বালিগাঁও বাজারে প্রতিদিন শ্রম বিক্রির হাটে মানুষের ভিড়

রাজধানীর নিকটবর্তী আলুর জেলা হিসেবে খ্যাত মুন্সীগঞ্জ। মুন্সীগঞ্জের বিস্তীর্ণ জমিতে পহেলা অগ্রহায়ণ থেকে আলু আবাদ করা হয় বহু বছর ধরে। বছরের কয়েক মাস আলু রোপণ ও উত্তোলনে ব্যাপক কর্মযজ্ঞের সৃষ্টি হয় এই জেলায়। আর আলু রোপণকে কেন্দ্র মুন্সীগঞ্জ জেলা জুড়ে মানুষের শ্রম বিক্রির হাট বসে জেলার বিভিন্ন হাটবাজার ও চরাঞ্চলের গ্রামগঞ্জে।

মুন্সীগঞ্জের টঙ্গিবাড়ি উপজেলার বালিগাঁও বাজারে প্রতিদিন সকালে ব্যতিক্রম ধর্মী এক হাট বসে থাকে। যাকে এক কথায় বলে শ্রম বিক্রির হাট। সামান্য সময়ের জন্য শ্রম বিক্রির এই হাট বসে বাজারকে ঘিরে। সেখানে বিক্রি হয় কেবল দিনমজুর তথা শ্রমিকের শ্রম।

সরেজমিনে গ্রামে গিয়ে দেখা গেল শ্রম বিক্রির সেই এক অন্যরকম হাটের চিত্র। ঘড়ির কাঁটায় তখন সকাল পৌনে ৬টা। বাজারের দুই পাশে সড়কে দেখা গেল অসংখ্য নারী-পুরুষের জটলা। দুর থেকে মনে হবে কোনো অবস্থান ধর্মঘট বা অনশনে নেমেছে নারী-পুরুষ।

কিন্তু জটলার কাছে যেতেই জানা গেল অন্য কথা। জটলার ভেতর উপস্থিত শত শত নারী-পুরুষ। এরা একেকজন পেশায় শ্রমিক বা দিনমজুর। নিত্যদিনের কাজে যাওয়ার প্রয়াসে জড়ো হয়েছে ওই নারী-পুরুষ। তবে তার আগে বাজার এলাকায় তারা বিকিকিনি হচ্ছেন। বিকিকিনি হচ্ছে তাদের শ্রম। ফুটে উঠেছে বালিগাঁও বাজারে শ্রম বিক্রি হাটের দৃশ্য। কথা বলে জানা গেছে- শ্রম বাজারে বেশ চাহিদা রয়েছে এই সব দিনমজুর বা শ্রমিকদের।

জীবিকার তাগিদে এরা ছুটে এসেছেন দেশের উত্তরবঙ্গ থেকে। আলু রোপণ ও উত্তোলন মৌসুমে এদের আসা শুরু করে থাকেন মুন্সীগঞ্জ জেলার বিভিন্ন গ্রাম ও চরাঞ্চলের এই জনপদে। আলু রোপণ থেকে কৃষি অন্যান্য ফসলের কাজে এদের শ্রম কাজে লাগে।

বালিগাঁও বাজার এলাকায় একাধিক কৃষকের সঙ্গে পুরুষ শ্রমিকরা চুক্তি অথবা দিনব্যাপী শ্রম বিক্রির পারিশ্রমিক নিয়ে দর-কষাকষি করছে। আবার শ্রম বিক্রির চুক্তি শেষে কৃষকের পেছনে সারিবদ্ধ হয়ে রোপণ করা আলু জমির দিকে চলে যাচ্ছেন। শ্রমিকরা ১৫ থেকে ২০ জনের গ্রুপে বিভক্ত হয়ে আলু রোপণ কাজে যুক্তদের মধ্যে নারী শ্রমিকও রয়েছে।

বাজার এলাকার আক্তার হোসেন জানায়, প্রতিদিন সকালেই শ্রম বিক্রির হাট বসে বালিগাঁও বাজারসহ আশপাশ গ্রামের পথে-প্রান্তরে। রংপুর, দিনাজপুর, গাইবান্ধা, নিলফামারী, কুড়িগ্রাম ভোলা, বগুরাসহ উত্তরবঙ্গের অসংখ্য নারী-পুরুষ শ্রমিকের শ্রম বিক্রির বেচাকেনার হাট বসে থাকে।

চুক্তি এবং দিন প্রতি পারিশ্রমিকে চুক্তিবদ্ধ হয়েই ফসলের মাঠে কাজে ছুটছেন এসব শ্রমিক। কৃষককূল স্থানীয় শ্রমিকের অভাবে উত্তরবঙ্গের এসব শ্রমিকদের পেয়ে ফসলের মাঠে তাদেরকে সম্পৃক্ত করছেন।

এদিকে, পারিশ্রমিকের দিক দিয়ে বৈষম্যের শিকার হচ্ছেন- উত্তরবঙ্গের শ্রমিকরা বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। তারা অভিযোগ করেন- স্থানীয় শ্রমিকদের তুলনায় তাদের কম পারিশ্রমিক দেওয়া হচ্ছে। অথচ তারা একই পরিশ্রম করছে। উত্তরবঙ্গের রংপুর বিভাগের লালমনিহাট জেলার কালিগঞ্জ উপজেলার কয়েকজন শ্রমিকের সঙ্গে কথা বলে এ তথ্য জানা গেছে।

গাইবান্ধা জেলার মাদানপুর গ্রামের কৃষি শ্রমিক নরুনবী জানায়, কাজ করি সমান সমান মজুরির বেলায় দুই। আমরাতো অনেক দুর থেকে আসছি কাজের জন্য। কিন্তু স্থানীয়দের কাজের মূল্য বেশি আর অন্য জেলার শ্রমিকদের কম। তার পরেও পেটের তাগিতে কাজ করতে হয়।

রংপুর থেকে আসা নারী শ্রমিক মমতাজ বেগম (৫০) বলেন, পুরুষ শ্রমিকদের মতো তারা একই পরিশ্রম করছেন। কিন্তু তাদের মজুরি দেওয়া হয় ২৫০ থেকে ৩০০ টাকা আর পুরুষ শ্রমিকদের ৪০০ থেকে ৫০০ টাকা। মজুরি বৈষম্যের এ বিষয়টি নিয়ে মমতাজ, পাখি বেগম (৬০), আকলিমা বেগম (৪৮) সহ অপর নারী শ্রমিকরা মনের কষ্টের কথা তুলে ধরেন।

পাখি বেগম জানায়, প্রতিদিন সকাল সাড়ে ৫টা উঠে বালিগাঁও বাজার এলাকায় দলবদ্ধ হয়ে লাইনে থাকতে হয়। মালিকদের সঙ্গে দরদাম হলে কাজে লেগে যাই সকাল ৭টা থেকে দুপুর ২টা পর্যন্ত আলু রোপণ কাজে, মজুরি হিসেবে প্রতিদিন ৩০০ টাকা। পাখি বেগমের মতোই জীবিকার তাগিদে মুন্সীগঞ্জে ছুটে এসেছেন আকলিমা, জহুরা, নয়নতারাসহ আরো অনেকেই।

বালিগাঁও ইউনিয়নের ৩নং ওয়ার্ডের মেম্বার রিপন হোসেন বেপারী তিনিও তার জমিতে আলু রোপণ করার জন্য উত্তরবঙ্গের শ্রমিক নিয়োগ করেছেন। স্থানীয়ভাবে শ্রমিকের সংখ্যা কম হওয়ায় বিভিন্ন জেলা থেকে আগত শ্রমিকদের আলু রোপণের সময় প্রয়োজন হয়ে পড়ে।

এ ছাড়া উত্তরবঙ্গের বিভিন্ন জেলা থেকে ১৫ থেকে ২০ জন দলভুক্ত হয়ে আলুর জেলা হিসেবে খ্যাত মুন্সীগঞ্জের বিস্তীর্ণ জমিতে আলু রোপণ কাজে ভীড় জমিয়ে তুলেছে। তারা কৃষকের নির্দেশনা মতো আলু রোপণ, জমিতে বিভিন্ন ধরনের কাজ করছেন।

জানা গেছে, পুরো অক্টোবর শেষের সপ্তাহ থেকে ডিসেম্বরের মাঝামাঝি সময় জুড়ে আলু রোপণ কাজে শ্রমিকদের নিয়ে জমিতে থাকতে হবে। আর এই মাস জুড়েই উত্তরবঙ্গের বিভিন্ন জেলা থেকে আগত শ্রমিকেরা থাকছেন ফসলের মাঠের সঙ্গে।

সোনালীনিউজ

Leave a Reply