জাপানে নবান্ন উৎসব ১৪২৫

রাহমান মনি: একটি সময় ছিল যখন বাংলার ঘরে ঘরে অগ্রহায়ণ মাসে নতুন শস্যে পিঠা-পায়েসের ধুম পড়ে যেত। আমন্ত্রণ জানানো হতো আত্মীয়-পরিজনকে। দেশের বিভিন্ন স্থানে আয়োজন করা হতো পিঠামেলার। উৎসবমুখর পরিবেশে আসর বসানো হতো পালা গানের। যাকে বলা হতো “নবান্ন উৎসব”।

প্রথম দিকে কেবল হিন্দু সমাজেই সাড়ম্বরে নবান্ন উৎসব পালিত হলেও সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির দেশ বাংলাদেশে সকল মানুষের সবচেয়ে অসাম্প্রদায়িক উৎসব হিসেবে বাংলা নববর্ষ উদযাপন এর পরই নবান্ন উৎসব স্থান করে নিয়েছে বর্তমানে। ১৯৯৮ সাল থেকে বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকা শহরে আনুষ্ঠানিক ‘নবান্ন উৎসব’ ব্যাপক আকারে শুরু হয়।

নিজস্ব সংস্কৃতি প্রিয় জাপান প্রবাসীরা জাপানে এপর্যন্ত বাংলাদেশের বিভিন্ন জাতীয় দিবস ও ধর্মীয় আচার-অনুষ্ঠান পালন করে আসলেও এই উৎসবটি এখনো পর্যন্ত কেহই পালন করার উদ্যোগ নেয়নি। যদিও পিঠা-পুলি বা পিঠা উৎসব নামে বিভিন্ন স্থানে এর আয়োজন করা হয়েছিল।

এই প্রথমবারের মতো জাপানস্থ “গ্রেটার খুলনা কমিউনিটি” জাপানে “নবান্ন উৎসব ১৪২৫” নামে নবান্ন উৎসবের আয়োজন করে। একটি আঞ্চলিক সংগঠনের ব্যানারে উৎসবটির আয়োজন করা হলেও ধর্ম, বর্ণ, দল, মত, আঞ্চলিকতা নির্বিশেষে সর্বস্তরের প্রবাসীরা উৎসবে যোগ দিয়ে আনন্দ উল্লাসে মেতে থাকেন দিনভর।

প্রবাসীদের সঙ্গে যোগ দিয়েছিলেন বাংলাদেশ দূতাবাসের ইকনোমিক মিনিস্টার ডঃ সাহিদা আকতার, কমার্স কাউন্সেলর মোঃ হাসান আরিফ, কাউন্সেলর (শ্রম) মোঃ জাকির হোসেনসহ দূতাবাসের অন্য কর্মকর্তা কর্মচারীবৃন্দ। এছাড়া স্থানীয় জাপানি অতিথিরা তো ছিলেনই।

১১ নভেম্বর ২০১৮ রোববার টোকিওর অদূরে সাইতামা প্রদেশের সোকা সিটি সেজাকি কমিউনিটি সেন্টারে আয়োজিত প্রথমবারের মতো ব্যতিক্রম এ আয়োজনে জাপান প্রবাসীদের ঢল নেমেছিল। পরিস্থিতি সামাল দিতে আয়োজকদের হিমশিম খেতে হয়। তারপরও আপ্যায়নে কোনো ত্রুটি ছিল না। বরং বেশ আন্তরিকতার সাথেই বিপুলসংখ্যক অতিথিকে আপ্যায়িত করা হয়।

নবান্ন ভারতের পশ্চিমবঙ্গ ও বাংলাদেশের ঐতিহ্যবাহী শস্যোৎসব। বাংলার কৃষিজীবী সমাজে শস্য উৎপাদনের বিভিন্ন পর্যায়ে যে সকল আচার-অনুষ্ঠান ও উৎসব পালিত হয়, নবান্ন তার মধ্যে অন্যতম।

‘নবান্ন’ শব্দের আভিধানিক অর্থ হচ্ছে ‘নতুন অন্ন’। নতুন ধান থেকে উৎপাদিত চালে প্রথম রান্না উপলক্ষে আয়োজিত উৎসবই হচ্ছে নবান্ন উৎসব। আর অগ্রহায়ণ মাসে নতুন আমন ধানের চালে তৈরি বিভিন্ন পিঠা হচ্ছে নবান্ন উৎসবের অন্যতম উপকরণ।

তাই গ্রেটার খুলনা কমিউনিটি আয়োজিত নবান্ন উৎসবের অন্যতম আকর্ষণ ছিল পিঠা। ১০টি জেলার সমন্বয়ে গ্রেটার খুলনার বিভিন্ন অঞ্চলের ভাবীদের হাতে তৈরি হরেক রকম পিঠা প্রবাসীরা উপভোগ করেছেন বেশ। সাথে চিংড়ি ঘেরখ্যাত খুলনার বিখ্যাত চিংড়িসহ দেশীয় স্বাদে মুখরোচক রাতের আহার তো ছিলই।

উৎসব মানেই বিনোদনের ব্যবস্থা রাখা, যার অন্যতম অংশ সংগীত। সেই চিন্তা মাথায় রেখেই বিশেষ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান সাজানোয় আয়োজনকে আরও প্রাণবন্ত করে তুলে।

গোলাম মাসুম জিকোর পরিকল্পনায় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানটি গ্রাম বাংলার ঐতিহ্যের সাথে সামঞ্জস্য থাকায় যথেষ্ট মুনশীয়ানার পরিচয় পাওয়া যায়। বিশেষ করে উদ্বোধনী পরিবেশনা। উদ্বোধনী গীতিনাট্যটি নির্দেশনায় ছিলেন জেসমিন সুলতানা কাকলি ও বহ্নি আহমেদ। অনুষ্ঠানের সমন্বয় হিসেবে কাজ করেছেন তফসির আহমেদ তুহিন, মোস্তাফিজুর রহমান জনি, জেসমিন সুলতানা কাকলি প্রমুখ।

পুরো আয়োজনকে পাঁচটি পর্বে ভাগ করা হয়েছিল। এগুলো হচ্ছে উদ্বোধন, কবিতা সন্ধ্যা, নবান্নের নৃত্যানন্দ, নবান্নের গীত সন্ধ্যা এবং কনসার্ট। আর এগুলোর উপস্থাপনার প্যানেলে ছিলেন জিকো, বহ্নি আহমেদ, ববিতা পোদ্দার, কাউসার হাসান লাজু, শিলা আফরোজ, তনুশ্রী গোলদার বিশ্বাস প্রমুখ।

বিশেষ সহযোগিতায় ছিল স্থানীয় প্রবাসী সাংস্কৃতিক সংগঠন স্বরলিপি ও উত্তরণ।

গ্রাম বাংলার আবহে মঞ্চটি তৈরি করেছেন শিল্পী সজীব। সহযোগিতায় ছিলেন জিকো, বিপ্লব, লাজু, জনি প্রমুখ।

নবান্ন উৎসব বাংলার মানুষের কাছে এক অতি আপন সংস্কৃতি, যা বাঙালি মননের এক অবিচ্ছেদ্য অংশ। তাই, প্রতি বছর এই উৎসব আয়োজনের আশাবাদ ব্যক্ত করে অনুষ্ঠানের সমাপ্তি ঘোষণা করা হয়।

সার্বিক দায়িত্বে ছিলেন গোলাম মাসুম জিকো।

সাপ্তাহিক

Leave a Reply