বাংলাদেশ দূতাবাসে ‘হেলেন কেলার’ মঞ্চস্থ

রাহমান মনি: জাপানে বাংলাদেশ দূতাবাসে একক অভিনয়ের নাটক ‘হেলেন কেলার’ মঞ্চস্থ হয়েছে। জাপান সফররত বাংলাদেশের নাট্য সংগঠন ‘স্বপ্নদল’ নাটকটি পরিবেশন করে।

৫ নভেম্বর সোমবার ২০১৮ দূতাবাসের ‘বঙ্গবন্ধু’ মিলনায়তনে একক মঞ্চ নাটকটিতে হেলেন কেলার এ চরিত্রে অভিনয় করেন স্বপ্নদল নাট্য সংগঠনের অন্যতম সদস্য জুয়েনা শবনম।

বাংলাদেশ দূতাবাস ভবনে ৫ নভেম্বর অপরাহ্ণে স্বপ্নদলের সদস্য এবং অতিথিদের স্বাগত জানান জাপানে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত রাবাব ফাতিমা।

দূতালয় প্রধান এবং প্রথম সচিব মো. জোবায়েদ হোসেনের পরিচালনায় নাটকটি মঞ্চায়নের আগে স্বাগত বক্তব্যে সকলের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়ে রাষ্ট্রদূত রাবাব ফাতিমা বলেন, ‘স্বপ্নদল’ খুব পুরনো নাট্যদল না হয়েও ইতোমধ্যে তারা উন্নতমানের নাটক পরিবেশনায় আলোচিত হয়ে নিজেদের স্থান করে নিয়েছে। তাদের নাটক ত্রিবিংশ শতাব্দী যথেষ্ট সুনাম কুড়িয়েছে। যার ফলশ্রুতিতে, ফেস্টিভ্যাল টোকিওর মতো বড় আয়োজনে তারা আমন্ত্রিত হয়ে আসার গৌরব অর্জন করতে পেরেছে। এ ধরনের আমন্ত্রণ আন্তর্জাতিক ক্ষেত্রে আমাদের নাট্যাঙ্গনের গ্রহণযোগ্যতা অনেক বাড়িয়ে দেয়।

রাষ্ট্রদূত রাবাব ফাতিমা আরও বলেন, যুদ্ধ নয় শান্তি এই বার্তা নিয়ে স্বপ্নদলের অন্যতম নাটক ত্রিংশ শতাব্দী বাংলাদেশসহ জাপানে খুব প্রশংসা পেয়েছে।

আগামী দিনগুলিতে এই সংস্কৃতি বিনিময় অব্যাহত রেখে জাপান-বাংলাদেশ সাংস্কৃতিক সম্পর্ক আরও দৃঢ় হবে বলে রাষ্ট্রদূত আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

হেলেন কেলার : শারীরিক প্রতিবন্ধকতা জয় করে জয়গান করা এক যোদ্ধা, এক মহীয়সী নারী হেলেন কেলারের জীবন, কর্ম, সংগ্রাম ও দর্শনভিত্তিক একক-অভিনয় নাটক ‘হেলেন কেলার’।

জীবন যার ভাষাহীন, প্রকৃতির রূপ-রস-গন্ধ থেকে যিনি বঞ্চিত, এক কথায় শ্রবণহীন জীবন- এ ধরনের মানুষকে বিধাতার চরম অভিশাপ হিসেবেই মনে করেন অনেকে। কিন্তু এমনও একজন ছিলেন যিনি তা কখনোই বিশ্বাস করতেন না। এরকম অসহায়ত্বকে জয় করে পৃথিবীর ইতিহাসে চিরস্মরণীয় হয়ে রয়েছেন যে ব্যক্তি, তিনি আর কেউ নন- মানবতার পূজারি মহীয়সী নারী হেলেন কেলার। একাধারে তিনি ছিলেন সাহিত্যিক ও মানবতাবাদী। প্রথম বিশ্বযুদ্ধের বহু অন্ধ, বিকলাঙ্গ, পঙ্গু মানুষের পাশে দাঁড়িয়ে তাদের উৎসাহিত করেছেন, তাদের মধ্যে জাগিয়েছেন বাঁচার অনুপ্রেরণা। কিন্তু জীবনের শুরুতে তিনি হয়ে পড়েছিলেন দৃষ্টিপ্রতিবন্ধী ও শ্রবণশক্তিহীন।

হেলেন কেলার এমনই এক নাম যা অন্ধ, বিকলাঙ্গ, প্রতিবন্ধী মানুষের কাছে এক আত্মবিশ্বাসের প্রতীক। যুগে যুগে এই মহীয়সী নারীর রেখে যাওয়া দৃষ্টান্তই হোক সকলের পথচলার মন্ত্র। প্রচণ্ড ইচ্ছেশক্তি মানুষকে যে কোথায় নিয়ে যেতে পারে, তার এক জ্বলন্ত উদাহরণ হেলেন কেলার। শারীরিক সব অক্ষমতাকে প্রচণ্ড মানসিক শক্তি দিয়ে জয় করে হেলেন হয়ে উঠেছিলেন একজন চিন্তাশীল-সৃষ্টিশীল মানুষ, যে মানুষটি সবসময় বলতেন, ‘অন্ধত্ব নয়, অজ্ঞতা ও অনুভূতিহীনতাই দুনিয়ার একমাত্র দুর্ভেদ্য অন্ধকার’। সূত্র : ইন্টারনেট

এ নাটকে তুলে ধরা হয়েছে অন্ধ ও বধির এ নারীর প্রবল আত্মবিশ্বাসে ঘুরে দাঁড়ানোর গল্প। নারী জাগরণ ও মানবতাবাদের পক্ষে, যুদ্ধ, ধ্বংস, সহিংসতা, বর্ণবাদ তথা আণবিক অস্ত্রের বিরুদ্ধে স্পষ্ট অবস্থানের কথা তুলে ধরেন তিনি। পাশাপাশি আসে নারীর ব্যক্তিজীবনের নানা পূর্ণতা-অপূর্ণতার প্রসঙ্গ। বহু প্রতিকূলতার বিরুদ্ধে লড়াই করে প্রকাশিত ও বিকশিত হয়ে মানবকল্যাণে নিবেদিত হতে পারাটা-ই যে জীবনের চূড়ান্ত সার্থকতা, উচ্চাঙ্গের শিক্ষাই প্রধান হয়ে ওঠে হেলেন কেলার-এর জীবনীনির্ভর এ নাট্যপ্রযোজনায়।

দূতাবাসে বঙ্গবন্ধু মিলনায়তন কানায় কানায় পরিপূর্ণ দর্শকদের উল্লেখযোগ্যসংখ্যক জাপানিজ দর্শক ছিলেন। নাটকটির কোনো সাবটাইটেল না থাকা সত্ত্বেও জাপানি দর্শকরা মনোযোগ সহকারে নাটকটি উপভোগ করেন।

নাটক পরিবেশনা শেষে স্বপ্নদল-এর প্রতিষ্ঠাতা জাহিদ রিপন দর্শকদের হেলেন কেলার নাটকের বিষয়বস্তুর বিস্তারিত বর্ণনা দেন। জাপানি ভাষায় তা তর্জমা করেন জুয়েল আহসান কামরুল।

উল্লেখ্য, জাপানের সর্ববৃহৎ নাট্য ও সাংস্কৃতিক উৎসব ‘ফেস্টিভ্যাল টোকিও ২০১৮’-তে আমন্ত্রিত হয়ে অংশ নিয়েছে বাংলাদেশের তারুণ্যদীপ্ত নাট্যসংগঠন স্বপ্নদল। উৎসবে দলের সাড়া জাগানো প্রযোজনা ‘ত্রিংশ শতাব্দী’র দুটি প্রদর্শনী করে।

‘ফেস্টিভ্যাল টোকিও ২০১৮’-এ স্বনামখ্যাত টোকিও মেট্রোপলিটন থিয়েটার ‘থিয়েটার ওয়েস্ট’ মিলনায়তনে কানায় কানায় দর্শক সমাগমে ৩ ও ৪ নভেম্বর প্রদর্শিত হয় যুদ্ধবিরোধী গবেষণাগার প্রযোজনা ‘ত্রিংশ শতাব্দী’।

‘হেলেন কেলার’ নাটকটি দূতাবাসে মঞ্চস্থ করতে সহযোগিতায় ছিল লেখক-সাংবাদিক ফোরাম, জাপান।

সাপ্তাহিক

Leave a Reply