নির্দিষ্ট সময়ে শেষ হচ্ছে না পদ্মা সেতুর কাজ!

নানা জটিলতায় পিছিয়ে পড়ে প্রকল্প
২০১৫ সালের ডিসেম্বরে পদ্মা সেতুর নির্মাণ কাজ শুরু হয়। ২০১৮ সালের ডিসেম্বরে এর নির্মাণ কাজ শেষ হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু নানা জটিলতায় পিছিয়ে পড়ে প্রকল্পের কাজ। বর্তমানে পদ্মা সেতুর মূল অংশের ৭১ শতাংশ কাজ সম্পূর্ণ হয়েছে। প্রকল্পের সার্বিক অগ্রগতি ৬০ ভাগ। নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে তাই শেষ হচ্ছে না এই সেতুর কাজ। সংশ্লিষ্ট ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান সময় বাড়ানোর কথা বলেছে। কিন্তু এখনও নির্দিষ্ট করে সে বিষয়ে কিছু বলা হয়নি। ডিসেম্বরে শেষ হচ্ছে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানগুলোর সঙ্গে চুক্তি। পদ্মা সেতুর প্রকৌশলী সূত্র জানিয়েছে, চায়না মেজর ব্রিজ কোম্পানি দীর্ঘদিন ধরেই সময়সীমা বাড়ানোর জন্য বলে আসছিল। আরও কতদিন সময় দেয়া হবে তার জন্য এক্সপার্টরা বৈঠকে বসেছেন। ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানগুলোকে এক বছর সময় দেয়া হয়েছে। এক বছরের বেশি সময় দেয়া হলে তাদের কাজের গতি ধীর হতে পারে বলে জানিয়েছেন তারা।

জানা যায়, এক বছরের বেশি সময় ধরে পদ্মা সেতুর ১১ টি পিলারের নক্সা জটিলতায় ছিল। পিলারগুলোর পাইলিংয়ের ৩৮০ থেকে ৪০০ ফুট গভীরতায় ধরা পড়ে কাদার স্তর। সম্প্রতি ২৯, ৩০, ৩১, ৩২, ৮, ১০, ১১, ২৬, ২৭ নম্বর পিলারের নক্সা চূড়ান্ত হয়েছে। এখন বাকি আছে শুধু ৬,৭ নম্বর পিলারের কাজ।

মূল সেতুর এক প্রকৌশলী বলেন, নক্সা জটিলতায় থাকা ৬,৭ নম্বর পিলারের নক্সা চলতি মাসেই আসবে বলে আশাবাদী। ৬,৭ নম্বর পিলারে ৩ টি করে ৬ টি পাইল ড্রাইভ করে রাখা হয়েছিল। এখন সেগুলো আর সরানো যাচ্ছে না। এর সঙ্গে কি ট্রিটমেন্ট দিয়ে সমাধান করা যায় সেটির অপেক্ষা। স্ক্রীন গ্রাউটিং করে যেসব পিলারের নক্সা এসেছে সেগুলোর কাজ এখনও শুরু হয়নি। এসব পিলারের কাজ শিগগির শুরু হয়ে যাবে। বর্তমানে এসব পিলারের জন্য টেম্প পাইল প্রস্তুত হচ্ছে।

পদ্মা সেতুর সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ সূত্র জানায়, মূল সেতুর ২৬২ টি পাইলের মধ্যে ১৮৬ টির ড্রাইভিংয়ের কাজ শেষ হয়েছে। মূল সেতুর দুই প্রান্তের ২টি ট্রানজিশন পিয়ারের ৩২ টি পিয়ারের সবগুলোর পাইল শেষ হয়েছে। মূল সেতুর ৪২ টি পিয়ারের মধ্যে ১৩ টি পিয়ারের কাজ শেষ হয়েছে। মাওয়া সাইটে মোট ১৭ টি ট্রাস (সুপার স্ট্রাকচার-স্প্যান) এসেছে, যার মধ্যে ৫ টি স্থায়ীভাবে ও ১ টি অস্থায়ীভাবে স্থাপন করা হয়েছে। মাওয়া ও জাজিরা প্রান্তের ৩৫৬ টি ভায়াডাক্টের সব পাইল বসানো হয়েছে। নদী শাসনের মোট ৪৬ শতাংশ কাজ শেষ হয়েছে। মোট ১৩ কিলোমিটারের মধ্যে তিন কিলোমিটারের কাজ সম্পূর্ণ হয়েছে এবং বাকি আছে ১০ কিলোমিটার। জানা যায়, বিশ্বের খ্যাতনামা প্রকৌশল প্রতিষ্ঠান যুক্তরাজ্যের রেন্ডাল লিমিটেড সেতুর ব্যবস্থাপনা পরামর্শকের দায়িত্বে আছে। সঙ্গে আছে জাপানের পাডিকো কেইএল ও বাংলাদেশের বিসিএল। পিলারের নক্সা সমাধানে এই তিনটি প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে সহায়তা করছে ডেনমার্কের পরামর্শক কাউই। পদ্মা সেতুর এ্যাপ্রোচ সড়কের সঙ্গে রেল সংযোগের কাজ এখনও শুরুই হয়নি। জাজিরা প্রান্তে পৌনে এক কিলোমিটার মূল সেতুর ওপর রেলওয়ে বক্স স্ল্যাব বসানোর কাজ শুরু হয়েছে। পদ্মা সেতুতে পাইল ড্রাইভিংয়ের কাজ করছে দুটি হ্যামার।

জনকন্ঠ

Leave a Reply