সিরাজদিখানে খাস জমিসহ ও ফসলি জমির মাটি কেটে নিচ্ছে ভূমি দস্যুরা

প্রশাসনের নির্বাচনি ব্যস্ততা
নাছির উদ্দিন: সিরাজদিখান উপজেলার চিত্রকোট ইউনিয়নের গোয়ালখালী গ্রামের তিন ফসলী জমি, সরকারি খাস জমি, হালট ও সরকারি খালের মাটি কেটে সিয়ে যাচ্ছে ভূমিদস্যু প্রভাবশালী দুইটি সিন্ডিকেট। রহস্যজনকভাবে নীরব ভুমিকায় রয়েছে স্থানীয় প্রশাসন। মাটি বিক্রির জড়িত রয়েছে একজন সাবেক সচিবও। তবে প্রশাসন বলছে নির্বাচনি ব্যস্তায় রয়েছেন তারা, দু’একদিনের মধ্যে ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন তারা।

সরোজমিনে দেখা যায়, উপজেলার গোয়ালখালী ডাকপাড়া গ্রামের তিন ফসলি জমি, সরকারি খাস জমি, হালট ও সরকারি খালের মাটি কেটে বিভিন্ন ইট ভাটায় বিক্রি করছে যুবলীগ নেতা ও চিত্রকোট ৯নং ওয়ার্ড ইউপি সদস্য শফিউদ্দিন খান মাসুম ও সাবেক ৯নং ওয়ার্ড ইউপি সদস্য ও বিএনপি নেতা আবুল হোসেন। তাদের দুজনের সিন্ডিকেট এক হয়ে এ বিশাল এলাকার মাটি বিক্রি করে দিচ্ছেন। শফিউদ্দিন খান মাসুম এর সিন্ডিকেটের হয়ে কাজ করছে ফুলহার গ্রামের মহিউদ্দিন, জি. এম ও শাহিন গং এবং আবুল হোসেনের সিন্ডিকেটের হয়ে কাজ করছেন হালিম ও আরিফ গং। শফিউদ্দিন খান মাসুম ও আবুল হোসেন অবৈধভাবে মাটি কেটে বিভিন্ন ইট ভাটায় বিক্রি করে লক্ষ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে।

এমনকি সিন্ডিকেটটির প্রধান দুইজন দুই দলের সমর্থন করলেও তাদের মধ্যে কোন ভেদাভেদ নেই। প্রায় মাসাধিক কাল ধরে চলছে তাদের মাটি কাটার উৎসব। মাটি কাটা বন্ধে প্রশাসনের কোন হস্তক্ষেপ এ পর্যন্ত লক্ষ্য করা যায় নি।

ভুক্তভোগি কৃষকদের অভিযোগ, তাদের পাশের জমির মাটি কাটার কারণে ভাঙনের সৃষ্টি হয়েছে এবং চাষাবাদ করাও বন্ধ হয়ে গেছে। জমিতে ফসল চাষ করতে না পারায় কৃষকরা আর্থিকভাবে ক্ষতির সমূক্ষীন হওয়ায় ভাঙ্গনকৃত জমি নাম মাত্র মূল্যে তাদের কাছে বিক্রয় করতে বাধ্য হচ্ছে কৃষকরা। ওই সিন্ডিকেটের কাছে এলাকাবাসী জিম্মি হয়ে আছে এমনটিই জানিয়েছে একাধিক কৃষক। তারা মুখ খুলেলে জীবননাশের রয়েছে।

যুবলীগ নেতা ও চিত্রকোট ৯নং ওয়ার্ড ইউপি সদস্য শফিউদ্দিন খান মাসুম মুঠোফোনে জানান, আমার কোন মাটির ব্যবসা নেই। আমি মাটির ব্যবসা ছেড়ে দিয়েছি। এখন ওই এলাকায় মাটি কাটছে ফুলহার গ্রামের আমজাদ, লেহাজ উদ্দিনসহ অন্যান্যরা। আমার বিরুদ্ধে যে লোক তথ্য দিয়েছে আপনারা একটু যাচাই বাছাই করে দেখেন।

সাবেক চিত্রকোট ৯নং ওয়ার্ড ইউপি সদস্য আবুল হোসেন সিন্ডিকেটের সদস্য মোঃ হালিম জানান, আপনাকে একটু পরে জানাচ্ছি এ বলে ফোন কেটে দেন। পরে তাকে বারবার ফোন করার পরও তিনি ফোন ধরেন নি।

এ বিষয়ে চিত্রকোট ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান শামসুল হুদা বাবুল জানান, যারা মাটি কাটে তাদের বিরুদ্ধে আপনারা পত্রিকায় লিখেন। পুলিশ তাদেরকে গ্রেফতার করুক। আমি ইউএনও স্যারকে মাটি কাটার বিষয়ে বহুবার বলেছি। স্যারতো সময়ই দেয় না। সামনের আইনশৃঙ্খলা মিটিং আছে ওই মিটিংয়ে মাটি কাটার বিষয়টা তুলে ধরবো। তারপরও যেন মাটি কাটা বন্ধ হয়।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তানবীর মোহাম্মদ আজিম জানান, আমি নির্বাচন নিয়ে ব্যস্ত তারপরও ১৬ ডিসেম্বরের পরে সার্কেল এএসপি’র সাথে আলোচনা করে একটা ড্রাইভ দিব।

এ বিষয়ে সিরাজদিখান সার্কেল সিনিয়র এএসপি মোঃ আসাদুজ্জামান বলেন, সরকারি খাস জমিসহ ফসলি জমির মাটি কেটে নিচ্ছে এটা দেখার দায়িত্ব উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও সহকারি কমিশনার (ভূমি)। তাদের যদি পুলিশ প্রয়োজন হয় আমি সাথে সাথে দিব। প্রয়োজনে আমি নিজে সাথে থাকব। তখন দেখব কে কত বড় নেতা এবং কিভাবে মাটি কাটে।

Leave a Reply