রণালয়ে পৃথক চিঠি দিয়ে বিদেশে রফতানিসহ আলুর বহুমুখী ব্যবহারে উদ্যোগ নেওয়ার দাবি জানানো হবে।

সমকাল

Leave a Reply