মুন্সীগঞ্জে শিশু অহনা হত্যার দায় স্বীকার চাচাতো বোনের

মুন্সীগঞ্জের গজারিয়ায় শিশু মুক্তি আক্তার অহনাকে (৪) হত্যার বর্ণনা দিয়ে আদালতে দায় স্বীকার করেছেন তার চাচাতো বোন। সাজিয়া আক্তার (২৭) নামের ওই আসামি গত সোমবার আদালতে জবানবন্দি দেন। আদালত তাঁকে কারাগারে পাঠিয়েছেন।

জবানবন্দিতে সাজিয়া দাবি করেছেন, প্রতিবেশীর গাছ থেকে মরিচ চুরির দায় তাঁর মেয়ের ওপর চাপানোর কারণে তিনি অহনাকে হত্যা করেছেন।

গত ১২ নভেম্বর নিখোঁজ হয় গজারিয়া উপজেলার কলসের কান্দি গ্রামের অহনা। পরদিন তার মরদেহ বাড়ির পাশের একটি ঝোপের নিচ থেকে উদ্ধার করা হয়। সে ওই গ্রামের শামীম হক খানের মেয়ে।

শিশুটির কপাল ও গলায় আঘাতের চিহ্ন দেখে তার বাবার সন্দেহ হয়। কিন্তু তাঁর ভাই অর্থাৎ সাজিয়ার বাবাসহ ওই পরিবারের সদস্যরা বিষয়টিকে জিন-ভূতের কাজ বলে চালানোর চেষ্টা করে। শেষ পর্যন্ত শামীম হক গত রবিবার থানায় একটি হত্যা মামলা করেন। পরদিন সোমবার সাজিয়া ও তাঁর বাবা সেলিম হক খানকে আটক করা হয়। ওই দিনই সাজিয়া আদালতে জবানবন্দি দেন।

১৬৪ ধারায় দেওয়া স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দিতে সাজিয়া দাবি করেন, প্রতিবেশী সুজন হক খানের গাছ থেকে মরিচ চুরি করার দায় তাঁর মেয়ের ওপর চাপানোর কারণে তিনি ক্ষিপ্ত হন। ঘটনার কিছুক্ষণ পর অহনা তাঁর ঘরে গেলে তিনি শিশুটিকে মারধর করেন। একপর্যায়ে শিশুটি পাকা মেঝেতে পড়ে কপালে আঘাত পায়। খিচুনি উঠে কিছুক্ষণ পর সে অজ্ঞান হয়ে যায়। এতে সাজিয়া আতঙ্কিত হয়ে পড়েন। অহনা মারা গেছে ভেবে একটি রশি দিয়ে শ্বাসরোধ করে তার মৃত্যু নিশ্চিত করেন। পরে তিনি লাশটি ড্রামের ভেতর লুকিয়ে রাখেন।

আদালতে সাজিয়া জানান, অহনাকে না দেখে তার পরিবারের লোকজন খোঁজাখুঁজি শুরু করে। তাদের সঙ্গে তিনিও খোঁজাখুঁজিতে যোগ দেন। তারপর রাতের কোনো এক সময় লাশটি ড্রাম থেকে সরিয়ে গায়ে কিছু কাদা মেখে বাড়ির পাশের ঝোপের নিচে ফেলে দেন। পরদিন দুপুরে ঝোপ থেকে অহনার লাশ উদ্ধার করা হয়।

নিহত অহনার বাবা শামীম হক খান জানান, অহনার কপালে ও গলায় আঘাতের চিহ্ন ছিল। এটা অস্বাভাবিক মনে হওয়ায় তিনি থানায় অভিযোগ করতে চাইলে বড় ভাই সেলিম হক খান, তাঁর মেয়ে সাজিয়া ও পুলিশে চাকরিরত ছেলে সাব্বির তাঁকে বাধা দেন। কিন্তু তাঁদের লুকিয়ে থানায় গিয়ে তিনি অভিযোগ করেন।

শামীম হক বলেন, প্রাথমিক তদন্তে পুলিশও ধারণা করে যে অহনাকে হত্যা করা হয়েছে। এদিকে তাঁর বড় ভাই সেলিম হক তাঁকে ঘটনাটি মেনে নিয়ে লাশ দাফন করার জন্য চাপ দিতে থাকেন। মামলা হলে শিশুটির ময়নাতদন্ত হবে, সেখানে তাঁর শরীরের অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ রেখে দেওয়া হবে বলে তাঁকে ভুল বোঝানোর চেষ্টা করেন। এ ছাড়া র‌্যাবে চাকরিরত সাজিয়ার আরেক ভাই সজিব হক খান গজারিয়া থানায় ফোন করে অপমৃত্যুর মামলা নিয়ে লাশ দিয়ে দিতে বলেন। এতে পুলিশের আরো সন্দেহ হয়। তারা সাজিয়া ও সেলিম হক খানকে থানায় নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করে। একপর্যায়ে তাঁরা অহনাকে হত্যার কথা স্বীকার করেন।

অহনার মৃত্যুর খবর পেয়ে গত বৃহস্পতিবার রাতে জর্ডান প্রবাসী মা দেশে ফিরেছেন। শিশুটির মা-বাবা দোষীদের ফাঁসি দাবি করেছেন।

কালের কন্ঠ

Leave a Reply