‘অর্পিত দায়িত্ব পালন করেছি কিনা এটিও সততার মধ্যে’

নির্বাচন কমিশনার বেগম কবিতা খানম বলেছেন, ‘প্রিজাইডিং অফিসার নিয়োগে কেউ কোন তদবির করেনি। নির্বাচন কমিশনে অনেক অভিযোগ পাচ্ছি। কিন্তু মুন্সীগঞ্জ থেকে সে রকম কোন অভিযোগ পাইনি।’

প্রিজাইডিং অফিসারদের উদ্দেশ্য করে তিনি বলেন, ‘পয়সা খেলাম না, এটি কোন সততা না। আইন মেনে চলা, অর্পিত দায়িত্ব পালন করেছি কিনা এটিও সততার মধ্যে। আপনি সৎ থাকলে কেউ আপনাকে অবৈধ আবদারের সাহস পাবে না। এটি একটি প্রতিদ্বন্দ্বিতামূলক নির্বাচন, অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন। অনেক ধরণের সমস্যা হতে পারে, আমি ভয় দেখাচ্ছি না।’

মঙ্গলবার (২৫ ডিসেম্বর) কে.কে.গভঃ ইনন্সিটিউশনে ভোটগ্রহণ কর্মকর্তাদের প্রশিক্ষণ সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি আরো জানান, ‘একটি কেন্দ্রের সব শৃঙ্খলা নির্ভর করে প্রিজাইডিং অফিসারের ওপর। যেসব কেন্দ্রে ভোট বিঘ্নিত হওয়ার সম্ভাবনা আছে। পরিস্থিতি বুঝে সিদ্ধান্ত নিতে পারবেন যে ভোটগ্রহণ হবে কিনা। কমিশন এই ব্যাপারে কোন হস্থক্ষেপ করবে না। ব্যালট ভোটারদের আমানত, তা যেন খেয়ানত না হয়। প্রিজাইডিং অফিসার সাংবাদিক ও পর্যবেক্ষকের যেই নীতিমালা আছে তা ভালোভাবে আয়ত্ব করবেন। উল্টাপাল্টা করলে প্রেসদের ক্ষেপিয়ে ফেলবেন।’

আরো বলেন, ‘দুইটি আদালত কাজ করবে একটি মোবাইল কোর্ট যা নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট পরিচালনা করবে আর একটি জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট পরিচালনা করবে। এই দুইটি আদালত তাৎক্ষনিক ভাবে সিদ্ধান্ত দিবে। পাশে আছে আইন শৃঙ্খলা বাহিনী, আছে র‌্যাব, পুলিশ, বিজিবি ও সর্বপরি সেনাবাহিনী। ভোটাররা মোবাইল নিয়ে কেন্দ্রে প্রবেশ করতে পারবে না। অনেক সময় ভোটাররা ভোট দেওয়ার ছবি তুলে প্রার্থীকে প্রদর্শন করে। এছাড়া সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে নেগেটিভ ম্যাসেজ ছড়ায়। প্রার্থীদের প্রার্থী হিসাবে দেখবেন। ভয় দেখাচ্ছি না, স্মরণ করিয়ে দিচ্ছি। এবারের নির্বাচনে কোন প্রকার ছাড় দিতে চাই না।’

সদর উপজেলা নির্বাচন অফিসের বাস্তবায়নে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন উপলক্ষে ভোটগ্রহণ কর্মকর্তাদের প্রশিক্ষণে রির্টানিং কর্মকর্তা ও জেলা প্রশাসক সায়লা ফারজানার সভাপতিত্বে বিশেষে অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন জেলা পুলিশ সুপার জায়েদুল আলম।

বিডি২৪লাইভ

Leave a Reply