১৪ দলের সঙ্গে জোটবদ্ধ হয়ে নির্বাচনে যাওয়ার চেষ্টা চলছে: বি. চৌধুরী

যুক্তফ্রন্টের চেয়ারম্যান ও বিকল্পধারা বাংলাদেশের সভাপতি অধ্যাপক ডা. এ কিউ এম বদরুদ্দোজা চৌধুরী বলেছেন, ১৪ দলের সঙ্গে জোটবদ্ধ হয়ে নির্বাচনে যাওয়ার চেষ্টা চলছে। শনিবার সন্ধ্যায় দলীয় এক অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন।

এর আগে ১৩ নভেম্বর আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন মহাজোটের সঙ্গে বিকল্প ধারা নেতৃত্বাধীন যুক্তফ্রন্টের ঐক্যবদ্ধভাবে অংশ নেওয়ার বিষয়ে বৈঠক হয়।

মঙ্গলবার ধানমণ্ডিতে আওয়ামী লীগ সভানেত্রীর দলীয় কার্যালয়ে ওবায়দুল কাদেরের সঙ্গে আলোচনা করেন বিকল্প ধারার মহাসচিব আবদুল মান্নান ও যুগ্ম মহাসচিব মাহি বি চৌধুরী।

বৈঠকের পর মাহি বি চৌধুরী সাংবাদিকদের বলেন, ‘মহাজোট গঠনের বিষয়ে আমরা ১৪ দলের সঙ্গে আলোচনা করতে চাই। তবে কিভাবে আলোচনা করা যায় সেই বিষয়টি নিয়েই কথা বলতে এসেছি। মূলত বাংলাদেশবিরোধী শক্তিকে রুখে দেওয়ার জন্যই আমরা আনুষ্ঠানিক এই আলোচনার চিন্তা করছি।’

চৌদ্দ দলের সাথে জোটগতভাবে নির্বাচনে আসছেন কিনা এমন প্রশ্নে মাহি বলেন, ‘আমরা নির্বাচনে আসছি সেটা শতভাগ নিশ্চিত। আর জোটগত নির্বাচনে আসা অসম্ভব নয়।’

তিনি বলেন, ‘মহাজোটের অংশ হয়ে যুক্তফ্রন্টের নির্বাচন করার সম্ভাবনা আছে।’

এরও আগে রবিবার বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ে আওয়ামী লীগের সংসদীয় বোর্ডের বৈঠকের পর ওবায়দুল কাদের মহাজোটের সঙ্গে যুক্তফ্রন্ট যুক্ত হতে পারে বলে জানান।

ওইদিন কাদের বলেন, ‘যুক্তফ্রন্টের সঙ্গে একটা অ্যালায়েন্স হতে পারে। তবে তারা নৌকায় ভোট করবেন না নিজেদের প্রতীকে ভোট করবেন সে সিদ্ধান্ত হয়নি। ধরে নিচ্ছি তারা নিজেদের প্রতীকে নির্বাচন করবে।’

বিএনপিকে নিয়ে ড. কামাল হোসেনের নেতৃত্বে গঠিত জাতীয় ঐক্য ফ্রন্ট থেকে বের হওয়ার কারণ জানতে চাইলে তিনি বলেন, বিএনপির আত্মার সঙ্গে জামায়াতে ইসলাম জড়িয়ে গেছে। আমরা ভেবেছিলাম তারা জামায়াতের সঙ্গ ত্যাগ করতে পারবে। যেহেতু তারা জামায়াতের সঙ্গ ত্যাগ করতে পারেনি, তাই আমরা বেরিয়ে এসেছি।

এদিকে ১২ নভেম্বর জাতীয় সংসদ নির্বাচনের তারিখ পিছিয়ে দেয়ায় তিনি প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কে এম নূরুল হুদাকে ধন্যবাদ জানান।

বিবৃতিতে বদরুদ্দোজা চৌধুরী বলেন, প্রধান নির্বাচন কমিশনার আমাদের প্রস্তাব গ্রহণ করায় আমরা খুশি হয়েছি। জনমত এবং জনস্বার্থের দু’টি বিষয় মনে রেখে নির্বাচন কমিশন নির্বাচনের পুনঃতফসিল ঘোষণা করায় আমি যুক্তফ্রন্ট ও দেশবাসীর পক্ষ থেকে সিইসি সকল কমিশনারকে আন্তরিক ধন্যবাদ জানাচ্ছি।

এর আগে দুপুরে বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কে এম নুরুল হুদা একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের নতুন তফসিল ঘোষণা করেন। নতুন তফসিলে ভোটগ্রহণ হবে ৩০ ডিসেম্বর। মনোনয়নপত্র দাখিলের শেষ সময় ২৮ নভেম্বর।

উল্লেখ্য, গত ৮ নভেম্বর সিইসি একাদশ জাতীয় সংসদের তফসিল ঘোষণা করা হয়। ওই সময় তফসিল অনুযায়ী আগামী ২৩ ডিসেম্বর ভোট হওয়ার কথা বলা হয়। তফসিল ঘোষণার পর থেকেই জাতীয় ঐক্যফ্রন্টসহ কয়েকটি রাজনৈতিক জোট ও দল তফসিল পেছানোর দাবি তুলেছিল।

রবিবার সংবাদ সম্মেলনে অবশ্য জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট তফসিল এক মাস পিছিয়ে দেয়ার দাবি জানিয়েছিল। নির্বাচন পিছিয়ে দেয়ার দাবি জানিয়েছিলেন বি চৌধুরীরও। তার দাবি ছিল নির্বাচন পিছিয়ে ৩০ ডিসেম্বর করা হোক।

আসন ভাগাভাগিতে টানাপোড়েন
আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের মহাজোটের শরিক দল হয়ে যুক্তফ্রন্ট তথা বিকল্পধারা ভোটের মাঠে নামবে। তবে আসন বণ্টন নিয়ে শুরুতেই ক্ষমতাসীনদের সঙ্গে টানাপোড়েন তৈরি হয়েছে বিকল্পধারার।

প্রাথমিকভাবে বি চৌধুরীর নেতৃত্বাধীন যুক্তফ্রন্টের জন্য ১০টি আসন চাওয়া হয়েছিল। কিন্তু শুরুতেই তা নাকচ হয়ে যায়। পরে বিকল্পধারার মহাসচিব মেজর (অব.) আবদুল মান্নান ও প্রেসিডিয়াম সদস্য মাহি বি. চৌধুরী আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের সঙ্গে দেখা করে অন্তত ৫ আসনের দাবি জানিয়ে যান। তবে শেষপর্যন্ত মহাজোট থেকে বিকল্পধারা বা যুক্তফ্রন্টকে দুই আসন ছেড়ে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

আওয়ামী লীগে মনোনয়ন প্রক্রিয়ায় সংশ্লিষ্ট একটি সূত্র জানিয়েছে, মুন্সীগঞ্জ-১ (সিরাজদিখান ও শ্রীনগর) ও নোয়াখালী-৪ (সদর ও সুবর্ণচর) আসন যুক্তফ্রন্টকে ছেড়ে দেওয়া হচ্ছে। মুন্সীগঞ্জ-১ আসনে বিকল্পধারার সভাপতি ও যুক্তফ্রন্টের আহ্বায়ক বি চৌধুরী চাইলে নিজেই প্রার্থী হতে পারেন কিংবা তার পরিবর্তে ছেলে মাহি বি. চৌধুরীকে প্রার্থী হিসেবে বেছে নিতে পারেন। নোয়াখালী-৪ আসনে দলের মহাসচিব মেজর (অব.) আবদুল মান্নানকে ছেড়ে দেওয়া হচ্ছে।

অবশ্য বিকল্পধারার আলোচিত দুই নেতার মহাজোটের প্রার্থিতাও চ্যলেঞ্জের মুখে পড়ে গেছে। এ নিয়ে মুন্সীগঞ্জ ও নোয়াখালীতে আওয়ামী লীগের তৃণমূল নেতাকর্মীদের মধ্যে বিরূপ প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে। তারা বহিরাগত কাউকে মেনে নিতে রাজি নন।

মুন্সীগঞ্জ-১ আসনের বর্তমান এমপি আওয়ামী লীগের সুকুমার রঞ্জন ঘোষ। তার পাশাপাশি এ আসনে ঢাকা মহানগর দক্ষিণ ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক গোলাম সারোয়ার কবিরের শক্ত অবস্থান রয়েছে। দলীয় জরিপে মুন্সীগঞ্জ-১ আসনটিতে আওয়ামী লীগ জয়ী হবে বলে উল্লেখ থাকায় এ আসনটি হাতছাড়া করতে রাজি হচ্ছেন না দলটির নির্বাচন পরিচালনা কমিটির একাধিক সদস্য।

তারা বলছেন, বিকল্পধারা পাশের আসন মু্ন্সীগঞ্জ-৩ (সদর ও গজারিয়া) তে ছাড় দিতে বলছেন। তবে শেষ পর্যন্ত এ আসনে মাহি বি. চৌধুরীর মহাজোটের মনোনয়ন পাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। কুলা প্রতীকে নির্বাচনে লড়বে বিকল্পধারা।

নোয়াখালী-৪ আসনের এমপি জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক একরামুল করিম চৌধুরী । জেলা কমিটিতে তার ব্যাপক প্রভাব থাকায় আওয়ামী লীগের স্থানীয় নেতাকর্মীরা তার নেতৃত্বেই একাট্টা। তাকে মনোনয়ন না দেওয়া হলে জেলার অন্য আসনগুলো বিরূপ প্রভাব পারে।

এ অবস্থায় ওবায়দুল কাদের লক্ষ্মীপুর-৪ আসনে মেজর (অব.) আবদুল মান্নানকে মহাজোটের মনোনয়ন দেওয়ার সম্ভাবনার কথা স্থানীয় নেতাদের জানিয়েছেন বলে জানা গেছে। এ আসনের বর্তমান এমপি মোহাম্মদ আবদুল্লাহ আওয়ামী লীগের।

যুক্তফ্রন্ট অবশ্য এখনও তাদের জন্য ৫ আসনের দাবিতে অনড় রয়েছে। এর মধ্যে মুন্সীগঞ্জ-১ আসনটি সহ মুন্সীগঞ্জ-৩ আসনও তারা নিজেদের দখলে রাখতে চায়। এক্ষেত্রে তাদের পরিকল্পনা হলো মুন্সীগঞ্জ-৩ (সদর ও গজারিয়া) আসন থেকে প্রার্থী হবেন বি চৌধুরী নিজেই আর বিকল্প ধারার যুগ্ম মহাসচিব ও বি চৌধুরীর ছেলে মাহি বি চৌধুরী মুন্সীগঞ্জ-১ থেকে নির্বাচন করবেন।

দলের মহাসচিব মেজর (অব.) আবদুল মান্নানও নোয়াখালী-৪ আসনের পরিবর্তে অন্য আসনে নির্বাচনে আগ্রহী নন বলে জানিয়েছেন।

উল্লেখিত তিনটি আসন ছাড়াও বিকল্পধারার সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য শমসের মবিন চৌধুরীকে সিলেট-৬ আসন থেকে এবং প্রেডিডিয়াম সদস্য গোলাম সারোয়ার মিলনকে মানিকগঞ্জ-২ আসনে মহাজোটের প্রার্থী হিসেবে মনোনয়নের জন্য যুক্তফ্রন্ট জোড়ালো দাবি তুলেছে। তবে সেই টিকিট পাওয়ার সম্ভাবনা তাদের খুবই কম। দুই আসনেই বি চৌধুরীর দলকে সন্তুষ্ট থাকতে হবে বলে মনে করছেন ক্ষমতাসীন দলের নেতারা।

আরটিএনএন

Leave a Reply